১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মক্কায় দুর্ঘটনায় আহত ৪০ বাংলাদেশীর সবাই সুস্থ আছেন

মক্কায় দুর্ঘটনায় আহত ৪০ বাংলাদেশীর সবাই সুস্থ আছেন

আজাদ সুলায়মান ॥ পবিত্র মসজিদুল হারামে ক্রেন দুর্ঘটনায় আহত ৪০ বাংলাদেশীর সবাই সুস্থ আছেন। তবে ক্রেন দুর্ঘটনার কবলে পড়া বাংলাদেশী হজযাত্রীদের সম্পর্কে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কাছে এখনও নিশ্চিত কোন তথ্য নেই। মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা সকাল থেকে সৌদিতে বাংলাদেশ হজ মিশনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে দু’দফা টেলিফোন ও মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলেও কেউ ফোন রিসিভ করেননি। উত্তরার হজ অফিস ও ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্রে এ সব তথ্য জানা গেছে। এদিকে ওই ঘটনায় ৪ বাংলাদেশী নিহত হওয়ার খবরে সকাল থেকেই হজ ক্যাম্পে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত লোকজন ভিড় জমিয়ে তাদের স্বজনদের খোঁজখবর নেন। তাদের আশ্বস্ত করা হয় যে শুক্রবার রাতের ওই দুর্ঘটনায় কোন বাংলাদেশী নিহত হননি। এ বিষয়ে পরিচালক (হজ) ড. আবুল সালেহ মোস্তফা কামাল জনকণ্ঠকে জানান, মিশনের কর্মকর্তারা বাংলাদেশীদের সম্পর্কে খোঁজখবর নিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। সরকারীভাবে কোন তথ্য এখনও পর্যন্ত তাদের কাছে আসেনি। সকাল থেকে দুই দফা চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন। তাছাড়া নেটওয়ার্কেও সমস্যা রয়েছে। তারপরও যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে।

তিনি বলেন, তারা বুঝতে পারছেন দেশ থেকে যারা সেখানে হজ করতে গেছেন তাদের পরিবার-পরিজন দুশ্চিন্তায় সময় কাটাচ্ছেন। সরকারীভাবে নিশ্চিত তথ্য জানতে চাইছেন। কিন্তু নিহত বা আহতদের সম্পর্কে কোন তথ্য না আসায় কিছু জানাতে পারছেন না। তবে বিভিন্ন সূত্রে ৪০ জন আহত হওয়ার খবর পেয়েছেন বলে জানান তিনি। তাদের মধ্যে কারও মৃত্যুর খবর শোনেননি বলে জানান হজ পরিচালক। বর্তমানে বাংলাদেশীরা সুস্থ আছেন।

সর্বশেষ শনিবার বিকেলে জানা যায়, সৌদিতে ক্রেন ভেঙে দুর্ঘটনায় আহত বাংলাদেশীরা প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল ছেড়েছেন বলে জানিয়েছেন সৌদি আরবে নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত গোলাম মসীহ। শনিবার তিনি সাংবাদিকদের জানান, আহতদের মধ্যে তিনজনকে প্রথমে আইসিইউতে রাখা হলেও তারা এখন আশঙ্কামুক্ত।

ওই দুর্ঘটনার পর পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম তার ফেসবুক পেজে জানান, বাংলাদেশীরা বেশিরভাগই আহত হয়েছিলেন ভয় ও হুড়োহুড়ির কারণে। তাদের সবাইকে হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পর ছেড়ে দেয়া হয়।

এ ছাড়া মসজিদুল হারামে ক্রেন দুর্ঘটনায় আহত হজযাত্রীদের হজ পালনে সরকারী সহায়তা প্রদানের ঘোষণা দিয়েছেন মক্কার গবর্নর ও দুই পবিত্র মসজিদের উপদেষ্টা খালেদ আল ফয়সাল।

শুক্রবার রাতে মক্কায় দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন এবং হাসপাতালে আহতদের দেখতে গিয়ে এ ঘোষণা দেন তিনি। এ দুর্ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। প্রিন্স খালেদ আল ফয়সাল ক্রেন দুর্ঘটনার নেপথ্য কারণ খুঁজে বের করতে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করার নির্দেশ দিয়েছেন।

এদিকে সৌদি সরকারের মিডিয়া এ্যান্ড পাবলিক রিলেশনের মহাপরিচালক সুলতান আল ডোসারের বরাত দিয়ে সৌদি গেজেট জানায়, প্রিন্স খালেদ দ্রুত তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন দাখিল ও আহতদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা নিশ্চিত করার নির্দেশনা দিয়েছেন। ডিপার্টমেন্ট ফর হজ এ্যান্ড ওমরাহ এ্যাট দি রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাপরিচালক ড. খালেদ আল হাবসি জানান, আহতদের দ্রুত উদ্ধার ও হাসপাতালে পাঠাতে ৬৪ মেডিক্যাল টিম কাজ করছে। হাসপাতালগুলোতে আহতদের রক্তদানের জন্য স্বেচ্ছাসেবী বহু মানুষ ভিড় করছে।

সৌদি গেজেট জানায়, শুক্রবার মক্কায় গত এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝড়সহ বৃষ্টির কারণে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। প্রবল বাতাস, বজ্রপাত ও বর্ষণে যানবাহন ভাসিয়ে নিয়ে গেছে। বড় বড় রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মক্কা ও আশপাশের অনেক রাস্তায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তাঘাট দ্রুত মেরামতে কর্তৃপক্ষ কাজ করছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঘোষণা ॥ সৌদি আরবের বাংলাদেশ দূতাবাসের বরাদ দিয়ে ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, মসজিদ আল হারামের সংস্থার কাজের ক্রেইন দুর্ঘটনায় ১০৭ জন নাগরিক নিহত হয়েছেন। আর আহত হয়েছেন ২৩৮ জন। শুক্রবার রাতে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। তবে দুর্ঘটনায় কোন বাংলাদেশী নাগরিক, হজযাত্রী অথবা শ্রমিক নিহত হননি। এ সময় কয়েকজন বাংলাদেশী নাগরিক আহত হয়েছেন। তাদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেয়া হয়। তবে অধিকাংশ আহত ব্যক্তিকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে মুক্তি দেয়া হয়। আহতদের মধ্যে কারও অবস্থাই গুরুতর নয় বলে জানিয়েছে সৌদি দূতাবাস।

সৌদি আরবের এই দুর্ঘটনার জন্য দেশটির সরকারের নিকট শোকবার্তা পাঠিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীও শোকবার্তা পাঠিয়েছেন বলে জানানো হয়েছে। রিয়াদে বাংলাদেশ দূতাবাস, জেদ্দার বাংলাদেশ কনস্যুলেট অফিস ও মক্কায় বাংলাদেশ হজ অফিস থেকে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ক্রেন দুর্ঘটনার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশী নাগরিকদের সহায়তা দেয়ার জন্য বেশ কয়েকটি মোবাইল নাম্বার দিয়েছে দূতাবাস। বাংলাদেশী নাগরিকদের বিষয়ে কোন তথ্য জানতে চাইলে বাংলাদেশ হজ অফিসের কনস্যুলার জহিরুল ইসলাম (মোবাইল +৯৬৬(০) ৫০৪৩২১৫ ২৭), জেদ্দা কনস্যুলেট অফিসের ফার্স্ট সেক্রেটারি (শ্রম) আলতাফ হোসেনের (মোবাইল +৯৬৬(০) ৫৩৪৪৫৫৭১৬) সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।