১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নওগাঁয় পশুহাটে টোলের নামে চাঁদাবাজি

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ, ১০ সেপ্টেম্বর ॥ মান্দা উপজেলার চৌবাড়িয়া পশুরহাটে ইজারাদারের দৌরাত্ম্য চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। টোল আদায়ের নামে চলছে নীরব চাঁদাবাজি। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, ঈদ-উল-আযহাকে সামনে রেখে অতিরিক্ত অর্ধকোটি টাকা আদায়ের টার্গেট নিয়ে মাঠে নেমেছে হাটের ইজারাদার। এতে দুই হাটে অতিরিক্ত টোল আদায়ের পরিমাণ আরও বাড়তে পারে বলেও আশঙ্কা ক্রেতা ও ব্যবসায়ীর। এদিকে হাট বুঝে নেয়ার ৫ মাস পেরিয়ে গেলেও টাঙানো হয়নি সরকারী মূল্য তালিকা।

উপজেলা নির্বাহী অফিস সূত্রে জানা গেছে, বাংলা ১৪২২ সালের জন্য চৌবাড়িয়াহাট ২ কোটি ৭৫ লাখ ৬৫ হাজার ৫শ’ টাকায় ইজারা প্রদান করা হয়েছে। রাজশাহীর বড় মঠপুকুর এলাকার আব্দুস সামাদের ছেলে আবুল বাশার সুজন হাটটি ইজারা নিয়েছেন। সরকারীভাবে প্রতিটি গরু-মহিষের জন্য ২শ’ টাকা ও ছাগল-ভেড়ার জন্য ৭৫ টাকা হারে টোল নির্ধারণ রয়েছে বলে সূত্রটি নিশ্চিত করে।

ক্রেতা, ব্যবসায়ী ও স্থানীয়দের অভিযোগ, চৌবাড়িয়া পশুরহাটে ইজারাদারের লোকজন সরকার নির্ধারিত ফির অতিরিক্ত দেড় থেকে প্রায় দ্বিগুণ হারে টোল আদায় করছে। প্রতিটি গরু-মহিষে ৩১০ টাকা ও ছাগল-ভেড়ায় ২শ’ টাকা হারে আদায় করছেন তারা। এ ছাড়া লেখনীর জন্য আদায় করা হচ্ছে আরও ২০ টাকা। এসবের পাশাপাশি বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের নামেও টাকা তুলছেন ইজারাদারের লোকজন। তাদের অভিযোগ, রশিদে পশুর বিক্রি মূল্য উল্লেখ থাকলেও টোল আদায়ের ঘরে টাকার পরিমাণ লেখা থাকছে না।

অতিরিক্ত টোল আদায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে চৌবাড়িয়াহাট কমিটির সভাপতি ও ভারশোঁ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শারিকুল ইসলাম বলেন, এ নিয়ে তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দাখিল করেন। জেলা প্রশাসক তদন্ত করে রিপোর্ট দাখিলের জন্য মান্দা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশ দেন। ইজারাদার আবুল বাশার সুজন অতিরিক্ত টোল আদায়ের অভিযোগটি অস্বীকার করেছেন। তবে চৌবাড়িয়া হাটে এখন পর্যন্ত টোল আদায়ের কোন তালিকা টাঙানো হয়নি বলে স্বীকার করেছেন ইউএনও সাইফুর রহমান খান।