১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মধ্যপ্রদেশে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ॥ ৮২ জনের মৃত্যু

  • ধসে পড়ে রেস্তরাঁ ও পাশের বহুতল ভবন

ভারতের মধ্যপ্রদেশের ঝাবুয়া জেলার এক রেস্তরাঁয় শনিবার সকালে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে কমপক্ষে ৮২ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। এ ঘটনায় আরও ৮০ জন আহত হয়েছে। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। খবর এএফপি ও আজকালের।

সিনিয়র ডিস্ট্রিক্ট পুলিশ কর্মকর্তা সীমা আলাভা জানান, মধ্যপ্রদেশের পেটনাওয়াদ শহরের সেঠিয়া নামের রেস্তরাঁয় স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ সময় সেখানে অনেক অফিস কর্মী ও স্কুল শিক্ষার্থীরা নাস্তা করছিল। এখনও পর্যন্ত ৮২ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হলেও এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। ধ্বংসস্তূপের ভিতর থেকে আটকে পড়াদের খুঁজে বের করতে সেখানে জোরদার উদ্ধার প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। উদ্ধার কাজে যোগ দিয়েছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবেলা বাহিনী। তিনি বলেন, রেস্তরাঁটি ঘন জনবসতি এলাকায় অবস্থিত হওয়ায় সেখানে অনেক লোক নাস্তা করতে আসে। এ কারণেই হতাহতের সংখ্যা এত বেশি হয়েছে। এ মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় আহত ৮০ জনকে পার্শ্ববর্তী একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আলাভা জানান, এ বিস্ফোরণের তীব্রতা এত বেশি ছিল যে, এতে মুহূর্তেই ধসে যায় ওই তিনতলা রেস্তরাঁ ও তার সংলগ্ন একটি বহুতল ভবন। আশপাশের অনেক ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, ভাড়া করা ওই রেস্তরাঁয় বিস্ফোরক মজুত রাখতেন এর মালিক রাজেন্দ্র তত্ত্ব। অভিযোগ সত্যি কিনা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। মধ্যপ্রদেশ সরকার পুলিশকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। প্রয়োজনে রেস্তরাঁর মালিককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে। টেলিভিশনের ভিডিও ফুটেজে অনেক লোক ও উদ্ধারকর্মীকে ভেঙ্গে পড়া ভবনের ধ্বংসস্তূপ সরাতে দেখা যায়। পুলিশ এলাকাটি ঘিরে রেখেছে। জেলা পুলিশ নিয়ন্ত্রণ কক্ষের অপর কর্মকর্তা অনুরাগ মিশ্র বলেন, রেস্তরাঁটি একটি ব্যস্ত বাসস্ট্যান্ডের পাশে অবস্থিত হওয়ায় হতাহতের সংখ্যা এত বেশি হয়েছে। বিস্ফোরণে মৃতদের পরিবারকে দুই লাখ রুপী ও আহতদের ৫০ হাজার রুপী ক্ষতিপূরণ দেয়ার কথা ঘোষণা করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান। সাব ডিভিশনাল পুলিশ কর্মকর্তা এ আর খান জানিয়েছেন, রেস্তরাঁয় রান্নার প্রয়োজনে মজুত করে রাখা এলপিজি সিলিন্ডার ফেটে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এদিকে ঘন বসতিপূর্ণ এমন একটি এলাকায় রেস্তরাঁ নির্মাণের অনুমতি দেয়া নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। কতগুলো সিলিন্ডার মজুত করা ছিল, যার দরুন এই ভয়াবহ বিস্ফোরণ, তা নিয়েও প্রশাসনে সংশয় তৈরি হয়েছে।