২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নিরস্ত্র বলেই কি অপমানিত হতে হবে?

  • মুনতাসীর মামুন

অর্থমন্ত্রী বোঝাতে চেয়েছেন, বেতন স্কেলের পুরো বিষয়টা শিক্ষকরা বুঝতে পারেননি। কিন্তু সেটা বোঝাতে গিয়ে হয়ে গেছে শিক্ষকদের সামষ্টিক অজ্ঞতা। এতে শিক্ষকদের ক্ষুব্ধ হওয়ার যথেষ্ট কারণ আছে। কারণ, অজ্ঞতা যদি আমাদের ভূষণ হয় তাহলে শিক্ষকতার ভিত্তিটাই থাকে না। গতকালের পর আজ পড়ুন শেষ কিস্তি...

এএমএ মুহিত আমার শ্রদ্ধার পাত্র হলেও বলতে হচ্ছে, দ্বিতীয় ভাগে তিনি যা বলেছেন তা আপত্তিকর। কেননা, সামষ্টিকভাবে আমরা যদি ‘করাপ্ট’ হই তা’হলে সামষ্টিকভাবে ‘মন্ত্রী’, ‘আমলা’ ও ‘রাজনীতিবিদরা’ও করাপ্ট। তিনি শিক্ষকদের করাপ্ট বলবেন, অন্যদের বলবেন না কেন? আমি বিভিন্ন জনের কাছে যা শুনেছি ও জনাব মুহিতের যে বক্তব্য পত্রিকায় ও টিভিতে এসেছে তাতে বুঝেছি, অভিযোগটা হলো প্রফেসরের সংখ্যা এত বেশি কেন? এবং এই যে প্রফেসরের সংখ্যা বেশি তাই হলো ‘করাপ্ট প্র্যাকটিস’।

এখানে বলে রাখা ভাল, আমলাদের সামরিক-বেসামরিক যে ধরনেরই হোক না কেন, তাদের প্রমোশনের ক্ষেত্রে নিজস্ব রীতিনীতি মানা হয়। সেখানে নিশ্চয় অন্যদের ক্ষেত্রে যা প্রযোজ্য, তা’ হবে না। জনপ্রশাসন সচিব নিশ্চয় সামরিক আমলাদের প্রমোশন নির্ধারণ করেন না, বঙ্গবন্ধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (বা পরবর্তীকালে সমূহের জন্য) জন্য যে আইন দিয়ে গেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তার দ্বারা পরিচালিত। প্রমোশনেরও নিয়ম-কানুন আছে। যেটি বলা যায়, তা হলো, এই নীতি অনেক ক্ষেত্রে শিথিল করা হয়। তারপরও কথা থাকে। সিন্ডিকেট হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী কমিটি। সিলেকশন বোর্ডের সুপারিশ সিন্ডিকেটে যায়। সিলেকশন কমিটিতে প্রেসিডেন্ট/চ্যান্সেলরের প্রতিনিধি থাকেন। সিন্ডিকেটে সরকার ও চ্যান্সেলরের প্রতিনিধি থাকেন। এবং উপাচার্য সিন্ডিকেটের সভাপতি। উপাচার্য এখন রাজনৈতিক নিয়োগ অর্থাৎ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দ্বারা সুপারিশকৃত ও চ্যান্সেলর দ্বারা অনুমোদিত। যেখানে নীতিমালা শিথিল করা হচ্ছে সেখানে তারা বাধা দেন না কেন? বিশ্ববিদ্যালয়ের পদোন্নতি তো সাধারণ শিক্ষকরা দেন না। এর জন্য অবশ্য দায়ী সরকার নিযুক্ত উপাচার্য ও সদস্যবৃন্দ। ‘করাপ্ট প্র্যাকটিস’ যদি হয়ে থাকে তাহলে দায় তাদের। তারপরও অনেক শিক্ষক এবং আমি একজন সিনিয়র অধ্যাপক এই জনকণ্ঠে বার বার লিখেছি, এখন সময় এসেছে সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিদের বসে এই আইনের কিছু কিছু ধারা সংশোধন করে সময়োপযোগী করা। এসব ব্যবস্থা না নিয়ে ঢালাও অভিযোগ করা কতটা যুক্তিযুক্ত?

