১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সংক্ষিপ্ত সংবাদ

  • রিও অলিম্পিকই শেষ উসাইন বোল্টের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিশ্বমানের বড় প্রতিযোগিতায় ইতোমধ্যে ৮ বছর পার করে ফেলেছেন। ২০০৭ সালে ওসাকায় অনুষ্ঠিত বিশ্ব এ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপস দিয়ে শুরু করেছিলেন ২১ বছর বয়সে। এখন বয়স ২৯। রিও ডি জেনিরো অলিম্পিক সমাপনীর দিনে ৩০ হয়ে যাবে। বয়স বাড়ার পরও শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছেন ঠিকই কিন্তু বারবার ইনজুরি আঘাত হানছে। এবার বেজিংয়ে চলমান বিশ্ব এ্যাথলেটিক্স আসরে ইতোমধ্যেই ডাবল জিতে গেছেন। ইতোমধ্যেই ব্যক্তিগত ১১টি সহ বিশ্ব আসর ও অলিম্পিক মিলিয়ে ১৬ স্বর্ণ জিতেছেন। সময় এসেছে এবার সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়ার। পদক গ্রহণের সময় বিশ্বের দ্রুততম মানব জ্যামাইকার উসাইন বোল্ট জানিয়েছেন আগামী অলিম্পিকের পরই ট্র্যাক এ্যান্ড ফিল্ডকে বিদায় জানাবেন তিনি।

ইতোমধ্যে ৫ বিশ্ব আসরে অংশ নিয়ে ফেলেছেন বোল্ট। বিশ্ব এ্যাথলেটিক্স আসরে সবমিলিয়ে ১২ প্রতিযোগিতায় দৌড়েছেন এবং ১০ স্বর্ণপদক জিতেছেন। কিন্তু ২০১১ বিশ্ব আসরে নিজের অন্যতম সেরা ইভেন্ট ১০০ মিটারে আগেভাগেই বাদ পড়েছেন হিটে ফলস স্টার্টের কারণে। তাই ডাবল জিততে ব্যর্থ হয়েছিলেন। আর ২০০৭ সালে প্রথমবার বিশ্ব আসরে অংশ নিয়ে ওসাকায় ২০০ মিটার ও দলগত ৪ী১০০ মিটার রিলেতে রৌপ্য জিতেছিলেন। এছাড়া সবই আছে স্বর্ণ। কিন্তু এবার থামার সময়ে হয়ে গেছে। ২০১৭ সালে আগামী বিশ্ব এ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপসে হয়তো আর দৌড়াবেন না। সে সম্ভাবনাটা ফিফটি-ফিফটি। আগামী বছর রিও অলিম্পিকের পরই অবসরে যাওয়ার চিন্তা করছেন সর্বকালের সবচেয়ে গতিধর মানব বোল্ট। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি যেমনটা আগে বলেছি যে আমার স্পন্সর প্রতিষ্ঠানগুলো চায় আরও এক বছর আমি থাকি। সে জন্য রিও অলিম্পিকের পর হয়তো অবসরেই যাব। তাছাড়া আমার শরীরও বলছে আর একটা বছর যেতে পারব এভাবে। যদি আমি মনোযোগী থাকি এবং দৃঢ়সঙ্কল্প নিয়ে এগোতে পারি সেক্ষেত্রে হয়তো বেশিদিন থাকার সম্ভাবনা আছে। রিও’র পর অবস্থা বুঝেই আসলে সঠিক সিদ্ধান্তটা নিতে পারব।’

এ বছর পেলভিক সমস্যায় আক্রান্ত হয়েছিলেন বোল্ট। এবার ১০০ মিটারে তাকে কঠিন চ্যালেঞ্জে ফেলেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের জাস্টিন গ্যাটলিন। কিন্তু ২০০ মিটারে বেশ সহজেই জিতে গেছেন। টানা চারবার বিশ্ব আসরের ২০০ মিটারে স্বর্ণ জিতলেন এবার বোল্ট। বার্ডস নেস্ট স্টেডিয়ামে বিজয় উদযাপনের সময় এক টিভি ক্যামেরাম্যানের চলমান বাহন তাকে পেছন থেকে ধাক্কা দিলে উড়ে গিয়ে পড়ে যান বোল্ট। এ বিষয়ে ৬ বারের অলিম্পিক জয়ী বোল্ট বলেন, ‘আমার হয়তো পা টাই শেষ হয়ে যেত। এটা অবশ্যই ভয়ের বিষয় ছিল।’ তবে অনেকে এ বিষয়টি নিয়ে মজা করে বলছেন, ‘এই প্রথম বেজিংয়ে কেউ বোল্টের পতন ঘটাতে পারল। অবশেষে পরাজিত হলেন বোল্ট।’

