২০ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সেরেনাকে ভিঞ্চির হুমকি

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ চেষ্টায় সবই সম্ভব। তা আবারও প্রমাণ করলেন ইতালিয়ান টেনিস তারকা রবার্টা ভিঞ্চি। ৪৪তম প্রচেষ্টার পর প্রথমবারের মতো ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালে উঠলেন তিনি। মঙ্গলবার তিনি ৬-৩, ৫-৭ এবং ৬-৪ গেমে ফ্রান্সের ক্রিস্টিনা মাদেনোভিচকে পরাজিত করে স্বপ্নের সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেন তিনি। অসামান্য কীর্তির পর উচ্ছ্বাসের জোয়ারে ভাসছেন বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের ৪৩ নাম্বারে থাকা রবার্টা ভিঞ্চি। কিন্তু সেমিফাইনালে তার প্রতিপক্ষ এখন সেরেনা উইলিয়ামস। টেনিসের স্বর্ণালী সময় কাটাচ্ছেন যিনি। একই দিনে বড় বোন ভেনাস উইলিয়ামসকে পরাজয়ের স্বাদ উপহার দিয়ে শেষ চারের জায়গা নিশ্চিত করেন তিনি। তবে প্রতিপক্ষ যেই হোক না কেন তা নিয়ে মোটেও চিন্তিত নন ভিঞ্চি। কারণ এই পরিস্থিতিতে তার কোন হারানোর নেই। তাই সেরেনার বিপক্ষে সেরাটাই ঢেলে দেবেন তিনি। সেই সঙ্গে জানিয়ে দিয়েছেন সেমিতে সেরেনার বিপক্ষে আক্রমণাত্মক খেলবেন ভিঞ্চি।

এ বিষয়ে তার অভিমত, ‘আমি সত্যিই খুব আনন্দিত। তার বিপক্ষে ম্যাচে আমার কোন হারানোর নেই। তাই আমার স্বাভাবিক খেলাটাই খেলব এবং উপভোগ করব। দেখা যাক কি হয়। আমার অনেক অভিজ্ঞতা আছে কিন্তু আপনি যখন সেরেনার বিপক্ষে খেলবেন তখন এগুলো কোন বিষয় না। তার বিপক্ষে অবশ্যই আপনাকে ভালর চেয়ে অনেক অনেক ভাল খেলতে হবে।’

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘আমি আমার খেলাটা খেলব অবশ্যই আক্রমণাত্মক খেলব।’ ২০১৩ সালে র‌্যাঙ্কিংয়ের ৮৩তম অবস্থানে থেকে ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালে উঠেছিলেন ভিঞ্চিরই স্বদেশী ফ্লাভিয়া পেনেত্তা। এরপর ভিঞ্চিই সবচেয়ে বেশি র‌্যাঙ্কিংয়ের খেলোয়াড় হিসেবে টুর্নামেন্টের শেষ চারের টিকেট কাটেন। সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে ৯ শিরোপা জিতেছেন ভিঞ্চি। আর ৬০টি জিতে নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন সেরেনা উইলিয়ামস। তাই এই দুই তারকার লড়াইটাকে যোজন যোজনই বলা চলে। ভিঞ্চি নিজেও মানছেন তা। সময়ের কিংবদন্তি তারকা সেরেনার বিপক্ষে ম্যাচের আগে তিনি বলেন, ‘সে এক নাম্বার তারকা। অবিশ্বাস্য খেলোয়াড়। তিন সপ্তাহ আগে তার সঙ্গে টরন্টোতে খেলেছি আমি। তার সার্ভ অবিশ্বাস্য গতির। যা ফেরানোটা খুবই কঠিন।’ ক্যারিয়ারের শেষে ইউএস ওপেনের প্রথম সেমিফাইনাল, তাই রোমাঞ্চটা একটু বেশিই ভিঞ্চির, ‘এটা আসলেই চমৎকার, আমার বয়স ৩২ এখনও তরুণী মনে হচ্ছে। ক্যারিয়ারের শেষ মুহূর্তে অবস্থান করছি আর এই মুহূর্তেই প্রথম সেমিফাইনাল, অবিশ্বাস্য বিষয়।’

এই মাত্রা পাওয়া