২০ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জন্মাষ্টমীর তাৎপর্য ও অবতার প্রসঙ্গ

  • স্বামী অবিচলানন্দ

জন্মাষ্টমী প্রতিবছরই আসে। ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে নিয়ে সমগ্র হিন্দুসমাজ জেগে ওঠে। উপবাস করে, পুজো করে। নাম সঙ্কীর্তন হয়। প-িতদের মতে, আজ থেকে প্রায় পাঁচ হাজার বছর ধরে এরূপ হচ্ছে।

কথায় বলে হিন্দুর তথা সনাতন ধর্মে বারো মাসে তেরো পার্বণ। এগুলোর মধ্যে জন্মাষ্টমীই শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব তিথি অন্যতম। অর্থাৎ শ্রীকৃষ্ণের জন্ম রোহিণী নক্ষত্রে। শ্রীভগবান কংসের কারাগারে জন্মগ্রহণ করছেন। সমগ্র বিশ্ব উৎফুল্ল হয়ে তাঁকে অভ্যর্থনা জানাচ্ছে। কৃষ্ণের আবির্ভাবের আগে পর পর ছয়টি সন্তানকে বাসুদেব হারিয়েছেন। শাস্ত্র বলছে, ‘একং সদ্বিপ্রা বহুধা বদন্তি’ মানে গুণীজনরা সেই এক সদ্বস্তুকে বহুভাবে জানেন। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায়Ñ ‘তুম বহুরূপী তুমি রূপহীন, তব লীলা হেরি অন্তবিহীন।’ সনাতন ধর্মশাস্ত্রে আরও রয়েছেÑ ‘সাধকানাং হিতার্থায় ব্রহ্মণো রূপ কল্পনা’। ভগবান শ্রীকৃষ্ণের এই ধরাধামে নররূপে আবির্ভাব ওই একই উদ্দেশ্যে হয়েছে। ভাগবত বলছে, ভগবান ভক্তের প্রতি অনুগ্রহবশত মনুষ্য দেহধারণ করে মানুষের মতো আচরণ করে মানবকুলকে আকৃষ্ট করেন। অবতার শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন, যখন ধর্মের গ্লানি এবং অধর্মের প্রাদুর্ভাব ঘটে তখন ধর্ম রক্ষার্থে আমি নিজেকে সৃজন করি। শ্রীভগবান বিষ্ণু যখন অবতাররূপে শ্রীকৃষ্ণ নামে মানবকল্যাণে এ ধরাধামে আবির্ভূত হন, সে সময় অত্যাচারী রাজারা মুনি-ঋষিদের ধর্ম আচরণে বাধা প্রদান করতেন। লীলায় ঈশ্বর বিদ্যামায়াকে অবলম্বন করেন।

আমরা শ্রীমদ্ভাগবতে দেখতে পাই, শ্রীকৃষ্ণরূপী ভগবান কংসের কারাগারে পিতা-মাতা দু’জনকেই বলেছেন, যদি কংসের জন্য তোমাদের ভয় থাকে তাহলে আমাকে গোকুলে নিয়ে যাও, আর সেখান থেকে শীঘ্র যশোদার গর্ভজাত আমার যোগমায়াকে নিয়ে এসো। অনেকে প্রশ্ন করতে পারেন এটা কী করে সম্ভব। ভাগবতকার এখানে বলছেন, ভগবানের মায়াতে সবই সম্ভব।

