২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গোপালগঞ্জে রিক্তার ধর্ষণ ও হত্যা মামলার ক্লু উদঘাটিত

নিজস্ব সংবাদদাতা, গোপালগঞ্জ ॥ গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে দিগনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর স্কুলছাত্রী রিক্তা আক্তার খুনের রহস্য উদঘাটিত হয়েছে। ভর দুপুরে মামাবাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে ফেরার পথে কয়েকজন বখাটে যুবক তাকে রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণের পর পানিতে চুবিয়ে তাকে হত্যা করে ফেলে রেখে উধাও হয়। এ সংক্রান্ত মামলার অন্যতম আসামী ইব্রাহীম ওরফে কালু (২১) বৃহষ্পতিবার বিকেলে মুকসুদপুরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট লষ্কর সোহেল রানার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। এর আগে বুধবার রাতে ঢাকার সায়েদাবাদ বাস-টার্মিনাল থেকে মুকসুদপুর সিন্দিয়াঘাট ফাঁড়ি-পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ইব্রাহীম ওরফে কালু দিগনগর ইউনিয়নের ফতেহপট্টি গ্রামের মৃত নুরুদ্দিনের ছেলে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিন্দিয়াঘাট পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মোঃ গিয়াস উদ্দিন জানিয়েছেন, গত ২৭ জুলাই দুপুরে রিক্তা পার্শ্ববর্তী ভাঙ্গা থানার গঙ্গাধরদি গ্রামে তার মামাবাড়ি থেকে মুকসুদপুরের সর্দি গ্রামে নিজ বাড়িতে ফেরার পথে এ ঘটনার শিকার হয়। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পর বাড়ি থেকে প্রায় আঁধা-কিলোমিটার দূরে একটি পরিত্যাক্ত ভিটা থেকে তার নগ্ন লাশ উদ্ধার করা হয়। ওইদিনই রিক্তার বাবা রেজ্জাক শেখ অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করলে রাতে পুলিশ পার্শ্ববর্তী ফতেহপট্টি গ্রামের হাইয়ুল, উজ্জ্বল, তুষার ও নূরে আলম নামে চারজনকে আটক করে। তদন্তকারী কর্মকর্তা আরও জানান, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত আরও কয়েক যুবক এখনও পলাতক রয়েছে। খুব শীঘ্রই তাদেরকেও গ্রেফতার করা সম্ভব হবে।