২২ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বড় বোন ভেনাসকে হারিয়ে সেমিতে সেরেনা

বড় বোন ভেনাসকে হারিয়ে সেমিতে সেরেনা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ক্যারিয়ারের প্রথম ‘ক্যালেন্ডার সøাম’ জয়ের লক্ষ্যে ইউএস ওপেনে অভিযান শুরু করেছিলেন সেরেনা উইলিয়ামস। এখন পর্যন্ত সঠিক পথেই রয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার দারুণ জয়ে ইউএস ওপেনের সেমিফাইনালের টিকেটও নিশ্চিত করেন বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের নাম্বার ওয়ান তারকা। তাও আবার কোয়ার্টার ফাইনালে বড় বোন ভেনাস উইলিয়ামসকে পরাজিত করে। মৌসুমের শেষ গ্র্যান্ডসøাম টুর্নামেন্ট ইউএস ওপেনের শেষ চারের লড়াইয়ে বড় বোন ভেনাস উইলিয়ামসকে পরাজয়ের স্বাদ উপহার দিয়ে সেমিফাইনালে উঠেন তিনি। আমেরিকান টেনিসের জীবন্ত কিংবদন্তি সেরেনা এদিন ৬-২, ১-৬ এবং ৬-৩ গেমে হারান ভেনাসকে। সেইসঙ্গে ‘ক্যালেন্ডার সøাম’ জয়ের আরও খুব কাছে পৌঁছে গেলেন এই আমেরিকান। আর মাত্র দুটি ম্যাচ জিতলেই ২৭ বছর পর প্রথম মহিলা হিসেবে একই বছরে সব গ্র্যান্ডসøাম জয়ের অবিস্মরণীয় কীর্তি গড়বেন তিনি।

বড় বোন ভেনাস উইলিয়ামসের বিপক্ষে জয়ের পরিসংখ্যানটা ১১ হারের বিপরীতে ১৫ জয় হলেও, বর্তমান টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ে যোজন যোজন এগিয়ে থেকেই মঙ্গলবার কোর্টের লড়াইয়ে নামেন সেরেনা। আর ফর্মের ব্যবধান স্পষ্ট করতেই কি না ৬-২ গেমে প্রথম সেট নিজের করে নেন বর্তমান চ্যাম্পিয়ন সেরেনা উইলিয়ামস। তবে, ৬-১ গেমে দ্বিতীয় সেট নিজের করে নিয়ে অঘটনের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন আসরের ২৩তম বাছাই ভেনাস। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ৬-৩ গেমে তৃতীয় সেটের সঙ্গে সেমি ফাইনালের টিকেটও নিশ্চিত করেন ২১ গ্রান্ডসøাম জয়ের মালিক সেরেনা। মঙ্গলবার আর্থার এ্যাশ স্টেডিয়ামে ভেনাস-সেরেনার ম্যাচ দেখার জন্য গ্যালারিতে উপস্থিত হয়েছিল প্রায় ২৪ হাজার সমর্থক। যেখানে অসংখ্য সেলিব্রেটিদেরও দেখা যায়। আর সেই রোমাঞ্চকর পরিস্থিতির মধ্যেই লড়াই চালিয়ে যান দুই বোন। বর্তমান সময়ের পারফর্মেন্সে সেরেনাকেই এগিয়ে রেখেছিলেন ভক্তÑঅনুরাগীরা। কেননা গত এক বছরে টেনিস বিশ্ব দেখেছে শুধুই সেরেনার দাপট। আর অন্যদিকে ভেনাস উইলিয়ামস ছিলেন শুধুই নিজের ছায়া। সেরেনার বর্তমান বয়স ৩৩। এ মাসেই চৌত্রিশে পা রাখতে যাচ্ছেন তিনি। বয়সে তার চেয়েও দুই বছরের বড় ভেনাস। কিন্তু বয়সে বড় হলেও কোর্টে তার প্রমাণ দিতে পারেননি সাত গ্র্যান্ডসøাম জয়ের মালিক। যে কারণে শেষ পর্যন্ত পরাজয়টাকেই মেনে নিলেন তিনি। এই জয়ের ফলে ভেনাসের বিপক্ষে সেরেনা এগিয়ে গেলেন ১৬-১১ ব্যবধানে। গ্র্যান্ডসøামে সেরেনা-ভেনাসের ফলাফল ৯-৫। আর ইউএস ওপেনেও সেরেনা ৩-২ ব্যবধানে পেছনে ফেলে দিয়েছেন ভেনাসকে।

