১৬ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এ্যাপোলো হাসপাতাল ফার্মেসিতে অভিযান, ১৬ লাখ টাকা জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ দীর্ঘদিনের অভিযোগ-রাজধানীর এ্যাপোলো হাসপাতালে অনুমোদনহীন বিদেশী ওষুধের রমরমা ব্যবসা চলছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারিতেও এ অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা প্রমাণ হওয়ায় চালানো হয় অভিযান। মঙ্গলবার এ্যাপোলো হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে ১৬ লাখ টাকা জরিমানা করে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। হাসপাতালের ফার্মেসিতে অনুমোদনহীন ওষুধ রাখা ও বিক্রি করায় এই জরিমানা করা হয়। বিকেলে র‌্যাব-১ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফিরোজ আহমেদের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জানান, এ্যাপোলো হাসপাতালে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে অনুমোদনহীন ৫১ ধরনের ওষুধ জব্দ করা হয়েছে। এর মধ্যে অধিকাংশই ব্যথা নাশক। ওষুধগুলোর মধ্যে কয়েকটি আইটেম দেশী, বাকি সব ওষুধ ভারত ও সুইজারল্যান্ড থেকে আমদানি করা। এর মধ্যে কাইমোরাল, ডেসি্েটক্স, ফাইজিনা, মাইওস্পাই ও ফিজিরেক্সের পরিমাণই বেশি। রয়েছে যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধির ওষুধ। অনুমোদনহীন এসব ওষুধ রাখায় এ্যাপোলো হাসপাতালের ফার্মেসি সংশ্লিষ্ট ৪ জনকে মোট ১৬ লাখ টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে প্রত্যেকের ৩ মাস করে কারাদ- প্রদান করা হয়েছে। অভিযানকালে ফার্মেসির ম্যানেজার আব্দুর রহমান বলেন, জব্দকৃত ওষুধগুলোর ড্রাগ লাইসেন্স নেই। তবে কিছু সংখ্যক আইটেমের বিএসটিআই এর অনুমোদন রয়েছে। এত যাচাই বাছাই করে কি আর ওষুধ বিক্রি সম্ভব।

ওষুধ প্রশাসন দফতরের একজন কর্মকর্তা বলেন, অভিজাত হাসপাতাল হলেই সব কিছু ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকবে এমনটি ভাবা ঠিক নয়। ঢাকায় যতো নামীদামী হাসপাতাল রয়েছে সবগুলোর ভেতরে বা সংলগ্ন এলাকায় ওষুধের কর্নার দেখা যায়। এতে থাকে দেশী-বিদেশী নামীদামী ব্র্যান্ডের ওষুধ। হৃদরোগ উচ্চ রক্তচাপ ডায়াবেটিস, লিভার ক্যান্সার ও অন্যান্য জটিল রোগের কিছু কার্যকর ওষুধ রাখা থাকে যেগুলো বিত্তবানরা দেখা মাত্রই দর দাম ছাড়াই লুফে নেন। এ সুযোগটাকেই কাজে লাগায় এসব অভিজাত হাসপাতাল।

তিনি বলেন, এ্যাপোলো হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার শুরু থেকেই এ ধরনের বিদেশী ওষুধ এনে গলা কাটা দামে বাজারজাত করছে। তারা ওষুধ প্রশাসন ও অন্যান্য কতৃৃর্ৃৃপক্ষের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে এ ধরনের ওষুধ বাজারজাত করছে। যা দ-নীয় অপরাধের আওতায় পড়ে।

উল্লেখ্য, এর আগেও একাধিকবার ওই হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে একই অভিযোগে জরিমানা করা হয়।