২৪ জানুয়ারী ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রংপুরে মহাসড়কে নির্মিত হচ্ছে ব্ল্যাক স্পট

মানিক সরকার মানিক, রংপুর ॥ মহাসড়কে দুর্ঘটনা রোধ এবং মৃত্যু ঝুঁকি কমাতে রংপুরের ১১টি স্পটে ‘ব্ল্যাক স্পট’ (ঝুঁকিপূর্ণ স্থান) নির্মাণ করা হচ্ছে। রংপুর সড়ক বিভাগের তত্ত্বাবধানে ইতোমধ্যেই এই প্রকল্পের প্রায় ৫০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। এই ব্লাক স্পট নির্মাণ শেষ হলে এই অঞ্চলের মহাসড়কগুলোতে অনেকাংশেই কমে আসবে সড়ক দুর্ঘটনা ও মৃত্যুহার।

বেসরকারী একটি সংস্থার জরিপে জানা গেছে, গত এক বছরে শুধু রংপুরের বিভিন্ন সড়ক ও মহাসড়কে দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে অন্তত ৭০ ব্যক্তি। প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। এই দুর্ঘটনা রোধ করার লক্ষ্যে জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন সড়ক মহাসড়কের ঝুঁকিপুর্ণ স্থান চিহ্নিত করার উদ্যোগ নেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে রংপুরের ৪টি উপজেলার মহাসড়কের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া দুর্ঘটনাপ্রবণ ১১টি স্পটকে চিহ্নিত করা হয়। স্পটগুলো হলো রংপুর সদরের রংপুর সৈয়দপুর মহাসড়কের মেডিক্যাল মোড়, ইকরচালি, তারাগঞ্জ, চিকলীবাজার। এ ছাড়া রংপুর ঢাকা সড়কের মডার্ন মোড়, দমদমা, মিঠাপুকুরের গড়ের মাঠ, শঠীবাড়ি, পীরগঞ্জের বড়দরগা, লালদীঘি ও পীরগঞ্জ। ১৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে রংপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগ। গত ৭ মে সড়ক সেতু ও যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের মেডিক্যাল মোড়ে আনুষ্ঠানিকভাবে এই কাজের উদ্বোধন করেন। সওজ সূত্র জানা গেছে, ইতোমধ্যেই তারাগঞ্জ বাস স্ট্যান্ডের কাজ শেষ হয়েছে। একই উপজেলার চিকলী স্পটের কাজও শেষের পথে। মডার্ন ও দমদমায় বেস্ট টাইপ-১ পর্যন্ত কাজ হয়েছে। তবে মেডিক্যাল মোড়ের যে স্থানে মন্ত্রী এই কাজের উদ্বোধন করে গেছেন সেখানেই এর কাজ শুরু করা সম্ভব হয়নি এখনও। এ বিষয়ে জানতে চাইলে রংপুর সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী ড. আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, মেডিক্যাল মোড়ের স্থানটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি স্থান। এখানে সীমানা সংক্রান্ত জটিলতা নিয়ে সেনানিবাসের একটু আপত্তি থাকার কারণে সেখানকার কাজ শুরু করা সম্ভব হয়নি। তবে আলোচনা চলছে শীঘ্রই সমঝোতা হবে এবং কাজ শুরু হবে। তিনি জানান, এটি একটি জাতীয় ইস্যু এবং এর পেছনে সরকারের বিশেষ নজরদারি রয়েছে। আগামী ৩০ মার্চ পর্যন্ত কাজ শেষের মেয়াদ ইতোমধ্যেই ওই প্রকল্পের প্রায় ৫৫ থেকে ৬০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। আশা করা যায় চলতি বছরেই পুরো কাজ শেষ হবে।

এই মাত্রা পাওয়া