২০০ মিটারে নতুন সম্রাজ্ঞী শিপার্স

পুরুষদের হার্ডলসে ব্যর্থ মেরিট

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শেলী এ্যান ফ্রেজার-প্রাইস নেই। সে কারণে মহিলাদের ২০০ মিটার স্প্রিন্টে ফেবারিট ছিলেন হল্যান্ডের ২৩ বছর বয়সী তরুণী স্প্রিন্টার ড্যাফনে শিপার্স। বেজিংয়ের বার্ডস নেস্ট স্টেডিয়াম তাই নতুন সম্রাজ্ঞী পেয়েছে ২০০ মিটারে। তিনি নতুন চ্যাম্পিয়নশিপস ও ইউরোপিয়ান রেকর্ড গড়ে ২১.৬৩ সেকেন্ড সময় নিয়ে জিতেছেন স্বর্ণপদক। যদিও সহজ হয়নি তার জয়টা। জ্যামাইকার আরেক তরুণী এলেইন থম্পসন ০.০৩ সেকেন্ড পিছিয়ে থেকে রৌপ্য জয় করেন। অপরদিকে, পুরুষদের ১১০ মিটার হার্ডেলসে বিশ্বরেকর্ডধারী এরিস মেরিট পারেননি, জিতেছেন ব্রোঞ্জ। স্বর্ণ জিতেছেন রাশিয়ার সের্গেই শুবেনকভ। মেয়েদের লংজাম্পে যুক্তরাষ্ট্রের টিয়ানা বার্তোলেট্টা চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন ৭.১৪ মিটার পেরিয়ে।

২০০৫ সালে হেলসিংকিতে বার্তোলেট্টা স্বর্ণ জিতেছিলেন। কিন্তু গত ১০ বছরে আরও চার বিশ্ব আসরে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখতে বা পুনরুদ্ধার করতে পারেননি। অবশেষে তিনি লংজাম্পে বিশ্বসেরা হলেন। যদিও সেমিফাইনালে তিনি তৃতীয় অবস্থান নিয়েই ফাইনালে উঠেছিলেন। রৌপ্য জেতেন ব্রিটেনের সারাহ প্রক্টর। তিনি ৭.০৭ মিটার পেরিয়েছেন এবং সার্বিয়ার ইভানা স্পানোভিচ ৭.০১ মিটার পেরিয়ে জয় করেন ব্রোঞ্জ। পুরুষদের হার্ডলসে আগে থেকেই বোঝা যাচ্ছিল জোর লড়াই হবে। কারণ দুইবারের ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন রাশিয়ার শুবেনকভ এবং অলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন ও বিশ্বরেকর্ডধারী মেরিট ছিলেন ফেবারিট। এ দু’জনের লড়াই দেখতে উন্মুখ হয়ে ছিলেন অনেকে। শেষ পর্যন্ত শুবেনকভই জিতলেন। তিনি জাতীয় রেকর্ড গড়ে ১২.৯৮ সেকেন্ড সময় নেন। জ্যামাইকার হ্যান্সলে পার্চমেন্ট ১৩.০৩ সেকেন্ড সময় নিয়ে রৌপ্য এবং মেরিট ১৩.০৪ সেকেন্ড টাইমিংয়ে ব্রোঞ্জ জয় করেন। কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য পরদিনই বেজিং ছাড়বেন মেরিট।

