২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বয়সকে পাত্তা দিচ্ছেন না, রিও অলিম্পিকে দৃষ্টি গ্যাটলিনের

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আগামী বছর যখন ব্রাজিলে পরবর্তী অলিম্পিক আসর শুরু হবে তখন জাস্টিন গ্যাটলিন চৌত্রিশ। কোনভাবেই তিনি বড় ধরনের প্রতিযোগিতায় সর্বকালের সবচেয়ে গতিধর মানব উসাইন বোল্টের সঙ্গে। গত একটা বছর দুর্দান্ত ফর্মে ছিলেন ৩৩ বছর বয়সী এ মার্কিন স্প্রিন্টার। সম্প্রতি গতিটাও ছিল বোল্টের চেয়ে বেশি। কিন্তু তবু পারলেন না। টানা ২৮ রেসে জয়ের পর বিশ্ব এ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপসে বোল্টের কাছে পরাজিত হলেন। রিও ডি জেনিরো অলিম্পিকে অংশ নেয়ার সময় বয়সটা বেড়ে যাবে আরও। এই গতিটা কি ধরে রাখতে পারবেন গ্যাটলিন? তবে নিজেকে নিয়ে আত্মবিশ্বাসী তিনি। আগামী অলিম্পিকেও বোল্টকে কঠিন চ্যালেঞ্জ জানাতে চান গ্যাটলিন। ব্রাসেলসে মৌসুম সমাপ্তির ডায়মন্ড লীগ মিটে অংশ নিচ্ছেন গ্যাটলিন। তবে এখানেও নেই বোল্ট। গত বছরও তিনি অধিকাংশ মিটে ছিলেন অনুপস্থিত।

ইনজুরির কারণে পুরো ৬ সপ্তাহ ছিলেন ট্র্যাকের বাইরে। এর মধ্যে গ্যাটলিন গতির ঝড় তোলেন। তবু বেজিংয়ে ৯.৭৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে তিনি আবার বিশ্ব সেরা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। মাত্র ০.০১ সেকেন্ড বেশি সময় নিয়ে এবারও বোল্টের পেছনে থেকে যান ফেবারিট গ্যাটলিন। এবার অলিম্পিক ভাবনা। বোল্ট সে জন্য বিশ্রাম নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও কঠোর পরিশ্রম দেয়া ছাড়েননি গ্যাটলিন। মৌসুম শেষে ব্রাসেলস মিটে অংশ নিচ্ছেন। কারণ রিও অলিম্পিকে ধরতে হবে বোল্টকে। এ বিষয়ে গ্যাটলিন বলেন, ‘গত বছরের তুলনায় এবার অনেক বেশি দৌড়াতে হয়েছে। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপসের অনেক চাপ গেছে। কিন্তু তবু আমি আরও দৌড়াতে চাই। আশা করছি আমার শরীর সেটা সমর্থন দেবে।’

আরাধ্য স্বর্ণ পদক জিততে পারেননি ট্র্যাক এ্যান্ড ফিল্ডে অন্যতম প্রতিপক্ষ বোল্টের কারণে। কিন্তু সেটার কারণে বিন্দুমাত্র হতাশ হননি গ্যাটলিন। মানসিকভাবে একটুও বিচলিত না তিনি। এ বিষয়ে গ্যাটলিন বলেন, ‘আমি মানসিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়া বা বেশি উত্তেজিত হওয়ার চেয়ে কাজ করার দিকে বেশি মনোযোগী। আমি সেখানে গেছি এবং অনেক ভাল দৌড়েছি। নিজের নৈপুণ্যে আমি সন্তুষ্ট। সুস্থভাবে ফিরেছি এবং ইনজুরিতেও পড়িনি।

এখন সেটাকে আমি পেছনে ফেলে এসেছি এবং তখন থেকেই চিন্তা করেছি পরবর্তী রেস নিয়ে। এখন ব্রাসেলস মিট হচ্ছে আমার পরবর্তী রেস।’ বয়সকে পাত্তাই দিচ্ছেন না গ্যাটলিন। দুইবার ডোপটেস্টে পজিটিভ হওয়ার কারণে নিষেধাজ্ঞা কাটাতে হয়েছে। সেখান থেকে ফিরে ৩৩ বছর বয়সেও ভালভাবে দৌড়াচ্ছেন এটাই তার কাছে খুব ভাল বিষয় মনে হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘বয়স কোন বিষয় নয়। এ বছরের যেটুকু সময় আছে রিও অলিম্পিক প্রস্তুতি নিয়েই চিন্তা থাকবে এবং সেভাবেই প্রস্তুত হব। আর ভাল এ্যাথলেট হওয়ার দিকেই আমার মনোযোগ। রিও-তে সেটা দেখতে পাবেন সবাই।’