ইউএস ওপেনের শেষ আটের ম্যাচ জিতে রোমাঞ্চিত সেরেনা। ম্যাচ শেষে আমেরিকান তারকা জানান, রোমাঞ্চকর একটি লড়াই উপহার দেয়াই ছিল তাদের মূল লক্ষ্য, ‘এটা ভেনাস এবং আমার উভয়ের জন্যই অসাধারণ মুহূর্ত। আসলে সে প্রতিপক্ষ হিসেবে খুবই কঠিন। প্রকৃতপক্ষে আমরা দুজনেই দারুণ এক ম্যাচ উপহার দিতে চেয়েছিলাম।’ এই জয়ের ফলে চলতি মৌসুমে সেরেনার জয়-হারের ব্যবধান ৫৩ এর বিনিময়ে মাত্র ২। রীতিমতো যা অবিশ্বাস্যই বিষয় বলা চলে। গ্র্যান্ডসøামে সেরেনার টানা ৩৩তম জয়। ইউএস ওপেনে টানা ২৬। বছরের শেষ মেজর টুর্নামেন্ট ইউএস ওপেনে সেরেনার শেষ পরাজয়টা ছিল ২০১১ সালের ফাইনালে। অস্ট্রেলিয়ার সামান্থা স্টোসারের কাছে পরাজয় মেনেছিলেন তিনি। এরপর আর এখানে পরাজয়ের মুখ দেখেননি চলতি মাসেই চৌত্রিশে পা দিতে যাওয়া সেরেনা। এবারও তিনি জিতবেন এমন প্রত্যাশাই করছেন তার ভক্তরা। এমনকি শেষ আটের প্রতিপক্ষ ভেনাসও আশা দেখছেন সেরেনার মাইলফলকে। এ বিষয়ে তার অভিমত হলো, ‘হারাটা আসলেই হাস্যকর। সেরেনার সামনে একই বছরে চার মেজর শিরোপা জয়ের সুযোগ দেখে আমি খুবই আনন্দিত। আমি মনে করি এটাই তার ক্যারিয়ারের বড় একটি অধ্যায়।’ নিজেরই বড় বোন টেনিস কোর্টের প্রতিপক্ষ। আসলেই অসাধারণ এক অনুভূতি। তবে সেরেনা জানিয়ে দিলেন কোর্টে তারা একে অপরের প্রতিপক্ষই, ‘আমার জীবনে ভেনাস উইলিয়ামসই সবচেয়ে কঠিন প্রতিপক্ষ। সেরা ব্যক্তিত্বসম্পন্ন খেলোয়াড়ও। আমি যখন তার বিপক্ষে খেলি তখন মনেই হয় না যে তিনি আমার বোন। আসলে এমন পরিস্থিতিতে আপনিও তা ভাবতে পারবেন না। আমাদের জন্য এটা সম্মানের একটি বিষয়।’

সুদীর্ঘ ক্যারিয়ারে ২১ গ্র্যান্ডসøাম জিতেছেন সেরেনা। তার ছয় ইউএস ওপেন। সর্বশেষ তিনবারই এই টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন তিনি। শিরোপা নিজের শোকেসে তুলতে প্রয়োজন তার মাত্র দুই ম্যাচে জয়। তা পারলে গড়বেন নতুন এক মাইলফলকও। স্টেফি গ্রাফের পর প্রথম প্রমীলা খেলোয়াড় হিসেবে ‘ক্যালেন্ডার সøাম’ জয়ের বিস্ময়কর কীর্তি গড়বেন তিনি। স্টেফি গ্রাফ সর্বশেষ ১৯৮৮ সালে একই বছরে সবকটি মেজর শিরোপা জিতেছিলেন। ইউএস ওপেনের ফাইনালে উঠার লড়াইয়ে সেরেনার সামনে বাধা এখন রবার্টা ভিঞ্চি। টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের ৪৩ নাম্বারে থাকা এই ইতালিয়ান তারকা মঙ্গলবার শেষ আটে পরাজিত করেন ক্রিস্টিনা মাদেনোভিচকে। সেরেনার বিপক্ষে এর আগে চারবার মুখোমুখি হয়েছিলেন ভিঞ্চি। কিন্তু তার সবকটিতেই হার মানেন তিনি।