আরও আছে। ঔপনিবেশিক আমলে শিক্ষা নীতির বৈশিষ্ট্য ছিল সঙ্কোচন। সারা বিভাগে একটি হয়ত প্রফেসরের পদ। একজন সেই পদে গেলে তার অবসর না নেয়া পর্যন্ত কোন যোগ্য ব্যক্তি প্রমোশন পেতেন না। সহযোগী, সহকারীর ক্ষেত্রেও তাই ছিল। ড. শহীদুল্লাহর মতো প-িত প্রফেসর হতে পারেননি। এটি কি খুব গৌরবের কথা, না ন্যায্য বিচার? এখন যোগ্যতা অর্জন করলে প্রফেসরের পদ না থাকলে আপগ্রেডেশন করা হয়। হ্যা, এই ক্ষেত্রে অনেক সময় ছাড় দেয়া হয়; কিন্তু সিন্ডিকেট তাতে বাধা দেয় না কেন? যেমন, আমার পদটি সহকারী অধ্যাপকের পদ। সহযোগী ও অধ্যাপকের পদ না থাকায় আমি ঐ পদ্ধতিতে প্রফেসর হয়েছি। আমি অবসর নিলে সেটি আবার সহকারী অধ্যাপকের পদ হয়ে যাবে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে কিন্তু পররাষ্ট্র সচিব একজন। অনেক রাষ্ট্রদূত কি সচিবের যোগ্যতা অর্জনের পর সচিব হচ্ছেন না? অনেক সংখ্যক প্রফেসর যদি চক্ষুশূল হয় তা’হলে প্রশ্নÑ সচিবালয়ে সচিব/অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম সচিবের পদ কয়টি এবং সেখানে অতিরিক্ত সচিব/যুগ্ম ও উপসচিব কয়জন আছেন? এ আমলে কি ঢালাও প্রমোশন তাদের হয়নি? মাননীয় অর্থমন্ত্রী কি সেটিকে ‘করাপ্ট প্র্যাকটিসের অন্তর্গত করবেন?’ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে কেউ অপরাধ করলে এবং তা প্রমাণিত হলে শুধু শাস্তি নয়, চাকরিচ্যুত হন। সরকারী কর্মচারীদের [রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকসহ] দুর্নীতির খবর প্রতিদিন পত্রিকার পাতায় দেখি [বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নয়], তাদের কারও বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে? এমনকি সোনা জালিয়াতি প্রমাণের পরও? ব্যাংকের কয়জন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার ক্ষেত্রে ব্যবস্থা নেয়া গেছে। এসব প্রশ্ন আসবে। আরও আসবে ধানম-ি থেকে শুরু করে গুলশান-বনানী-বারিধারা এমনকি নতুন আবাসিক এলাকাগুলোতে ক’জন সরকারী কর্মচারী [উপসচিব থেকে সচিব] জমি পেয়েছেন ও বাড়ি করেছেন আর ক’জন শিক্ষক করেছেন? সামরিক কর্মকর্তাদের যে পাকিস্তানের মতো প্রায় সবাইকে জমি দেয়া হয় নামমাত্র মূল্যে তা কতজন শিক্ষককে দেয়া হয়? এগুলো কোন্ ধরনের প্র্যাকটিসের মধ্যে পড়ে? সুতরাং, ঐসব কথা না তুললে ভাল।