শুক্রবার বেজিংয়ের বার্ড নেস্ট স্টেডিয়ামে প্রধান আকর্ষণ ছিল মহিলাদের ২০০ মিটার স্প্রিন্ট। ১০০ মিটারে জোর লড়াই চালিয়েছিলেন ডাচ্ তারকা এ্যাথলেট শিপার্স। কিন্তু পেরে ওঠেননি শেলীর সঙ্গে। রৌপ্য নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল এ ডাচ্ তারকাকে। কিন্তু ২০০ মিটারে শেলীর চ্যালেঞ্জ ছিল না। তাই যেন মানসিকভাবে অনেকটাই চাপমুক্ত ছিলেন শিপার্স। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত তাই নিজের সেরাটাই দেখাতে পেরেছেন। বিশ্ব আসরের নতুন রেকর্ড এবং ইউরোপের নতুন রেকর্ড গড়েছেন ২১.৬৩ সেকেন্ড টাইমিংয়ে। অথচ দুই বছর আগে শিপার্স মস্কোর আসরে হেপ্টাথলনে অংশ নিয়েছিলেন। ২১.৬৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে এলেইন রৌপ্য জেতেন। আর দুইবারে অলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন ভেরোনিকা ক্যাম্পবেল-ব্রাউন ২১.৯৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জ জিততে সক্ষম হন। তিনি ২০১১ সালে দেগুতে স্বর্ণ, ওসাকা ও বার্লিন বিশ্ব আসরে রৌপ্য জিতেছিলেন। একই ইভেন্টে বৃটেনের দিনা এ্যাশার-স্মিথ ৩০ বছরের ব্রিটিশ রেকর্ড ভেঙ্গেছেন। কিন্তু এরপরও তিনি পঞ্চম হিসেবে শেষ করেন।

‘ফাইনাল’ টেস্টে বৃষ্টির হানা

শ্রীলঙ্কা-ভারত সিরিজ, কুশল পেরেরা ও নামান ওঝাÑ ১৫ বছর পর ‘দুই’ উইকেটরক্ষকের

অভিষেক!

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শ্রীলঙ্কা-ভারত ১-১এ চলামান সিরিজের শেষ ম্যাচটি হয়ে উঠেছে ‘অঘোষিত ফাইনাল’। সেখানে শুরুতেই বৃষ্টির বাগড়া। কলম্বোর সিংহলি স্পোর্টস ক্লাব (এসএসসি) মাঠে সিরিজ নির্ধারণী টেস্টের প্রথম দিনে খেলা হয়েছে মোটে ১৫ ওভার। ২ উইকেট হারিয়ে সফরকারী ভারতের সংগ্রহ ৫০ রান। চেতেশ্বর পুজারা ১৯ এবং অধিনায়ক কোহলি ১৪ রান নিয়ে ব্যাট করছেন। গলের নাটকীয় প্রথম ম্যাচে ৬৩ রানের জয় পায় স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা। তবে পি সারা ওভালে ২৭৮ রানের জয়ে দুর্দান্ত প্রতাপে ঘুরে দাঁড়ায় অতিথিরা। এসএসসির ‘ফাইনাল’ টেস্ট ঘিরে বইছে ‘অন্য রোমাঞ্চ,’ অথচ বেরসিক বৃষ্টি ভাসিয়ে নিল প্রথম দিনের বেশির ভাগ খেলা।

