২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কুমিল্লায় বাবা-মায়ের কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত কাজী জাফর

  • পাঁচ দফা জানাজা

নিজস্ব সংবাদদাতা, কুমিল্লা, ২৯ আগস্ট ॥ সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় পার্টির (জাফর) চেয়ারম্যান বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ কাজী জাফর আহমদকে শনিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে কুমিল্লায় তার বাবা-মায়ের কবরের পাশে সমাহিত করা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ও জানাজা শেষে চৌদ্দগ্রামে তার জন্মস্থান চিওড়া গ্রামের কাজীবাড়ির কবরস্থানে বাবা কাজী আহাম্মদ আলী ও মা তাহেরা খাতুনের কবরের পাশে তাঁকে সমাহিত করা হয়। ঢাকায় শুক্রবার চারদফা জানাজা ছাড়াও শনিবার কুমিল্লা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠসহ জেলার পাঁচ স্থানে অনুষ্ঠিত জানাজায় তার দীর্ঘদিনের রাজনীতিক সহকর্মী, দলীয় নেতাকর্মী, বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়স্বজন ও বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার শোকার্ত মানুষের ঢল নামে।

শনিবার সকাল আটটার দিকে জাতীয় পার্টির (জাফর) কেন্দ্রীয় মহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী মোস্তফা জামাল হায়দারের নেতৃত্বে কাজী জাফর আহমদের স্ত্রী মমতাজ বেগম, দুই কন্যা কাজী জয়া আহমেদ ও কাজী সোনিয়া আহমেদ ও কাজী জাফর আহমদকে কিডনিদাতা তার ভাতিজা কাজী ইকবালসহ আত্মীয়স্বজনরা সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমদের মরদেহ নিয়ে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এ্যাম্বুলেন্সে করে তার গুলশানের বাসা থেকে কুমিল্লার উদ্দেশে বের হন। বেলা ১১টার মধ্যে মরদেহবাহী এ্যাম্বুলেন্স কুমিল্লা শহরের কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে পৌঁছার পর বেলা পৌনে ১২টায় প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার আগে কাজী জাফর আহমদের বর্ণাঢ্য জীবনের আলোকপাতসহ তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির (জাফর) কেন্দ্রীয় মহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী মোস্তফা জামাল হায়দার, স্থানীয় এমপি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার, জাপার (জাফর) কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা জাপার সভাপতি এয়ার আহমেদ সেলিম, বিএনপি নেতা ও সাবেক এমপি মাহবুবুর রহমান, জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আনোয়ারুল কাদের বাকী প্রমুখ।

পরে সদর দক্ষিণ উপজেলার সুয়াগাজী হাইস্কুল এ্যান্ড কলেজ মাঠে বেলা সাড়ে ১২টায় দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার আগে বক্তব্য রাখেন বিএনপির কেন্দ্রীয় পল্লী উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক ও সাবেক এমপি আলহাজ মনিরুল হক চৌধুরীসহ কাজী জাফর আহমদের সুদীর্ঘ রাজনৈতিক সহকর্মীগণ। এরপর বেলা সোয়া দুইটার দিকে চৌদ্দগ্রাম পৌর ঈদগাহ মাঠে তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় বিভিন্ন স্থান থেকে আসা দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও সর্বস্তরের শোকার্ত মানুষ অংশগ্রহণ করেন। তার কফিনে ২০ দলীয় জোটভুক্ত বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

বিকেল পাঁচটার দিকে কাজী জাফর আহমদের মরদেহ নিয়ে এ্যাম্বুলেন্সটি তার নিজ গ্রাম চৌদ্দগ্রামের চিওড়ায় পৌঁছলে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। শোকার্ত মানুষ তাদের প্রিয় সন্তানকে একনজর দেখার জন্য ভিড় জমায়। তাঁকে চিরবিদায় জানাতে চিওড়া সরকারী কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত স্মরণকালের বৃহৎ এ জানাজায় এলাকার সর্বস্তরের লোকজন অংশ নেয়। এতে পরিবারের পক্ষে বক্তব্য রাখেন কাজী জাফর আহমদের ভাতিজা কাজী ইকবাল, কাজী নাজমুলসহ দলীয় নেতৃবৃন্দ। জানাজায় উপস্থিত ছিলেন ফেনী-২ আসনের এমপি নিজাম হাজারী, আওয়ামী লীগ নেতা আলাউদ্দিন নাছিম, ফেনী পৌর মেয়র হাজী আলাউদ্দিন, জাতীয় পার্টির (জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবীব লিংকন, লুৎফর রহমান হেলাল, খালেকুজ্জামান চৌধুরী, জাফর উল্লাহ খান লাহরী, এয়ার আহমেদ সেলিম, ভাইস চেয়ারম্যান শরীফ মিয়া, যুগ্ম-মহাসচিব এএসএম শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ আবুল কাসেম চেয়ারম্যান, উপজেলা জাতীয় পার্টির (জাফর) সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ চৌধুরী পাশা, পৌর সভাপতি নজির আহমেদ প্রমুখ। উপজেলা জাতীয় পার্টির (এরশাদ) সাবেক সভাপতি খায়েজ আহমেদ ভূঁইয়া ও সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, উপজেলা বিএনপির সভাপতি জিএম তাহের পলাশী ও সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান মোল্লা হিরণ কাজী জাফরের কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এর আগে বিকেল ৫টার দিকে চিওড়া সরকারী কলেজ মাঠে চতুর্থ জানাজা শেষে স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে প্রয়াত কাজী জাফরের প্রতি রাষ্ট্রীয় সম্মাননা ও সালাম প্রদর্শন করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবময় দেওয়ান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাহিদ হোসেন, ওসি আবদুল্লাহ আল মাহফুজ। সন্ধ্যা পৌনে সাতটায় কাজী বাড়ি মসজিদের সামনে তার পঞ্চম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় শোকে মুহ্যমান নেতাকর্মী ও স্বজনদের একে অপরকে জড়িয়ে ধরে কান্নায় ভেঙ্গে পড়তে দেখা যায়। সর্বস্তরের মানুষ ফুলে ফুলে অন্তিম শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তার কফিনে।

পরে সন্ধ্যা সাতটার দিকে তার বাবা কাজী আহাম্মদ আলী ও মা তাহেরা খাতুনের কবরের পাশে সমাহিত করা হয় কাজী জাফর আহমদকে।

প্রসঙ্গত : ১৯৩৯ সালের ১ জুলাই চৌদ্দগ্রামের চিওড়া গ্রামের সম্ভ্রান্ত কাজী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন কাজী জাফর আহমদ। গত বৃহস্পতিবার সকাল ৭টায় কাজী জাফর আহমদ (৭৬) তার গুলশানের বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তির পর সকাল সাড়ে সাতটায় ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।