১৬ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের ফের সড়ক অবরোধ

ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের ফের সড়ক অবরোধ

অনলাইন রির্পোটার ॥ ফের ঢাকার বিভিন্ন স্থানে সড়ক অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা । বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ওপর আরোপিত ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবি আদায়ের জন্য সড়ক অবরোধ করেছে তারা।

জিগাতলার উত্তর পাশে ইউল্যাব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মিছিলের কারণে সাত মসজিদ রোডের রাস্তার একপাশ আটকে গেছে। ধানমন্ডি ১৫ নম্বর সড়কে স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নিজেদের ক্যাম্পাসের সামনে অবস্থান নিয়ে আছে। আর শংকর পেরিয়ে ২৭ নম্বর সড়কের দুই মাথায় জড়ো হয়ে আরও কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা রাস্তা আটকে মিছিল করছে। ফলে মোহাম্মদপুর থেকে জিগাতলার দিকে এবং শংকর থেকে মিরপুর রোডে চলাচলের পথ বন্ধ রয়েছে।

ধানমন্ডিতেই অন্তত ১২টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে, যেসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ভ্যাটবিরোধী এই আন্দোলনে রয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে সাত মসজিদ রোডের গাড়ি রাসেল স্কয়ার ও পান্থপথ দিয়ে বের করে দিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করছে ট্রাফিক পুলিশ।

এছাড়া জনভোগান্তি কমাতে বাড্ডা থানা মোড় থেকে হাতিরঝিল, বাড্ডা থেকে গুলশান ১ হয়ে হাতিরঝিল, রামপুরা থেকে হাতিরঝিলে তিনটি ডাইভারশন তৈরি করা হয়েছে বলে ট্রাফিক পুলিশের সহকারী কমিশনার (উত্তর) আবু ইউসুফ জানান।

উত্তরার আবদুল্লাহপুর, প্রগতি সরণীর মেরুল ও রামপুরা, কাকলীতে বিমানবন্দর সড়ক, মহাখালীতে গুলশানমুখী সড়ক এবং ধানমণ্ডির কয়েকটি অংশে শিক্ষার্থীদের অবরোধ ও বিক্ষোভের ফলে যানচলাচল বন্ধ হয়ে শুরু হয়েছে জনভোগান্তির।

রবিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আফতাবনগরের ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাস থেকে বেরিয়ে এসে রামপুরা ব্রিজ ও মেরুল বাড্ডার মধ্যবর্তী সড়ক অবরোধ করে। ফলে রামপুরা থেকে প্রগতি সরণী ও রামপুরা থেকে মৌচাকমুখী সড়কে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

মেরুল বাড্ডার বাঁশ পট্টি থেকে বাঁশ নিয়ে আন্দোলনকারীরা রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়েছে । সেখানে কর্তব্যরত এসআই মেহেদী মাকসুদ বলেন, “আমরা সকালে অনুরোধ করেছিলাম সড়ক অবরোধ করে ভোগান্তিতে ফেলবেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে অবস্থান নিন। তবে তারা আমাদের কথা শোনেনি।”

আন্দোলনে থাকা ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী মোহাম্মদ রায়হান বলেন, “আমরা সড়ক অবরোধ করেছি, তবে যেসব শিশু স্কুলে যাচ্ছে, বৃদ্ধ বা অসুস্থ যারা এম্বুলেন্সে যাচ্ছেন; সংবাদকর্মী, প্রতিবন্ধী- তাদের আমরা যেতে দেব।”

ইস্ট ওয়েস্টের পরপরই সাউথ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বনানীর কাকলী মোড়ে মিছিল শুরু করে। এর ঘণ্টাখানেক পর সেখানে এলোপাতাড়ি কয়েকটি বাস রেখে তৈরি করা হয় ব্যারিকেড। ফলে বিমানবন্দর সড়কেও যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

মহাখালীর ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রথমে তাদের ক্যাম্পাসের সামনে রাস্তা আটকে পরে মিছিল নিয়ে গুলশান ১ এর দিকে অগ্রসর হয়। ফলে গুলশান ১ থেকে মহাখালীর পথেও যান চলাচল বাধাগ্রস্ত হয়।

আবদুল্লাহপুর ও হাউজ বিল্ডিংয়ে শিক্ষার্থীদের অবরোধের কারণে টঙ্গীর দিক থেকে যাতায়াত বন্ধ হয়ে গেছে। সেখানে আন্দোলনে দেখা গেছে আইইউবিএটি, উত্তরা ইউনিভার্সিটি ও বিইউএফটি’র শিক্ষার্থীদের।

ট্রাফিক পুলিশের উপ কমিশনার প্রবীর কুমার রায় বলেন, “হাউজ বিল্ডিং এলাকায় রাস্তা অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা বসে আছেন। ওই এলাকায় গাড়ি চলতে পারছে না।”

নির্বাচিত সংবাদ