২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হামজা ব্রিগেডে অর্থায়ন ॥ গার্মেন্টস ব্যবসায়ী এনামুলের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী

চট্টগ্রাম অফিস/নিজস্ব সংবাদদাতা ॥ জঙ্গী অর্থায়নে অভিযুক্ত গার্মেন্টস ব্যবসায়ী এনামুল হক ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন চট্টগ্রামের বাঁশখালী আদালতে। বৃহস্পতিবার বাঁশখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ সাজ্জাদ হোসেনের আদালতে তিনি এ জবানবন্দী প্রদান করেন। রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি জানান, এতে তিনি চট্টগ্রামভিত্তিক জঙ্গী সংগঠন শহীদ হামজা ব্রিগেডকে অর্থ প্রদানের কথা স্বীকার করেছেন।

র‌্যাব-পুলিশের কড়া পাহারায় বৃহস্পতিবার ১১টার দিকে বাঁশখালী আদালতে নিয়ে আসা হয় গার্মেন্টস কারখানার মালিক এনামুলকে। এরপর কিছুক্ষণ সময় দিয়ে শুরু হয় তার জবানবন্দী রেকর্ড। তবে জবানবন্দী শেষে এনামুলের পক্ষে আদালতে জামিন আবেদন করেন তার কৌঁসুলি সামশুল ইসলাম। কিন্তু শুনানি শেষে বিচারক জামিন নামঞ্জুর করে তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

র‌্যাবের আবেদনের প্রেক্ষিতে গত রবিবার এই গার্মেন্টস ব্যবসায়ীর ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছিল একই আদালত। জিজ্ঞাসাবাদের চতুর্থ দিনের মধ্যে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিলেন এনামুল। এতে তিনি বলেন, ২০১৪ সালে ১৬ আগস্ট গোল্ডেন টাচ এ্যাপারেলসের মালামাল ক্রয়ের জন্য হামজা ব্রিগেড নেতা মনিরুজ্জামান ডনের এ্যাকাউন্টে ১৬ লাখ টাকা প্রদানের কথা স্বীকার করেন। তবে এর মাধ্যমে জঙ্গী অর্থায়ন হতে যাচ্ছে কিনা তা তিনি জানতেন না বলে দাবি করেন।

এদিকে রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি অতিরিক্ত পিপি এ্যাডভোকেট বিকাশ রঞ্জন ধর বলেন, আটক ব্যবসায়ী এনামুল হক ‘শহীদ হামজা বিগ্রেডে’র অন্যতম পরিচালক মনিরুজ্জামান ডনের এ্যাকাউন্টে ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে অর্থ প্রদানের কথা স্বীকার করেছেন। এনামুল প্রত্যক্ষভাবে শহীদ হামজা বিগ্রেডের সঙ্গে সম্পৃক্ত। কেননা মনিরুজ্জমান ডন জঙ্গী সংগঠন শহীদ হামজা বিগ্রেডের অন্যতম পরিচালক। সে দীর্ঘদিন থেকে চট্টগ্রামে জঙ্গী কর্মকা- পরিচালনা করে আসছিল। তিনি বলেন, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা ও দেশব্যাপী একযোগে সিরিজ বোমা হামলা ও জঙ্গী সংগঠন ‘শহীদ হামজা বিগ্রেড’ একই সূত্রে গাঁথা। এ সংগঠন পরিচালনায় রয়েছে বড় বড় রাঘব বোয়াল। র‌্যাব দ্রুত তদন্ত সাপেক্ষে প্রকৃত আসামিদের আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আদালত ও র‌্যাব সূত্রে জানা যায়, গত ৫ সেপ্টেম্বর ব্যবসায়ী এনামুল হককে ঢাকার তুরাগ এলাকা থেকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৭ এর একটি চৌকস দল আটক করে। আটকের পর বাঁশখালীর দুর্গম লটমনি পাহাড়ে অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার এবং প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আবিষ্কারের ঘটনার মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। গত ৬ সেপ্টেম্বর রবিবার বাঁশখালী আদালতে তাকে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে র‌্যাব। আদালত শুনানি শেষে ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বৃহস্পতিবার র‌্যাব তাকে হাজির করলে তিনি ১৬৪ ধারায় আদালতে জবানবন্দী প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারি মাসে বাঁশখালীর সাধনপুর লটমনি পাহাড়ে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র, গোলাবারুদ ও সামরিক সরঞ্জামসহ ৫ জনকে আটক করে র‌্যাব। এ ঘটনায় র‌্যাবের এএসপি রুহুল আমিন বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।