২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ব্যবসায়িক বিরোধে অপহরণ করা হয় আরিফকে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ব্যবসায়িক বিরোধের জের ধরেই অপহরণ করা হয়েছিল আরিফ খানকে। কিন্তু তাকে নিয়ে ফায়দা লুটতে পারেনি ওরা। পুলিশ শুক্রবার ভোরে যখন তাকে উদ্ধার করে তখন বেরিয়ে আসে আগের সব কাহিনী। হাত-পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় তাকে উদ্ধারের পর এখন চলছে জিজ্ঞাসাবাদের পালা।

পুলিশ জানায়, ওই ব্যবসায়ীর নাম আরিফ খান (৩০)। তার বাবার নাম ফিরোজ খান। তাদের বাড়ি শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলার চামটা গ্রামে। যাত্রাবাড়ীর শনির আখড়ায় বিসমিল্লাহ পোল্ট্রি নেট ইন্ডাস্ট্রিজ নামে তার একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান রয়েছে বলে জানান যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অবনী শঙ্কর কর।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরিফ খান জানান, ব্যবসায়িক দ্বন্দ্বের কারণে তাকে অপহরণ করা হতে পারে। যাত্রাবাড়ী কলাপট্টি থেকে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় ওঠার পর তাকে অপহরণ করা হয়। এই ক’দিন তাকে কোথায় রাখা হয়েছিল সে ব্যাপারে তিনি কিছু বলতে পারেননি।

আরিফ খানের ছোট ভাই রকিব খান জানান, ৮০ হাজার টাকা নিয়ে গত ২০ আগস্ট তার ভাই বাসা থেকে বের হন। এর পর থেকে নিখোঁজ ছিলেন। ভোর ৬টার দিক স্থানীয় একটি মসজিদের মুয়াজ্জিন শহীদুল ইসলাম তার ভাইকে হাত-পা ও মুখ বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করেন। ওসি অবনী শঙ্কর কর জানান, এ ব্যাপারে এখনও থানায় কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পুলিশ জানায়, যাত্রাবাড়ীর মাতুয়াইল কাউন্সিল শরীফ পাড়ার মাছের খামারের পাশে স্থানীয় মসজিদের মুয়াজ্জিন তাকে উদ্ধার করেন। পরে এলাকাবাসীয় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ঘটনাকে অপহরণ দাবি করে প্রতিবেশী ব্যবসায়ী মনিরকে সন্দেহ করছেন বলেও জানান রফিক খান। যাত্রাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অবনী শঙ্কর কর জানান, পরিবারের পক্ষ থেকে এ ধরনের কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।