নন্দগোপগৃহে জাতা যশোদা গর্ভসম্ভবাÑ দ্বাপর যুগ ও কলি যুগের সন্ধিকালে যে সময় ভূভারহরণার্থ ভগবান নারায়ণ শ্রীকৃষ্ণরূপে কংসের কারাগারে বাসুদেব ও দেবকীর পুত্ররূপে আবির্ভূত হন, ঠিক সে সময়েই তাঁর নির্দেশক্রমে ভগবতী যোগমায়া নন্দগোপগৃহে যশোদার কন্যারূপে জন্মগ্রহণ করেন। অবতার প্রসঙ্গ শ্রবণ মননের মাহাত্ম্য সম্বন্ধে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ গীতায় বলছেন, ‘জন্ম কর্ম চ মে দিব্যমেবং যো বেত্তি তত্ত্বতঃ। ত্যক্ত¦া দেহং পুনর্জন্ম নৈতিক মামেতি সোহর্জ্জুন ॥ বীতরাগভয়ক্রোধা মন্ময়া মামুপাশ্রিতাঃ। বহবো জ্ঞানতপসা পূতা মদ্ভাবমাগতাঃ ॥’ (গীতা-৪/৯-১০) হে অর্জুন! যিনি আমার এই অলৌকিক জন্ম ও কর্ম যথার্থভাবে বোঝেন, তিনি শরীর পরিত্যাগ করিয়া পুনর্জন্ম গ্রহণ করেন না, আমাকেই লাভ করেন। আসক্তি, ভয় ও ক্রোধ বিবর্জিত হইয়া, মদ্গতচিত্ত ও মদাশ্রিত হইয়া বহু সাধক জ্ঞানতপস্যা দ্বারা পূত হইয়া মদীয় ভাবপ্রাপ্ত হয়েছেন। শ্রীকৃষ্ণ-জন্ম মুহূর্ত আগত। ভাদ্র মাসের রোহিণী নক্ষত্রযোগে কৃষ্ণ অষ্টমী তিথিতে দেবকীর অষ্টম গর্ভে শ্রীভগবান বিষ্ণু অবতাররূপে অবতীর্ণ হলেন শ্রীকৃষ্ণ নাম অবলম্বনে।

ঈশ্বর ভক্তের কাছে সাকার আবার তিনি জ্ঞানীর কাছে নিরাকার। শ্রীমদ্ভাগবতগীতায় বলা আছে : ‘যে যথা মাং প্রপদ্যন্তে তাংস্তথৈব ভজাম্যহম। মম বর্ত্মানুবর্তন্তে মনুষ্যা পার্থ সর্বশঃ (গীতা-৪/১১) যে ভক্ত যেভাবে আমার উপাসনা করে, আমি তাকে সেভাবেই পুরস্কৃত করি। হে পার্থ! মানুষ সর্বপ্রকারে আমার পথেরই অনুসরণ করে, অর্থাৎ মানুষ যে পথই অনুসরণ করুক না কেন, সব পথেই আমাকে পাবে।

গীতায় ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বলছেন, ‘কালোহস্মি লোকক্ষয়কৃৎ প্রবৃদ্ধো লোকান্্ সমাহর্ত্তুমিহ প্রবৃত্তঃ।’ (গীতা-১১/৩২) আমি লোকক্ষয়কারী কাল, লোকসমূহ সংহার করিতে এখানে প্রবৃত্ত আছি। শ্রীভগবান কৃপা করিয়া প্রপন্ন ভক্ত অর্জুনকে তাঁহার লোকক্ষয়কারী ভীষণ মহাকাল মূর্তি প্রদর্শন করিয়াছিলেন, তাহাতে অর্জুন প্রত্যক্ষ করিয়াছিলেন বহ্নির অভিমুখে ধাবিত পতঙ্গবৃন্দের ন্যায় জীবসমূহ মহাকালের করাল কবলে আত্মাহুতি দেয়ার জন্য দ্রুতবেগে অগ্রসর হইতেছেÑ

‘যথা প্রদীপ্তং জ্বলনং পতঙ্গাঃ। বিশন্তি নাশায় সমৃদ্ধবেগাঃ ॥

তথৈব নাশায় বিশন্তি লোকা-স্তবাপি বক্ত্রাণি সমৃদ্ধবেগাঃ ॥’ (গীতা-১১/২৯)

