২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

লিবিয়া উপকূলে উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশীদের ফিরিয়ে আনা হবে

লিবিয়া উপকূলে উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশীদের ফিরিয়ে আনা হবে

অনলাইন ডেস্ক॥ লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, লিবীয় উপকূলের কাছে কয়েকশ অভিবাসন প্রত্যাশীকে নিয়ে ডুবে যাওয়া দু’টি নৌকায় নিহতদের মধ্যে শিশুসহ সাতজন বাংলাদেশী রয়েছে।

আর জীবিত উদ্ধার হওয়া ৪৭ জন বাংলাদেশীকে দেশে ফেরত আনা হবে। লিবিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম বিষয়ক কর্মকর্তা আশরাফুল ইসলাম জানিয়েছেন, লিবীয় উপকূলে ডুবে যাওয়া নৌকা দু’টিতে বিভিন্ন দেশের কয়েকশো অভিবাসন প্রত্যাশীর সাথে শিশু এবং মহিলাসহ ৫৪জন বাংলাদেশি ছিল। এর মধ্যে ৪৭জন বাংলাদেশিকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

তবে শিশুসহ নিহত সাতজন বাংলাদেশির মৃতদেহ দূতাবাসের কর্মকর্তাদের দেখতে দেয়া হয়নি। কারণ মৃতদেহ দেখার জন্য এখনও কোন বিদেশী কূটনীতিককে সুযোগ দেয়া হচ্ছে না। ঐ কর্মকর্তা আরও জানিয়েছেন, জীবিত উদ্ধার হওয়া বাংলাদেশীদের মধ্যে মহিলাদের বাংলাদেশ দূতাবাসের হেফাজতে নেয়া সম্ভব হয়েছে।

বাকিরা ত্রিপোলি কর্তৃপক্ষের ডিটেনশন সেন্টারে রয়েছে। এখন এই বাংলাদেশীদের দেশের ফেরত আনতে আইওএম এর সহায়তা নেয়া হবে। মি: ইসলাম জানাচ্ছেন, লিবিয়ার বর্তমান নিরাপত্তাহীন পরিস্থিতির কারণে এই বাংলাদেশীরা ইউরোপে অভিবাসী হওয়ার চেষ্টা করছিলেন। তিনি বলেন, নিরাপদ ও উন্নত জীবনের আশায় লিবিয়ায় বসবাসরত বিদেশীরা আগে থেকেই ওই দেশ ছাড়ছিলেন, তবে পরিবারসহ বাংলাদেশীরা লিবিয়া ছাড়ার চেষ্টা করছেন এমনটা প্রথমবারের মতো ঘটেছে।

এদিকে জাতিসংঘ সম্প্রতি ইউরোপ যাবার পথে শত শত অভিবাসী প্রত্যাশীর মৃত্যুর ঘটনা এবং পরিস্থিতিকে সংকট হিসেবে উল্লেখ করেছে। জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন, অভিবাসী প্রত্যাশীদের মৃত্যু ঠেকাতে ইউরোপের দেশগুলোকে সতর্কতার সাথে যৌথভাবে একটা রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

তিনি অভিবাসী প্রত্যাশীদের জন্য নিরাপদ এবং আইনগত পথ বের করার জন্য সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

গতকালই লিবীয় উপকূলে কয়েকশ অভিবাসী প্রত্যাশীকে নিয়ে নৌকা ডুবেছে। অস্ট্র্রিয়ার পরিত্যক্ত এক লরিতে ৭১জন অভিবাসীর মৃতদেহ পাওয়া গেছে।

সূত্র : বিবিসি বাংলা