১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিক্ষার্থীদের অবরোধ বিক্ষোভে স্থবির রাজধানী, জনদুর্ভোগ

শিক্ষার্থীদের অবরোধ বিক্ষোভে স্থবির রাজধানী, জনদুর্ভোগ
  • শিক্ষকদের কর্মবিরতিতে অচল পাবলিক ভার্সিটি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভ্যাট আরোপ ও নতুন বেতন কাঠামোকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট অস্থিরতা জটিল আকার ধারণ করেছে। সঙ্কট নিরসনে উদ্যোগ না নেয়া, সরকারের কর্তাব্যক্তিদের একেক সময় একেক রকম বক্তব্য ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীর অনড় অবস্থানে রীতিমতো অরাজকতা ছড়িয়ে পড়েছে সকল পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে। ভ্যাট আরোপকে কেন্দ্র করে রবিবারও রাস্তা অবরোধ ও বিক্ষোভে স্থবির হয়ে পড়ে রাজধানী। বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে দুটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়। আন্দোলনকারীদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন সাংবাদিক। রাজপথ দখল করে বিক্ষোভ করায় যানজটে চরম দুর্ভোগের শিকার সাধারণ মানুষ। একই সঙ্কট চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সিলেটেও।

এদিকে বেতন স্কেলে মর্যাদাহানির অভিযোগে শিক্ষকদের কর্মবিরতিতে অচল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ও। শিক্ষকরা ঘোষণা দিয়েছেন, অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে কোন আলোচনা নয়। প্রধানমন্ত্রী উদ্যোগ না নিলে আন্দোলন থেকে শিক্ষকরা এক ইঞ্চিও সরবেন না। রবিবারের আগে বৃহস্পতিবারও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনে দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে রাজধানীবাসীকে। শিক্ষার্থীদের একটি অংশ এখন আন্দোলনে না থাকলেও অপর দুই অংশের ডাকে রবিবার সকাল থেকেই স্ব স্ব ক্যাম্পাসে মিছিল-সমাবেশ করে শিক্ষার্থীরা। এর পর একে একে বের হয়ে রাজধানীর অন্তত ৮টি পয়েন্টে গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা দখল করে সমাবেশ-মিছিল করেছে তারা। এ সময় আন্দোলনকারীদের কারণে সাধারণ মানুষের চরম দুর্ভোগ হলেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ছিল অত্যন্ত নমনীয়।

সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন, চরম জনদুর্ভোগ ॥ ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে গুলশান, বনানী, বারিধারা, ধানম-ি, উত্তরা ও রামপুরাসহ রাজধানীজুড়ে সড়ক অবরোধ করে সকাল থেকে বিক্ষোভ করছেন শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীরা স্ব স্ব বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে উপস্থিত হয়ে সোয়া ১০টার পর রাজপথে নেমে বিক্ষোভ শুরু করেন। দাবি আদায়ে ‘লাখো ছাত্রের একই স্বর, ভ্যাট দেবো না গুলি কর’, ‘নো ভ্যাট অন এডুকেশন’, ‘শিক্ষাই জাতির মেরুদ- হলে, ভ্যাট কেন?’ ইত্যাদি সেøাগান দিয়েছেন তারা। প্রথমে রামপুরা ব্রিজ থেকে মেরুল বাড্ডা পর্যন্ত সড়কে নেমে অবরোধ শুরু করেন ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা। এর পর বারিধারায় যমুনা ফিউচার পার্ক সংলগ্ন সড়কে নেমে বিক্ষোভ শুরু করেন নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা। উত্তরা হাউস বিল্ডিং এলাকার সড়কে নেমে বিক্ষোভ শুরু করেন উত্তরা, এশিয়ান, শান্তা মারিয়াম, বিজিএমইএ, আইইউবিএটি ও ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির উত্তরা শাখার শিক্ষার্থীরা। কলাবাগান থেকে শংকর পর্যন্ত সড়কে ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটি, গুলশান ২ নম্বর মোড়ে মানারাত ইন্টারন্যাশনাল, প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি, শিকদার ও শাহাবউদ্দিন মেডিক্যাল কলেজ এবং বনানীতে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (এআইইউবি), সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটি, রয়্যাল ইউনিভার্সিটি ও সিটি ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের কারণে এসব এলাকার সড়কে যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। এতে দুঃসহ ভোগান্তিতে পড়েন কর্মস্থলমুখী মানুষ। অনেককে রিকশা-সিএনজি ভাড়া করে ভেঙ্গে ভেঙ্গে এমনকি হেঁটে কর্মস্থলের উদ্দেশে রওনা দিতেও দেখা গেছে। বনানী মোড়ে এআইইউবি, সাউথ ইস্ট ইউনিভার্সিটি, রয়্যাল ইউনিভার্সিটি ও সিটি ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করায় মহাখালী ফ্লাইওভারের জাহাঙ্গীর গেট সংলগ্ন অংশ থেকে বনানী ফ্লাইওভার পর্যন্ত সড়কে যান চলাচল প্রায় বন্ধ ছিল সারাদিনই। নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে প্রগতি সরণিতে অবস্থান নেন। তারা সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বাস সড়কে আড়াআড়িভাবে রেখে তার ওপর অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন সেøাগান দিয়েছেন। বিভিন্ন দাবিতে লেখা এ সেøাগানের মধ্যে ছিল, ‘লাখো ছাত্রের একই স্বর, ভ্যাট দেবো না গুলি কর’, ‘নো ভ্যাট অন এডুকেশন’, ‘শিক্ষাই জাতির মেরুদ- হলে, ভ্যাট কেন?’ ইত্যাদি। এখানে শিক্ষার্থীদের অবস্থানের কারণে কুড়িল থেকে নতুন বাজার পর্যন্ত সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

কলাবাগান থেকে শংকর অভিমুখে বিক্ষোভে নামেন ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা। ওই এলাকার সড়ক অবরোধ করে অবস্থান নেন তারা। শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের কারণে সায়েন্স ল্যাবরেটরি থেকে গাবতলীমুখী মিরপুর রোড, ঝিগাতলা থেকে মোহাম্মদপুরমুখী রোড এবং নিউমার্কেট ও শাহবাগমুখী সড়ক পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। গুলশান ২ নম্বর মোড়ে মানারাত ইন্টারন্যাশনাল, প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটি, শিকদার ও শাহাবউদ্দিন মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করেন। তাদের অবস্থানের কারণে এ মোড় ঘিরে থাকা সব সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তবে, আন্দোলনকারীরা হজযাত্রী, রোগী, স্কুল শিক্ষার্থী বহনকারী গাড়ি চলাচলে বাধা দেয়নি। উত্তরায় সড়কে বিআরটিসির বড় একটি বাস আড়াআড়িভাবে রেখে বিক্ষোভ করেছেন উত্তরা ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীরা। এসময় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের কুশপুতুলও পোড়াতে দেখা গেছে।

রাজধানীর প্রতিটি সড়কে দীর্ঘ সময় ধরে যান চলাচল বন্ধ থাকায় আন্দোলনের ধরন নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগী মানুষ। দুপুরে রামপুরা ব্রিজের দক্ষিণ পাশ থেকে শত শত মানুষকে রিকশা ও ভ্যানে এবং হেঁটে গন্তব্যে যেতে দেখা যায়। নতুন বাজার থেকে গুলিস্তানগামী লেগুনা বাড্ডা থেকে মেরুল পর্যন্ত এসে অবরোধের কারণে আটকে যায়। সেখানে নেমে নতুন বাহন না পেয়ে বিপাকে পড়েন যাত্রীরা। এই সঙ্কটের মধ্যে রিকশা মিললেও দুই থেকে তিনগুণ পর্যন্ত ভাড়া নেয়া হচ্ছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেছেন। মেরুল বাড্ডার বাঁশপট্টি থেকে বাঁশ নিয়ে এ সড়কের মেরুল অংশে রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়েছিল আন্দোলনকারীরা। সেখানে কর্তব্যরত এসআই মেহেদী মাকসুদ বলেন, আমরা সকালে অনুরোধ করেছিলাম সড়ক অবরোধ করে ভোগান্তিতে ফেলবেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে অবস্থান নিন। তবে তারা আমাদের কথা শোনেনি।