টস জিতে ফিল্ডিং বেছে নেন স্বাগতিক সেনাপতি এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। অধিনায়কের সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা তুলে ধরে শুরুতেই দুরন্ত বোলিং করেন দুই পেসার ধাম্মিকা প্রসাদ ও নুয়ান প্রদীপ। প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই ওপেনার লোকেশ রাহুলকে পরিষ্কার বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান প্রসাদ। নামের পাশে মাত্র ২ রান জমা করতে পারেন আগের টেস্টের ম্যাচসেরা। বড় ধাক্কাটা আসে এরপরই। চতুর্থ ওভারে ৮ রান করা অজিঙ্কা রাহানেকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন অপর পেসার প্রদীপ। ১৪ রানে ২ উইকেট হারানোর পর পুজারার সঙ্গে যোগ দেন কোহলি। দলকে ভালভাবেই সামলাচ্ছিলেন তারা। ১৫ ওভারে দলীয় অর্ধশতক পূর্ণ করেন দুজনে। এরপরই বৃষ্টিতে বন্ধ হয়ে যায় খেলা। পুজারা ৪২ বলে ২ চারের সাহায্যে ১৯ এবং বড় ভরসা অধিনায়ক কোহলি ৩৪ বলে সমান সংখ্যক চারের সাহায্যে ১৪ রান করে অপরাজিত রয়েছেন। সিংহলির পিচে ঘাস থাকবে কি না, আগের দিন বিকেলেও সেটি নিশ্চিত হতে পারছিলেন না অতিথি ভারতীয় থিংকট্যাঙ্ক। এমনিতে কলম্বোর এই মাঠে স্বাগতিক লঙ্কানদের রেকর্ড বেশ সমৃদ্ধ। শেষ ১৪ টেস্টে অপরাজিত তারা! তবু আগের দুই টেস্টে ভারতীয় স্পিনার, বিশেষ করে রবিচন্দ্রন অশ্বিনের কাছেই নাকাল হওয়ায় এখানে পিচে ঘাস, থাকে কি না, সেদিকে নজর ছিল কোহলিদের। শুক্রবার সকালে টসের আগে স্পষ্ট হয়, দেখা যায় ঘাসে ভরা সবুজ উইকেট। স্থানীয় পিচ কিউরেটর অবশ্য এমন ইঙ্গিতই দিয়েছিলেন। টস জিতে ফিল্ডিং নিতে তাই লঙ্কাপতি ম্যাথুসকে দ্বিতীয়বার ভাবতে হয়নি। বৃষ্টি ছাড়া বিপদের মাঝে পরিসংখ্যানও কোহলিদের স্বস্তি দেবে, ২০০৭Ñএর পর সিংলিতে প্রথমে ব্যাটিং করা কোন দল হারেনি। মজার বিষয়, ম্যাচে শ্রীলঙ্কার হয়ে টেস্ট অভিষেক হয়েছে উইকেটরক্ষক কুশল পেরেরারও! ২০০০ সালের পর টেস্টে এক ম্যাচে দু-দলের উইকেটরক্ষকের অভিষেক এই প্রথম। সেবার ঢাকা টেস্টে অভিষেক হয়েছিল বাংলাদেশের খালেদ মাসুদ পাইলট ও ভারতের সাবা করিমের।

টেস্ট চালিয়ে যাবেন বেল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন ইয়ান বেল। ইংল্যান্ড ব্যাটসম্যান জানালেন, এই মুহূর্তে টেস্ট ছাড়ার কোন ইচ্ছাই তার নেই। তবে তরুণদের সুযোগ করে দিতে সরে দাঁড়াতে চান ওয়ানডে থেকে। ‘প্রতি এ্যাশেজ শেষে শারীরিক ও মানসিকভাবে বিধ্বস্ত লাগে। ওভাল টেস্ট শেষে তাই বলেছিলাম, ভবিষ্যত নিয়ে ভাবতে সময় দরকার। পরে কোচ ট্রেভর বেইলিস ও অধিনায়ক এ্যালিস্টার কুকের সঙ্গে কথা বলেছি। দারুণ সৌহার্দ্যপূর্ণ আলাপ হয়েছে, যতটা পরি সৎ থাকতে চেয়েছি। মনে হচ্ছে, টেস্ট ছাড়ার জন্য আমি ভেতর থেকে তৈরি নই। আমার ক্ষুধা আছে, আছে চাওয়া। যতদিন এই ইচ্ছাটা থাকবে সাদা পোশাকে চালিয়ে যেতে চাই।’ বিবিসিকে দেয়া সাক্ষাতকারে বলেন অভিজ্ঞ ইংলিশ ক্রিকেটার।