যোগ্যতার প্রশ্নটিও আকার ইঙ্গিতে তোলা হয়েছে। বাস্তব যে পরিস্থিতি তাতে যোগ্যতার পুরনো মাপকাঠি মার খাচ্ছে। কেন মার খাচ্ছে, আমাদের প্রভুরা তা ভাল জানেন। আমরা কখনও বলিনি, বিশ্ববিদ্যালয়ে সবাই যোগ্য। কিন্তু ন্যূনতম যোগ্যতা সবার আছে। তারপরও দেখা যায়, কারও কারও গবেষণা ভাল, কারও শিক্ষকতা ভাল, কারও বা আছে প্রশাসনিক দক্ষতা। আমলাতন্ত্রেও তো তাই। মাননীয় অর্থমন্ত্রী কি আমলাদের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেননি। বছর কয়েক আগে মানবজমিনে অর্থমন্ত্রীর এ সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট ছাপা হয়েছিল। বাংলায় একটি খসড়া স্বল্প সময়ে একজন কর্মকর্তা লিখতে যে কত কসরৎ করেন তা আমাদের জানা নেই বললে ভুল হবে। এই যদি হয় অবস্থা তা’হলে তাদেরই বা বেতন বৃদ্ধির দরকার কি? সুপার স্কেলেরই বা দরকার কী? সে জন্য বলি প্যানডোরার বাক্স না খুললেই ভাল।

তিন.

এই জনকণ্ঠেই কয়েক সপ্তাহ আগে লিখেছিলাম, একেকটি বিশ্ববিদ্যালয় কীভাবে গড়ে উঠেছে এবং কেন সমাজ আমলাদের থেকে বিশ্ববিদ্যালয়কে মর্যাদা দেয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বলি। যত গালাগাল আমাদের দেন অসহায় সময়ে আমরাই ভরসা। বাংলাদেশের ওপর সামরিক-বেসামরিক আমলাতন্ত্রের অধিকার আছে, ঋণখেলাপীদের অধিকার আছে, বণিকদের অধিকার আছে, আমাদের থাকবে না? আমি আগেও বলেছি, এখনও বলছি, এবং জোর গলায় বলছি, যখন সৈনিকদের মার খেয়ে আমরা রক্তাক্ত, তখন অধিকাংশ মন্ত্রীকে আমরা পথে দেখিনি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জেলে থাকার কারণে তা জানতে না পারেন, কিন্তু পত্রিকা দেখুন। তখন শুধু গণমাধ্যম বঙ্গবন্ধুর দুঃখিনী কন্যার পাশে ছিলেন। এবং তারা কোন পুরস্কার চাননি। কিন্তু আমলাতন্ত্র চেয়েছে। পেয়েছেও। আমরা কি তার বিরোধিতা করেছি? সার্কভুক্ত অধিকাংশ দেশে শিক্ষকদের স্বতন্ত্র বেতন কাঠামো থাকলে আমাদের দেশে কেন তা হতে পারে না। আমি তো মনে করি কৃষিবিজ্ঞানীদের জন্য আলাদা পে-স্কেল থাকা উচিত এবং আমাদের চেয়ে বেশি বেতন পাক তারা। গত দু’দশকে বাংলাদেশকে তারা কোথায় নিয়ে গেছেন!

সার্ক দেশে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে জিডিপির সবচেয়ে কম অংশ দেয়া হয় বাংলাদেশে। বাংলাদেশে সামরিক বাহিনীর উন্নয়নে গত ২০ বছরে এবং এ সরকারের আমলে কত খরচ হয়েছে আর উচ্চশিক্ষার পেছনে কত খরচ হয়েছে। আমাদের মতো নিরস্ত্রদের অর্থমন্ত্রী অবশ্যই চাবকাতে পারেন। প্রকাশ্যে পারবেন না, বাজেটেও দেখি উত্তরের বাজেট হ্রাসের ক্ষমতা রাখেন কিনা? বা এ্যাকাউনট্যাবিলিটি?

