২৩ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলাদেশের নতুন কোচ ইতালির ফ্যাবিও লোপেজ

জাহিদুল আলম জয় ॥ বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের নতুন কোচ হিসেবে নিয়োগ পেতে যাচ্ছেন ইতালির ফ্যাবিও লোপেজ। দুই বছরের চুক্তিতে তিনি বাংলাদেশে জাতীয় ফুটবল দলের দায়িত্ব গ্রহণ করবেন। গত এক সপ্তাহ যাবত তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সবুজ সংকেত পেয়েই তিনি ঢাকায় আসেন। মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বসে তিনি বাংলাদেশ-জর্দান বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচ উপভোগ করেন। যার মাধ্যমে প্রাথমিক একটা ধারণা নিতে সক্ষম হন বাংলাদেশের ফুটবল সম্পর্কে। গতকাল বুধবার বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক আলোচনা করেছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সভাপতি কাজী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন নিজেই। দু’জনের মধ্যে আলোচনায় বাংলাদেশ জাতীয় দলের দায়িত্ব নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন ইতালিয়ান কোচ লোপেজ।

হল্যান্ডের কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফের মেয়াদ বুধবার শেষ হয়। বিশ্বকাপ বাছাই ফুটবলে অস্ট্রেলিয়া সফরে থাকাকালীন সময়েই কোচ পদে পরিবর্তন হবেÑ এমন গুঞ্জন শোনা যায়। অবশেষে সেটারই সত্যতা মিলেছে। তবে ক্রুইফকে বরখাস্ত করা হয়নি, মেয়াদ শেষ হওয়ায় তার সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করা হয়নি বলে জানিয়েছে বাফুফে। যে কারণে বাংলাদেশের ফুটবলে শেষ হয়েছে ক্রুইফ অধ্যায়। আজ ডাচ্ এই কোচকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিদায় জানানো হবে। তার বিদায়ের মধ্য দিয়েই বাংলাদেশের ফুটবলে নতুন কোচের যাত্রা শুরু হবে। বুধবার পর্যন্ত এ বিষয়ে চূড়ান্ত কিছু বলা হয়নি, তবে অনানুষ্ঠানিকভাবে ফ্যাবিও লোপেজের কোচ হওয়ার বিষয়টি জনকণ্ঠকে নিশ্চিত করেছেন বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন।

তিনি জানিয়েছেন, গতকাল পর্যন্ত এ নিয়ে চূড়ান্ত আলোচনা হয়নি, যা হয়েছে তা আনঅফিসিয়ালি। তিনি আরও জানান, একজনের বিদায় হলে আরেকজন আসবে এটাই স্বাভাবিক। ৪২ বছর বয়সী লোপেজ পুরো কোচিং স্টাফ নিয়ে বাংলাদেশে আসছেন। গোলরক্ষক কোচ, ট্রেনার ও ফিজিওসহ মোট চারজনের স্টাফ নিয়ে মামুনুল, এমিলি, জামাল ভূঁইয়াদের কোচ হিসেবে কাজ করবেন লোপেজ। ইতালিয়ান এই কোচ প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে কাজী সালাউদ্দিন বলেন, সব ঠিক আছে। ফ্যাবিও লোপেজ নামও ঠিক আছে। তার বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে দু’একদিনের মধ্যে চূড়ান্ত করা হবে। তিনি আরও বলেন, বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে বাদ বাকি ম্যাচগুলোতে বাংলাদেশ লোপেজের কোচিংয়ে মাঠে নামবে।

কোচ হিসেবে ইতোমধ্যে নিজেকে প্রমাণ করেছেন লোপেজ। ৪২ বছর বয়সী সাবেক এই গোলরক্ষক ২০০৭ সালে ইতালিয়ন ক্লাব এ এস রোমার কোচিং স্টাফ হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি প্রথমবারের মতো মূল কোচের দায়িত্ব পালন করেন ২০০৭-০৮ মৌসুমে। সে সময় লিথুনিয়ার পেশাদার ক্লাব এফকে বাঙ্গার কোচ নিযুক্ত হন। পেশাদার ক্যারিয়ারের প্রথম মৌসুমেই দারুণ সাফল্য পান তিনি। তার অধীনে এফকে বাঙ্গা সেমিফাইনালে উঠে লিথুনিয়ান কাপ ফুটবলের। সেই থেকে ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন ক্লাবের হয়ে কোচিং করিয়েছেন লোপেজ। সাফল্যও মিলেছে তাক লাগানো। ইতালির অনেক একাডেমি ক্লাবে কাজ করা এই কোচ প্রতি পদক্ষেপেই নিজের দক্ষতার স্বাক্ষর রেখেছেন। সেই লোপেজই এবার বাংলাদেশের ফুটবলের অভিভাবক হিসেবে দায়িত্ব পেতে চলেছেন।

অনেক আশা নিয়েই বাংলাদেশের ফুটবলে ক্রুইফ অধ্যায় শুরু হয়েছিল। কিন্তু গাফিলতি ও খামখেয়ালির কারণে তার সঙ্গে আর চুক্তি নবায়ন করছে না বাফুফে। সূত্রমতে, চুক্তি অনুযায়ী দায়িত্ব পালন করেননি ডাচ্ এই কোচ। বিভিন্ন সময়ে দেশে যেয়ে সময় মতো ফেরেননি তিনি। শুধু তাই নয়, দলের অনুশীলনের সময়ও তাকে ঠিকমতো পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ আছে। মোটকথা, দায়িত্বে অবহেলার কারণেই বাফুফে ক্রুইফের সঙ্গে চুক্তি নবায়নে আগ্রহী হয়নি। বিষয়টি মাথায় রেখেই বাফুফে সভাপতি নতুন কোচের সন্ধান করতে থাকেন। বুধবার ক্রুইফের সঙ্গে চুক্তির শেষদিন ছিল। যে কারণে এদিন বাংলাদেশের ফুটবলাঙ্গন গরম হয়ে ওঠে। শোনা যায়, ক্রুইফকে বরখাস্ত করা হয়েছে। কিন্তু কাজী সালাউদ্দিন জানিয়েছেন, বরখাস্তের বিষয়টি ঠিক নয়। ক্রুইফের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। যে কারণে নতুন কোচ খোঁজা হচ্ছে। খোঁজাখুঁজির সেই কাজটিও ইতোমধ্যে প্রায় সম্পন্ন হয়েছে। ফ্যাবিও লোপেজই হতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের নতুন কোচ। এখন শুধু আনুষ্ঠানিক ঘোষণা ও চুক্তির পালা।

উল্লেখ্যে, নতুন কোচ নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে আজ জরুরি সভা ডেকেছে বাফুফে।