এদিকে দিনশেষে আন্দোলনকারীরা বলেছেন, তাদের আন্দোলন সরকারের বিপক্ষে নয়, সরকারের একটি সিদ্ধান্তের বিপক্ষে। রাজধানীর বারিধারায় প্রগতি সরণি অবরোধ কর্মসূচী সমাপ্তি ঘোষণার আগে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় তারা এ কথা জানান। শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি এখানে বক্তৃতা দেন কয়েক শিক্ষকও। তারা বলেন, শিক্ষার্থীও নয়, বিশ্ববিদ্যালয়ও নয়; কেউই ভ্যাট দেবে না Ñএ দাবি বাস্তবায়নে আন্দোলন চলবে। আমাদের আন্দোলন সরকারের বিপক্ষে নয়, সরকারের একটি সিদ্ধান্তের বিপক্ষে। আন্দোলনকারীরা সহযোগিতার জন্য পুলিশকে ধন্যবাদ জানান ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি ও ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটিসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ধৈর্যের সঙ্গে মোকাবেলা করছে ॥ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন কর্মসূচী আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ধৈর্যের সঙ্গে মোকাবেলা করছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। সচিবালয়ে আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা জানান তিনি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর যেটা বর্তায় সেটা কিন্তু আমরা করছি। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ধৈর্যের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবেলা করছে। তারা (আন্দোলনকারী) যাতে কোন ধরনের যানবাহনের ওপর হামলা না করতে পারেন, ধ্বংসাত্মক কাজে যাতে লিপ্ত না হতে পারেন, সেজন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সেখানে অবস্থান নিয়েছে । ভোগান্তি নিরসনের বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু না বললেও ভ্যাট প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এটা মাননীয় অর্থমন্ত্রীর ব্যাপার।

নর্থ সাউথ ও ইন্ডিপেন্ডেন্ট বন্ধ ঘোষণা ॥ নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি ও ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ (আইইউবি) বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। শিক্ষার ওপর ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের অব্যাহত আন্দোলনের প্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বারিধারায় সড়ক অবরোধ করে দুটি ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মধ্যে বিকেলে এ ঘোষণা এলো। ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ তাদের প্রতিষ্ঠান ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করেছে। আর নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ তাদের প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে আগামীকাল পর্যন্ত। এদিকে আন্দোলনের মধ্যেই আগামী তিন বছর বাড়তি বেতন না বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ বিবৃতি দিয়ে ভ্যাটের টাকা নিজেরাই সরকারকে পরিশোধ করবে বলে জানিয়েছে।

সাংবাদিক লাঞ্ছিত ॥ অবরোধের মধ্যে কয়েক বিদেশীকে গাড়ি থেকে নামিয়ে হেনস্থার ছবি তুলতে গিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের এক জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক। পান্থপথ মোড়ে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের অপরাধবিষয়ক প্রধান প্রতিবেদক লিটন হায়দার হামলার শিকার হন। এ সময় তার মোটরসাইকেলও ফেলে দেয়া হয়। তিনি জানান, সকালে শিক্ষার্থীরা ধানম-ি ২৭ নম্বর সড়কে অবরোধ শুরুর পর থেকেই তিনি সংবাদ সংগ্রহের জন্য ওই এলাকায় ছিলেন। পরে সেখান থেকে পান্থপথ ক্রসিংয়ে সংবাদ সংগ্রহে যান। দুপুরে বসুন্ধরা সিটির সামনে দিয়ে কয়েক বিদেশী চিকিৎসককে বহনকারী একটি গাড়ি স্কয়ার হাসপাতালে যাওয়ার সময় সিটি ইউনিভার্সিটির আন্দোলনকারীদের একটি দল তাদের আটকায়। এর পর তারা বিদেশীদের গাড়ি থেকে বের করে লাঞ্ছিত করে বলে জানান লিটন। এক পর্যায়ে বিদেশী অতিথিরা ছাড়াও ওই গাড়িতে থাকা ছয়জন হেঁটে স্কয়ার হাসপাতালে যান। আন্দোলনকারীরা মোবাইল ফোন থেকে ছবি মুছে ফেলতে বলে এবং ফোনটি কেড়ে নেয়ারও চেষ্টা চালায় বলে তিনি অভিযোগ করেন। পরে তেজগাঁও থানার ওসি মাযহারুল ইসলামসহ কয়েক পুলিশ সদস্য এসে তাকে উদ্ধার করে বলে জানান লিটন। বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন (ক্র্যাব)-এর সিনিয়র সদস্য লিটন হায়দারের ওপর নগ্ন হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে ক্র্যাব নেতৃবৃন্দ। ক্র্যাব সভাপতি ইসারফ হোসেন ইসা ও সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান খান যৌথ বিবৃতিতে ক্র্যাব নেতৃবৃন্দ লিটন হায়দারের ওপর হামলাকারী ওই শিক্ষার্থীদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে অন্যথায় বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়ার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। একইসঙ্গে ভ্যাট প্রত্যাহারের দাবিতে আন্দোলনের নামে গণমাধ্যমকর্মীদের চলাচলে বাধা দেয়ার ঘটনায় ক্র্যাব নেতবৃন্দ উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

