২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রেলওয়ের পাকশী বিভাগ ॥ ৬১ কোটি টাকা অতিরিক্ত আয়

রেলওয়ের পাকশী বিভাগ ॥ ৬১ কোটি টাকা অতিরিক্ত আয়

স্টাফ রিপোর্টার, ঈশ্বরদী ॥ বাংলাদেশ রেলওয়ে পাকশী বিভাগে চলতি অর্থ বছরে যাত্রী, পার্সেল ও মালামাল বহণ করে প্রায় ৬১ কোটি টাকা অতিরিক্ত আয় করেছে। যা গত বিশ বছরের আয়ের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে মহাব্যবস্থাপক খায়রুল আলম ও পাকশী বিভাগের ব্যবস্থাপক আফজাল হোসেনের সঠিক নির্দেশনা, তদারকি ও দায়িত্বশীলতার কারণে এটি সম্ভব হয়েছে। রেলওয়ে পাকশী বিভাগের দায়িত্বশীল সূত্রের দেওয়া তথ্যে মতে এসব জানা গেছে।

সূত্র মতে, গত ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে যাত্রী বহন করে ১’শ ৩৬ কোটি ৬৪ লাখ টাকা, পার্সেল বহনে ৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকা , মালামাল বহনে ৪৪ কোটি ১৭ লাখ টাকা ও বিবিধ খাতে ৩ কোটি ৯২ লাখ টাকা মিলে মোট ১’শ ৯১ কোটি ৪৯ লাখ টাকা আয় করা হয়।

২০১৪-১৫ অর্থ বছরে যাত্রী বহন করে ১’শ ৪৯ কোটি ৮৪ লাখ টাকা, পার্সেল বহনে ৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকা,মালামাল বহন করে ৯৩ কোটি ১০ লাখ টাকা ও বিবিধ খাতে ৪ কোটি ৭ লাখ টাকা মিলে মোট ২’শ ৫২ কোটি ৩৭ লাখ টাকা আয় করা করেছে। যা গত অর্থ বছরের তুলনায় প্রায় ৬১ কোটি টাকা অতিরিক্ত আয় করেছে। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক খায়রুল আলম ও পাকশী বিভাগের ব্যবস্থাপক আফজাল হোসেনের সঠিক নির্দেশনা, তদারকি ও দায়িত্বশীলতার কারণে সম্ভব এসব সম্ভব হয়েছে। এই আয় গত বিশ বছরের আয়ের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে।

পাকশী বিভাগের ব্যবস্থাপক আফজাল হোসেন জানান, স্টেশন বন্ধ থাকা, ঢাকামুখি ট্্েরনে বেশি কোচ সংযোজন করতে না পারা, চালক ( এলএম) ও গার্ড সংকট থাকার পরও কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সঠিক ভাবে দায়িত্ব পালনের কারণে চলতি অর্থ বছরে অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে এ অতিরিক্ত আয় করা সম্ভব হয়েছে। প্রয়োজণীয় সংখ্যক স্টেশন চালু, ঢাকামুখি ট্রেনে কোচ সংযোজন, চালক (এলএম) ও গার্ড সংকট না থাকলে আরও বেশি আয় করা সম্ভব হতো।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক খায়রুল আলম জানান, রেল মন্ত্রনালয়ের সঠিক নির্দেশনায় পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের সকল বিভাগে কর্মকর্তা-কর্মচারিরা সঠিকভাবে দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করছেন। লোকবল, কোচ, এলএম ও গার্ড স্বল্পতা কাটিয়ে উঠা এবং বন্ধ স্টেশনগুলো চালুর জোড় চেষ্টা চলছে। আশা করা যায় স্বল্প সময়ের মধ্যেই এসব সমস্যা সমাধান হলে ট্রেন মুখি যাত্রীদের সুবিধা ও রেলের আয় আরও বৃদ্ধি পাবে।