২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের কংগ্রেস

কেউ এসেছে শিক্ষকের হাত ধরে, কেউবা মা-বাবাকে সঙ্গে নিয়ে। বন্ধুদের সঙ্গেও এসেছে অনেকে। কেউ নিয়ে এসেছে তার উদ্ভাবনী প্রকল্প, কারও বগলে পোস্টার আর কেউ কেউ উপস্থাপন করবে বৈজ্ঞানিক নিবন্ধ। এ রকম অনেক খুদে বিজ্ঞানীর মিলনমেলা। তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে খুদে বিজ্ঞানীরাও নানা প্রকল্প তৈরি করেছে এ বিষয়ে। দুই দিনের এ অনুষ্ঠানে দেশের মোট ৪৫৬ জন খুদে বিজ্ঞানী ১০৬টি বিজ্ঞান প্রকল্প, ৫৬টি বৈজ্ঞানিক নিবন্ধ ও ৪৮টি পোস্টার উপস্থাপন করে। গত ২২ আগস্ট শনিবার ‘বিএফএফ-এসপিএসবি শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেস ২০১৫’ এ সারাদেশের ৬৬ জন খুদে বিজ্ঞানীকে পুরস্কৃত করা হয়।

পিঁপড়ার জীবনব্যবস্থার ওপর পারিপার্শ্বিকতার প্রভাব নিয়ে দীর্ঘ পর্যবেক্ষণ করেছে দিনাজপুর সরকারী কলেজের সাহিবা নোশিন ও দিনাজপুর জিলা স্কুলের সামিন ইয়াসার। তাদের উপস্থাপিত পোস্টারটি সেরা পোস্টারের মর্যাদা পেয়েছে। দিনাজপুর স্কলারস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এ্যান্ড কলেজের সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী বর্ণিক রায় ফসল ও শাকসবজির ফলন বৃদ্ধিতে বিভিন্ন ফল ও ফুলের নির্যাসের ব্যবহার নিয়ে গবেষণামূলক নিবন্ধ লিখেছে। এটি সেরা নিবন্ধের মর্যাদা পেয়েছে।

ময়মনসিংহ মুমিনুন্নিসা সরকারী মহিলা কলেজের তটিনী সরকার বানিয়েছে ইনজেকশন এ্যাকচুয়েটর। এটি এমন একটি ডিভাইস বা যন্ত্র, যার মাধ্যমে কোন রকম প্রশিক্ষণ ছাড়াই যে কেউ সঠিকভাবে ইনজেকশন দিতে পারবে। এটি সেরা প্রকল্প হিসেবে পুরস্কার জিতে নেয়। দেশের জ্যেষ্ঠ বিজ্ঞানীদের সঙ্গে খুদে বিজ্ঞানীদের একটি যৌথ কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়। এতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সবার ব্যবহারের সুযোগসহ বিজ্ঞানাগার নির্মাণ এবং যোগ্য ও দক্ষ বিজ্ঞান শিক্ষক নিয়োগের আহ্বানসহ নয়টি ঘোষণা গৃহীত হয়। যৌথ কংগ্রেসে উপস্থিত ছিলেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও ইয়াসমীন হক, বিশিষ্ট প্রাণিবিজ্ঞানী ও পরমাণু শক্তি কমিশনের সাবেক মুখ্য বিজ্ঞানী রেজাউর রহমান, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক আরশাদ চৌধুরী ও নোভা আহমেদ এবং রাজশাহী শিক্ষক প্রশিক্ষণ কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ আবদুস সামাদ মণ্ডল।

এবারের শিশু-কিশোর বিজ্ঞান কংগ্রেসে অংশগ্রহণকারীদের মধ্য থেকে ৪০ জনকে তৃতীয় জগদীশ বসু বিজ্ঞান ক্যাম্পে আমন্ত্রণ জানানো হবে। জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের সহযোগিতায় কংগ্রেসের নলেজ পার্টনার ছিল ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সেরাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান। এ সময় তিনি আশা প্রকাশ করেন, ক্রিকেট, গণিত ও তথ্যপ্রযুক্তির মতো আমাদের তরুণেরা বিজ্ঞানেও নিজেদের কীর্তি তুলে ধরবে।

অনুষ্ঠানের সমাপনী পর্বে সভাপতিত্ব করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। বক্তব্য দেন জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের মহাপরিচালক স্বপন কুমার রায়, আয়োজক সংগঠন বাংলাদেশ ফ্রিডম ফাউন্ডেশনের (বিএফএফ) নির্বাহী পরিচালক সাজ্জাদুর রহমান চৌধুরী এবং বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতির (এসপিএসবি) সহসভাপতি মুনির হাসান, সাধারণ সম্পাদক ফারসীম মান্নান মোহাম্মদী।

তিতাস মনির