ইংল্যান্ডের হয়ে পাঁচ এ্যাশেজ সাফল্যে অংশীদার হয়েছেন ৩৩ বছর বয়সী বেল। ওভাল টেস্টের পর অবসরের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। তখন থেকেই গুঞ্জনের শুরু। অনেকে ভেবেছিলেন, ওয়ারউইকশায়ার তারকা সম্ভবত অবসর নেবেন। অবস্থান পরিষ্কার করে সেই গুঞ্জন থামিয়ে দিলেন তিনি। ৩-২এ সিরিজ জয়ে এ্যাশেজ ট্রফি পুনরুদ্ধার করে এ্যালিস্টার কুকের দল। অধিনায়ক বলেছিলেন, আরব আমিরাতে আসন্ন পাকিস্তান সিরিজে বেলকে বড় ভূমিকায় দেখতে চান তিনি। অবসর নিয়ে অনেকের সঙ্গেই আলোচনা করেছেন বেল, ‘ওভাল টেস্টের পর যারা আমার কাছে খুবই গুরত্বপূর্ণ যেমন স্ত্রী ও বাবা তাদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। আমি স্পষ্ট করে বলতে পারি, টেস্ট ক্রিকেটকে দেয়ার মতো আমার এখনও অনেক কিছু বাকি রয়েছে।’ টেস্টে চালিয়ে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করলেও তরুণদের সুযোগ করে দিতে ওয়ানডে থেকে সরে দাঁড়ানোর ইচ্ছা প্রকাশ করেন বেল।

এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘একদিনের ক্রিকেটকে বিদায় জানানোর এটাই সেরা সময়। ফলে তরুণরা ভালভাবে মানিয়ে নেয়ার সুযোগ পাবে এবং টেস্ট ক্রিকেটে আমি পরিপূর্ণভাবে মনোনিবেশ করতে পারব, যাতে করে সাদা পোশাকে নিজের সেরা ফর্মে ফিরতে পারি।’ বেল ২০০৪ সালে অভিষেকের পর থেকেই ইংল্যান্ড জাতীয় দলের অপরিহার্য সদস্য, যদিও সম্প্রতি ব্যাট হাতে সময়টা তার ভাল যাচ্ছে না। ইংল্যান্ডের হয়ে ১১৫ টেস্টে ২২ সেঞ্চুরি ও ৪৫ হাফসেঞ্চুরির সাহায্যে ৪৩ গড়ে করেছেন ৭ হাজার ৫৬৯ রান। দেশটির হয়ে তার চেয়ে বেশি টেস্ট খেলেছেন মাত্র চার ক্রিকেটার। ইংলিশদের হয়ে সবচেয়ে বেশি টেস্ট রান সংগ্রহকারীদের তালিকায় রয়েছেন ষষ্ঠ স্থানে। এ্যাশেজে দল ভাল করলেও ব্যাট হাতে সুবিধা করতে পারেননি বেল। ২৬.৮৭ গড়ে রান ২১৫। পাঁচ টেস্টের ৯ ইনিংসে তিন হাফসেঞ্চুরি। নিজের শেষ ১০ টেস্টে হাফসেঞ্চুরি এই তিনটিই, নেই কোন সেঞ্চুরি!

বার্সিলোনার বিশেষ সম্মাননা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ স্প্যানিশ পরাশক্তি বার্সিলোনা উয়েফার বিশেষ সম্মাননা পেয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে মোনাকোতে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফুটবলের গ্রুপ পর্বের ড্র অনুষ্ঠানে কাতালানদের গৌরবময় এ্যাওয়ার্ড দেয়া হয়। চ্যাম্পিয়ন্স লীগে পাঁচ শিরোপা জয় করায় বার্সিলোনাকে বিশেষ সম্মানে ভূষিত করে উয়েফা। সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ ‘ব্যাজ অব অনার’ পেয়েছে কাতালানরা। ইউরোপ সেরার লড়াইয়ে কমপক্ষে পাঁচ শিরোপা জিতে এর আগে এই সম্মান অর্জন করেছে রিয়াল মাদ্রিদ, এসি মিলান, বেয়ার্ন মিউনিখ ও লিভারপুল। টানা তিন শিরোপা জয়ী আয়াক্সও এই ক্লাবের সদস্য।

‘ব্যাজ অব অনার’ গ্রহণ করতে মঞ্চে ছিলেন বার্সিলোনার পাঁচ শিরোপা জয়ী দলের ভিন্ন পাঁচ প্রতিনিধি। এর মধ্যে অন্যতম কার্লোস পুওল, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, এরিক আবিদাল।

