১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নারীর পথচলা ও পপ অফ কালার

আধুনিক যুগে অনলাইন বিশেষত ফেসবুক সময় কাটানোর অন্যতম মাধ্যম। তাই সময় এবং চাহিদার প্রয়োজনেই সৃষ্টি হয়েছে নানা রকমের ফেসবুক পেজ, ফেসবুক গ্রুপের। নারীদের জীবনযাপনসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে খোলামেলা আলাপ করা, নিজেদের আরও ভালভাবে তুলে ধরার প্রয়াশেই যাত্রা শুরু হয় পপ অফ কালারের।

দুই বন্ধুর সুদক্ষ পরিচালনার এই গ্রুপটিকে মেয়েদের অভয়ারণ্য বলা যেতে পারে। একটু বিস্তারিতভাবে বলতে গেলে বর্তমানে কি ট্রেন্ড, স্টাইল চলছে এটা নিয়েই আলোচনা হয় এখানে। এক কথায় মেয়েদের লাইফস্টাইল নিয়ে আলোচনা হয়ে থাকে। বিশ্বের প্রতিটি প্রান্তে বাংলাদেশী বা বাংলা ভাষাভাষী মেয়েদের এক জায়গায় করেছে/বা করার আপ্রাণ চেষ্টা চলছে এ গ্রুপে। সব পেশার নারীরা যেমন ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, আর্কিটেকচার, ইন্টেরয়ার, ডিজাইনার, অভিনেত্রী থেকে মেকআপ আর্টিস্ট সবাই সমানভাবে একটিভ মেম্বার হিসেবে আছেন। পপ অফ কালারের সকল সদস্যের বলা হয় পশিয়ান। নিজেদের এভাবেই পরিচয় দিয়ে থাকেন এই গ্রুপের সঙ্গে যুক্ত সদস্যরা।

পপ অফ কালারকে একটি ব্র্যান্ড বলে দাবি করেন এই গ্রুপের এ্যাডমিনরা। তার কারণ হিসেবে প্রতিষ্ঠান প্রধান জান্নাতুল মাওয়া বলেন, শুধু এই নামেই অর্থাৎ পপ অফ কালারের মেম্বার হলেই নাম করা অনেক শপ থেকে শুরু করে বিখ্যাত সব অনলাইন পেজে মূল্যছাড় থেকে শুরু করে বিশেষ খাতির পেয়ে থাকেন, যা পপ অফ কালারের শুরুর আগে অকল্পনীয় ছিল। এছাড়া দেশের বিখ্যাত সব বিউটি ব্লগারদের একসঙ্গে এক প্ল্যাটফর্মে আনতে পেরেছে শুধুমাত্র ‘পপ অফ কালার।’ ওপাল ফ্যাশন ওয়্যারসহ বিভিন্ন অনলাইন পেজ ও বিভিন্ন ফ্যাশন শপের সঙ্গে একাত্ম হয়ে কাজ করছে এই গ্রুপটি।

দুই বন্ধু জান্নাতুল মাওয়া, ইশি রাইয়ান হোসাইনের এই গ্রুপ এখন শুধু ভার্চুয়াল জগতেই সীমাবদ্ধ নেই। গত পয়লা আগস্ট বেশ জাঁকজমকভাবেই ঢাকার অভিজাত রেস্তোরাঁ আর্মি গলফ ক্লাবের পামভিউ রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয় এক জমায়েত। স্বনামধন্য অভিনেতা আরেফিন শুভ ও অভিনেত্রী নুসরাত ফারিয়া মিলিত হয় এই গেট টুগেদারে। মজার বিষয় হলোÑ প্রথমবারের মতো অভিনেতা আরেফিন শুভ গান গেয়ে চমক দেখান এই অনুষ্ঠানে। এছড়াও, তারকাদের অংশগ্রহণে ফ্যাশন শোর পাশাপাশি আকর্ষণীয় রেড কার্পেটের আয়োজন করা হয়ে পপ অফ কালারের গেট টুগেদারে।

ভবিষ্যত পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে পপ অফ কালারের প্রতিষ্ঠাতা এ্যাডমিন জান্নাতুল মাওয়া জানান, ‘বাংলাদেশের প্রতিটি মেয়ের কাছে আমি পপ অফ কালারকে পৌঁছে দিতে চাই। আমি চাই পপ অফ কালারের মাধ্যমে মেয়েদের লাইফস্টাইলে পরিবর্তন আসুক। তারা নতুন করে নিজেদের চিনতে শিখুক, নতুন করে আবিষ্কার করুক। আর সবসময়ের মতো বেশিকিছু চমক অপেক্ষা করছে পপ অফ কালারের পক্ষ থেকে। বর্তমানে আমরা মেম্বারশিপ কার্ড এবং কোন কোন শপ ও পেজ থেকে ডিসকাউন্ট পাবে পশিয়ান হিসেবে ওটা নিয়ে কাজ করছি।’ এই অল্প ক’দিনে অভূতপূর্ব সাড়ায় অভিভূত এ্যাডমিনরা ধন্যবাদ জানান গ্রুপের সকল সদস্য, সব ব্লগারকে।

জান্নাতুল শিখা