১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সম্পাদক সমীপে

  • হাতিরঝিলে বৃক্ষরোপণ

রাজধানীর হাতিরঝিল এখন অনেকের কাছেই বেশ পরিচিত। জলাধারের দু’পাশের রাস্তা পূর্ব-পশ্চিমের যাতায়াত সহজ করেছে, নিকটবর্তী অধিবাসীদের প্রাতঃভ্রমণের সুন্দর সুযোগ এবং পরিবেশ তৈরি হয়েছে, ব্যস্ত রাস্তার অস্থিরতাকে পাশ কাটিয়ে সকাল, দুপুর আর বিকেলে হাজারও মানুষ খোলা জায়গায় দাঁড়িয়ে জলের ঢেউ দেখেÑ সময় কাটায়। ইট-পাথরের শহরে এসব তো তাদের কাছে অনেক পাওয়া। সংশ্লিষ্ট নীতিনির্ধারকদের সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিনয়ের সঙ্গে জানাচ্ছি, হাতিরঝিলকে ঘিরে এমন সব বাছাই করা বৃক্ষরোপণ করা উচিত যা বছরের কিছুটা সময় ফুলে-ফলে ভরে উঠবে, চিরসবুজ বৃক্ষ যা ছায়া দেয়ার পাশাপাশি দর্শকদের নজরও কাড়বে।

লক্ষ্য করা যাচ্ছে, সেখানে অসংখ্য মেহগনি, রেইন্ট্রি (কড়ই) এবং এ জাতীয় অন্যান্য গাছ রোপণ করা হয়েছে। বৃক্ষ এবং সৌন্দর্যÑ এ দুটিই আমাদের দরকার। অনেক অর্থ ব্যয়ের পরও কিছু কিছু প্রকল্প যখন কাক্সিক্ষত ফল দেয়নি তখন কিছু বিজ্ঞজনকে বলতে শুনেছি কাজটি এমনভাবে করা ঠিক হয়নি, কাজটি করার আগে আরও ভাবার প্রয়োজন ছিল ইত্যাদি। সে রকম আশঙ্কা থেকেই ওই সকল বৃক্ষের চারা বড় হওয়ার আগেই দ্রুত অপসারণ এবং বাছাই করা বৃক্ষ রোপণ করা যায় কিনা তা ভেবে দেখার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি বিনীত অনুরোধ রইল।

তসলিমুল ইসলাম চৌধুরী

খিলগাঁও, ঢাকা

পদ্মা সেতু নামকরণ

১৯৪৭ সালে আমাদের এ ভূখ-টি ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত হয়ে পাকিস্তানের শাসনাধীন হওয়ার পর পাকিস্তান সরকারের বৈষম্যমূলক আচার-আচারণের প্রতিবাদে তখনকার তুখড় ছাত্রনেতা শেখ মুজিব বলেছিলেন, পাকিস্তানই শেষ নয়, আরও আছে। ১৯৬৯ সালে সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যুবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বিপ্লবী রাজনীতিক শেখ মুজিবুর রহমান বলেন, এখন থেকে এই দেশের নাম হবে বাংলাদেশ। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ তাঁর ঐতিহাসিক ভাষণে বলেনÑ আর যদি একটা গুলি চলে, যার কাছে যা আছে তাই নিয়ে হানাদারদের মোকাবেলা করিও, আমি যদি হুকুম দেবার নাও পারিÑ রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরও দেব, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রামÑ জয় বাংলা।

২৫ মার্চ মধ্যরাতে পাকিস্তান সেনাবাহিনী অপারেশন সার্চলাইট শুরু করলে স্বাধীনতাপ্রিয় দেশবাসী ইতোপূর্বে ৭ মার্চ প্রদত্ত বঙ্গবন্ধুর আদেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। নয় মাস মরণপণ যুদ্ধ করে ১৬ ডিসেম্বর বিকেলে স্বাধীনতার রক্তিম সূর্য ছিনিয়ে আনা হয়। শহর, বন্দর, গ্রামে, নদী, সাগরে অস্ত্র হাতে যারা হানাদারদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছেন তাঁরাই মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযোদ্ধারা জাতির মহান সন্তান, তাই মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি রক্ষার্থে ‘পদ্মা সেতুর’ নাম ‘মুক্তিযোদ্ধাদের আন্তর্জাতিক সেতু’ নামকরণের প্রস্তাব রাখছি।

মুর্শেদ উদ্দিন বাদশা মিয়া

চকবাজার, ঢাকা