মাননীয় অর্থমন্ত্রী মর্যাদার প্রশ্ন তুলেছেন। একটি দেশ সভ্যতার নিরিখে কতোটা এগুলে তা নির্ধারিত হয় সে দেশের শিক্ষকদের সঙ্গে কী ধরনের ব্যবহার করা হয় তা দিয়ে। আজ ভারতে একজন স্কুল শিক্ষকের বেতন আমাদের কলেজ শিক্ষকদের থেকে কম নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের কথা বাদ দিলাম। শ্রীলঙ্কা, নেপাল, ভুটান, এমনকি পাকিস্তান? এবং বাংলাদেশ থেকে তারা পিছিয়ে নেই। ইউএনডিপির অর্থনীতিবিদ মাহবুবুল হক একসময় বলেছিলেন, স্কুল শিক্ষক আর দারোয়ানের বেতন যদি এক হয় তাহলে সেই দেশে দারোয়ানী শিক্ষাই হয়।

সরকার গ্রেড অনুযায়ী রাষ্ট্রে মর্যাদা ঠিক করছেন। সে ক্ষেত্রেই মর্যাদার প্রশ্ন আসছে। সচিব আর অধ্যাপক সমতুল্য হোকÑ এই বিবেচনা আমাদের নয়। সর্বোচ্চ গ্রেডই দাবি। কেননা তাই বহাল ছিল। যদি নাও থাকে দিতে কার্পণ্য কেন? কারও ব্যক্তিগত টাকা কি খরচ হচ্ছে? যে রাষ্ট্র শিক্ষকদের গালাগাল করে সে রাষ্ট্র আর যাই হোক তা ভব্য রাষ্ট্র হিসেবে পরিগণিত হয় না।

আমরা কেউ ফেরেশতা নই। আমলাতন্ত্রে, সামরিক-বেসামরিক আমলাতন্ত্রে এমন অনেক আছেন, যারা আমাদের থেকে ভাল জানেন এবং যোগ্য। তেমনি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিকাংশ জানেন শোনেন নিজ বিষয়ে এবং যোগ্য। ঘাটতি সব পেশায়ই আছে। জোর করে সশস্ত্ররাই আমাদের পদানত করতে পারেনি আর অন্যরা পারবে? বিশ্ববিদ্যালয়ে যিনি হাত দিয়েছেন তার হাতই পুড়েছে। সবচেয়ে বড় কথা, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাপ না থাকলে আমলা হওয়া যাবে? আমরাই যদি অযোগ্য হই তাহলে প্রতিবছর যারা আমলাতন্ত্রে যাচ্ছে তারা আমাদের থেকে যোগ্য হয় কীভাবে?

প্রধানমন্ত্রী অনেক দুর্যোগ পেরিয়ে একটি স্থিতিশীল অবস্থার সৃষ্টি করেছেন। সেখানে জেদ করে, ভুল ব্যাখ্যা করে, ভুল তথ্য দিয়ে বিভিন্ন পক্ষ সৃষ্টি করার অর্থ কী? আমলাতন্ত্র যা বোঝাবে একজন রাজনীতিবিদকে তাই বুঝতে হবে?

আমি আগেই বলেছি, অর্থমন্ত্রীর প্রতি আমাদের কোন বিদ্বেষ নেই। বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক অধ্যাপক থেকে তার বইয়ের সংখ্যা বেশি, গুণগত দিক থেকেও। তিনিইতো বুঝদার হবেন আমাদের অনেক ‘অজ্ঞান’ ব্যক্তি থেকে। ব্যক্তিগতভাবেও তো তিনি সৎ যা তার বিশেষ মূলধন। তাহলে তিনি কেন এ রকম জেদ ধরবেন যা এক অশান্ত রাজনৈতিক পরিস্থিতির সৃষ্টি করবে। এবং এর সুযোগ অনেকে নেবে স্বাভাবিকভাবেই বিশেষ করে বিরোধীরা। জনাব হান্নান শাহ ইতোমধ্যে শিক্ষকদের দাবি সমর্থন করে সরকারকে জ্ঞান বিতরণ করেছেন। কই ১৪ দলের কেউ তো বললেন না, তার সময়ে শিক্ষকদের গ্রেফতার করে লাঞ্ছনা করা হয়েছে। শেখ হাসিনার আমলে অন্তত তা তো হয়নি। এ লেখা যখন শেষ করছি তখন অর্থমন্ত্রী ভুল স্বীকার করে তাঁর বক্তব্য প্রত্যাহার করেছেন, যদিও মূল বিষয় একই থেকে যাচ্ছে। ভুল স্বীকার করা মহত্ত্বের লক্ষণ। আশা করি অর্থমন্ত্রীর বক্তব্য নিয়ে আর বিতর্ক হবে না।