মুন্সীগঞ্জে রাগবি

প্রশিক্ষণ কোর্স

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ রাগবি ফেডারেশন (ইউনিয়ন) সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বৃহস্পতিবার থেকে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে তিন দিনব্যাপী ‘রাগবি প্রশিক্ষণ কোর্স’ শুরু হয়েছে। এই প্রশিক্ষণ কোর্সে বিভিন্ন স্কুল এবং কলেজের মোট ৪০ শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। প্রশিক্ষণ কোর্সটি পরিচালনা করছেন রাগবি ফেডারেশনের কোচ মাহ্ফিজুল ইসলাম কাঞ্চন।

সাঙ্গার বিকল্প দেখেন না জয়সুরিয়া

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ গত বছর টেস্ট এবং এবার বিশ্বকাপ খেলে ওয়ানডের মধ্য দিয়ে সব ধরনের ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন মাহেলা জয়াবর্ধনে। সদ্যসমাপ্ত কলম্বো টেস্ট খেলে তার সঙ্গী হয়েছেন বন্ধু কুমার সাঙ্গাকারা। দুই সুপার ব্যাটসম্যানের বিদায়ে ব্যাটিং বিভাগে বড় সমস্যায় লঙ্কানরা। সাবেক গ্রেট সনাথ জয়সুরিয়া তুখোড় দুই উইলোবাজের বিকল্প দেখতে পাচ্ছেন না। বর্তমান দলে তাদের ধারে কাছেও কেউ নেই বলেও মনে করেন ১৯৯৯-এর বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য। ধাক্কা সামলে উঠতে যথেষ্ট সময় লাগবে, এমনটাই অনুমান জয়সুরিয়ার। প্রথম টেস্ট জিতে এগিয়ে গেলেও কলম্বোয় হেরে যাওয়ায় সিরিজ ১-১এ সমতা বিরাজ করছে। চলমান তৃতীয় ও শেষ ম্যাচটি হয়ে উঠেছে ‘অঘোষিত ফাইনাল’। স্বাগতিক ব্যাটসম্যাদের মধ্যে স্পিনে দুর্বলতা দেখছেন আরেক সাবেক গ্রেট মুত্তিয়া মুরলিধরন।

‘চাইলেই আপনি একজন কুমার সাঙ্গাকারার বদলি পাবেন না। এমন কি তিলকারতেœ দিলশান বা মাহেলা জয়াবর্ধনেও নয়। নির্ধিদায় স্বীকার করছি, দলে এখন ওদের মানের একজন ব্যাটসম্যানও নেই। এমন নির্ভরযোগ্য ক্রিকেটারের বিকল্প পেতে সময় লাগবে। তার মানে এই নয় যে, আমরা সমুদ্রে হাবুডুবি খাচ্ছি। অবশ্যই লাহিরু থিরিমান্নে, দীনেশ চান্দিমালের মতো তরুণদের ওপর আস্থা রাখতে হবে। পারফর্ম করে নিজেদের তৈরির জন্য ওদের সময় দিতে হবে।’ বলেন একটা সময় সাঙ্গা-মাহেলার সতীর্থ হয়ে ব্যাটিং করা জয়সুরিয়া। দেশটির ক্রিকেটের সাবেক প্রধান নির্বাচক ও বর্তমান সংসদ সদস্য আরও যোগ করেন, ‘সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে এবং কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। এ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের সঙ্গে চান্দিমাল, উপুল থারাঙ্গা ও থিরিমান্নেদের দায়িত্ব নিতে হবে, এটাই ক্রিকেট।’