শ্রীরামকৃষ্ণদেব জনৈক ভক্তকে উপদেশচ্ছলে বলেছেন, ‘গীতায় শ্রীভগবান বলেছেনÑ হে অর্জুন, তুমি আমার শরণ লও, তোমাকে সবরকম পাপ থেকে আমি মুক্ত করব। তাঁর শরণাগত হও, তিনি সুবুদ্ধি দেবেন। তিনি সব ভার নেবেন। তখন সব রকম বিকার দূরে যাবে। ‘ঈশ্বর সর্বভূতানাং হৃদ্দেশেহর্জুন তিষ্ঠতি। ভ্রাময়ন্্ সর্বভূতানি যন্ত্রারূপঢ়ানি মায়য়া ॥’ (গীতা-৮/৬১)।

হে অর্জুন, অন্তর্যামী নারায়ণ সর্বজীবের হৃদয়ে অধিষ্ঠিত হইয়া সর্বভূতকে যন্ত্রারূঢ় পুত্তলিকার ন্যায় মায়া দ্বারা চালিত করিতেছেন।

‘মন্মনা ভবমদ্ভক্তো মদ্্যাজী মাং নমস্কুরু। মামেবৈষ্যসি সত্যং তে প্রতিজানে প্রিয়োহসি মে ॥’ (গীতা-১৮/৬৫) কেবল আধ্যাত্মিক উন্নতি লাভ করে তাই নয়, ঈশ্বরের অনুগ্রহও লাভ হয়। যেমন শ্রীরামকৃষ্ণ বলছেন যে, তুমি যদি মায়ের দিকে এক পা অগ্রসর হও তবে মা তোমার দিকে শত পদক্ষেপে এগিয়ে আসবেন। ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বার বার ‘গীতা’-তে এই আশ্বাসবাণী শুনিয়েছেন, ‘এই ধর্মের স্বল্প সাধনও মহাভয় হইতে পরিত্রাণ করে।’

গোপীদের দৃষ্টিতে ভগবান শ্রীকৃষ্ণকে যখন দেখব তখন তাঁকে একান্ত আপনার বলে ভাবব।

শ্রীকৃষ্ণ রুক্ষ্মিণীর অনুরোধে বার বছর শিব উপাসনা করেছিলেন। বৈষ্ণবগণ শিবকে বিষ্ণুভক্ত বলেন। এক ব্রহ্ম; শৈবগণ তাঁকে শিব, বৈষ্ণবগণ তাঁকেই বলেন বিষ্ণু। এই বিষ্ণুর অবতার কৃষ্ণ স্বয়ং শিবই।

অবজানন্তি মাং মূঢ়া মানুষিং তনুমাশ্রিতম্্ পরংভাবমজানন্তো মম ভূতমহেশ্বরম্্ ॥ (গীতা ৯/১১)

Ñঅবিবেকীরা সর্বভূতের ঈশ্বরস্বরূপ আমার পরমতত্ত্ব না জেনে মানবদেহধারী বলে আমাকে অবজ্ঞা করে। যেখানে মা যশোদা কোনভাবেই শ্রীভগবানরূপ শিশু কৃষ্ণকে বাঁধতে অসমর্থ সেখানে একমাত্র ভক্তিতেই তাঁকে বাঁধতে পারলেন। শ্রীকৃষ্ণের অবতারত্ব লোক কল্যাণার্থে।

শরতের এই পুণ্যলগ্নে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের নিকট প্রার্থনা জানাই, তিনি যেন বিশ্বের সকল মানুষ এবং সাম্প্রতিক বিপর্যয়ে সমগ্র বিশ্বের আপামর জনসাধারণকে সুখে-শান্তিতে ও আনন্দে রাখেন।

লেখক : সন্ন্যাসী মহারাজ

রামকৃষ্ণ মঠ ও রামকৃষ্ণ মিশন

ঢাকা