আমি ক’দিন আগে ক্লাসে গেছি, এক ছাত্র বলে উঠল, আমরা স্যার আপনাদের দাবি সমর্থন করি। বললামÑ ভাল, কিন্তু সেদিকে নজর না দিয়ে ক্লাসের দিকে নজর দাও। শিক্ষক-ছাত্রের মধ্যে একটা অদৃশ্য বন্ধন আছে আগে যা ছিল খুব দৃঢ়, এখন তা শিথিল। আমাদের শিক্ষকদের হত্যা করেছিল নিজামী ও মুজাহিদের আলবদর বাহিনী। চার দশক মাটি কামড়ে পড়ে আমরা তাদের বিচার চেয়েছি। শিক্ষকের অমর্যাদা হচ্ছে যদি ছাত্ররা এটি অনুধাবন করে তাহলে অবস্থা গুরুতর হবে। এক দুপুরে বেসরকারী কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররাই অচল করে দিয়েছিল ঢাকা শহর। সেখানে তো অনেক আমলার ছেলেও ছিল। পরিস্থিতি নিছক দাবি থেকে এখন রাজনৈতিক হয়ে উঠতে পারে। আমরা অবশ্যই তা চাই না। সরকারে অনেকে ক্ষুব্ধ হতে পারেন শিক্ষকদের ওপর, কিন্তু আগে এটি বিবেচনা করা দরকার শিক্ষকদের দাবি ন্যায্য কিনা। এবং ন্যায্য হলে কেন তা মেটানো হবে না? মুক্তিযুদ্ধের সরকার কোন একটি গ্রুপের জন্য বিপদে পড়ুক তা নিশ্চয় আমরা চাই না।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কিছুই বলেননি, আম্পায়ারের ভূমিকায় আছেন। তিনি আউট দিলে শিক্ষকরা তা মেনেও নেবেন এবং বিশ্বকাপে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা [ভারতের বিরুদ্ধে] যেমন প্রতিবাদ না করে বেদনাহতভাবে ফিরে এসেছিল প্যাভিলিয়নে, সেভাবে বেদনাহতভাবে হয়ত ফিরে যাবে; কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি বিপর্যস্ত হবে যার অভিঘাত তীব্র হবে। এবং যে ক্ষতের সৃষ্টি হবে তা উপশম করা সম্ভব নাও হতে পারে। এটি আমাদের সবার বিবেচনায় রাখতে হবে।

আজ রাষ্ট্রে ক্ষমতাধর সশস্ত্ররা। ব্যাপক অর্থে তা ব্যবহার করছি। যেমন ভূমিদস্যু বা ঋণখেলাপীরা, আমলারা, এমনকী স্থানীয় ক্ষেত্রে সরকার সমর্থক রাজনীতিবিদরা। তাদের কোন সমালোচনা মন্ত্রীরা করতে পারেন বা পারবেন এত তীব্রভাবে! বেতন স্কেল না হলে নাই দেবেন। সর্ব অর্থে আমরা নিরস্ত্ররা হয়ত কিছুই করতে পারব না বা হয়ত কিছুই করব না। কিন্তু নিরস্ত্র বলেই কি আমাদের অপমান করার অধিকার সবার থাকবে?