স্পেনে ফিরলেন কোস্তা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রায় এক বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো স্পেনের জাতীয় দলে ডাক পেলেন দিয়েগো কোস্তা। এর ফলে সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য ইউরো ২০১৬ বাছাইপর্বে সেøাভাকিয়া এবং মেসিডোনিয়ার বিপক্ষে খেলার সুযোগ পাবেন তিনি। আগামী মাসের ৫ তারিখে নিজেদের মাটিতে সেøাভাকিয়াকে আতিথ্য দেবে ইউরো-বিশ্বকাপ-ইউরোজয়ী স্পেন। তার তিনদিন পরই মেসিডোনিয়া সফরে যাবে তারা। আর বাছাই পর্বের দুই ম্যাচের জন্য শক্তিশালী দল গড়েছেন স্প্যানিশ কোচ ভিসেন্তে দেল বস্ক। বর্তমানে ইউরো বাছাইপর্বের ‘সি’ গ্রুপের দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করছে লা রোজারা। তাদের উপরে রয়েছে সেøাভাকিয়া। গত অক্টোবরে যে দলটির কাছে ২-১ গোলে হেরেছিল স্পেন। মূলত চোট আর ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের সূচীর সঙ্গে সমন্বয়হীনতার কারণেই স্পেনের জার্সিতে দীর্ঘ ১ মাস খেলতে পারেননি কোস্তা। তবে বর্তমানে চোট থেকে পুরোপুরি ফিট রয়েছেন তিনি। তাই তার প্রতি আস্থা রেখেছেন দেশটির অভিজ্ঞ কোচ। এ বিষয়ে ভিসেন্তে দেল বস্ক বলেন, ‘মূলত ফুটবলীয় কারণেই দলের বাইরে ছিল সে। নিজের সেরা অবস্থানে না থাকার কারণেই দলের বাইরে রাখা হয়েছিল তাকে। কিন্তু বর্তমানে সে তার শারীরিক সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হয়েছে। যে কারণেই তার প্রতি আস্থা রেখেছি আমরা।’ ইউরোর বাছাইপর্বে সেøাভাকিয়া এবং মেসিডোনিয়ার বিপক্ষে জিতে পূর্ণ ছয় পয়েন্ট দখল করতে চান দেল বস্ক। এ বিষয়ে স্পেনের এই অভিজ্ঞ কোচ বলেন, ‘আমাদের সামনে এখন পর্যবেক্ষণ করার সময় কম। আমরা নির্দিষ্ট একটি দল নিয়েই লড়াইয়ে নামতে চাই। তাছাড়া এ দুটি ম্যাচই আমাদের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের লক্ষ্য ছয় পয়েন্ট নিজেদের করে নেয়া।’ শুক্রবার ঘোষিত ২৩ সদস্যের এই দলে দিয়েগো কোস্তাকে ছাড়াও আরেক ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে খেলা ডেভিড ডি গিয়াকে ডেকেছেন দেল বস্ক। গত এক দশক ধরেই ফুটবল বিশ্বে রাজত্ব করেছে স্পেন। কিন্তু ব্রাজিল বিশ্বকাপে পারফর্মেন্সের সেই ধারাবাহিকতা আর ধরে রাখতে পারেনি দেল বস্কের শিষ্যরা। ব্রাজিলের মাটিতে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নেয় ইনিয়েস্তা-ক্যাসিয়ারা। এবার তাই ইউরোর শিরোপা ধরে রাখাটা তাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

ইউরো বাছাইপর্বের জন্য দল ঘোষণা করেছে গ্রীসও। তবে অন্তর্বর্তীকালীন কোচ কোস্তাস সানাস। প্রথমবারের মতো তিন খেলোয়াড়কে জাতীয় দলে ডেকেছেন তিনি। ৪ সেপ্টেম্বর নিজেদের মাটিতে ফিনল্যান্ডকে আতিথ্য দেয়ার তিনদিন পর রোমানিয়া সফরে যাবে তারা। সবকিছু ঠিক থাকলে এই দুই ম্যাচেই অভিষেক ঘটতে যাচ্ছে তরুণ প্রতিভাবান তিন ফুটবলারের। প্রথমবারের মতো গ্রীসের জাতীয় দলে ডাক পাওয়া এই তিনজন হলেনÑ এইকে স্ট্রাইকার ভাঞ্জেলিস প্ল্যাটিলাস, ক্রিস্টোস এ্যারাভিডিস এবং মিডফিল্ডার স্টেলিওস কিটসিও। ২০০৪ সালের ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়ন গ্রীস বাছাইপর্বে বাজে সময় পার করছে। ‘এফ’ গ্রুপের তলানিতে অবস্থান করছে তারা। ছয় ম্যাচ খেলে তাদের সংগ্রহ দুই পয়েন্ট। এর ফলে আগামী বছর ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত ইউরো বাছাই পর্বের টিকেট পাওয়াটা প্রায় অনিশ্চিতই বলা চলে গ্রীসের।