আন্দোলন ঢাকার বাইরেও ॥ চট্টগ্রামে বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত নগরীর ওয়াসার মোড়ে সড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা। আজ আবার আন্দোলনের ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা। প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়, বিজিসি ট্রাস্ট বিশ্ববিদ্যালয়, ইস্ট ডেল্টা বিশ্ববিদ্যালয়, পোর্ট সিটি বিশ্ববিদ্যালয়, সার্দার্ন বিশ্ববিদ্যালয়, ইউএসটিসিসহ বিভিন্ন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের এক হাজার শিক্ষার্থী ব্যানার- ফেস্টুন নিয়ে সড়ক অবরোধ করে। শিক্ষার্থীরা ৭.৫ শতাংশ ভ্যাট বাতিলসহ অর্থমন্ত্রীর অপসারণ দাবি করে বিভিন্ন সেøাগান দিতে থাকে।

রাজশাহীতেও বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থীরা। এছাড়া ক্লাস ও পরীক্ষা বন্ধ রেখে ধর্মঘট পালন করছেন তারা। ১১টার দিকে নগরীর কাজলা মোড়ে রাজশাহীর বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান শাখার সামনে এবং পরে তালাইমাড়ী শাখার সামনে বিক্ষোভ করেন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

কর্মবিরতিতে অচল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ও ॥ বেতন কাঠামোতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অবমূল্যায়ন এবং শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন কাঠামোর দাবিতে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা পূর্ণদিবস কর্মবিরতি এবং অবস্থান ধর্মঘট পালন করেছেন। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের আহ্বানে রবিবার সকাল থেকেই দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা এই কর্মসূচী পালন করেন। কর্মসূচী থেকে দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণাও দেয়া হয়েছে। শিক্ষকদের এ কর্মসূচীর কারণে এদিন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস ও পরীক্ষা হয়নি। বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষক নেতারা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে উদ্যোগ না নিলে তারা আন্দোলন থেকে এক ইঞ্চিও সরে আসবেন না এবং অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে তারা কোন আলোচনায় বসবেন না। উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে সম্প্রতি অর্থমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে ফেডারেশনের মহাসচিব অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, আমাদের পর্যবেক্ষণ হচ্ছে বয়স্ক অর্থমন্ত্রী দেশের উচ্চশিক্ষাকে ধ্বংস করতে এবং শিক্ষাঙ্গনকে অশান্ত করার নীলনক্সা বাস্তবায়নে নেমেছেন। আমাদের প্রশ্ন, দেশের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে সাবেক আমলা ও বর্তমান আমলা পক্ষের একজন অর্থমন্ত্রী হয়ে তার পক্ষে বিভ্রান্তিকর তথ্য সংবলিত বক্তব্য দেয়া কী শোভা পায়? উচ্চ শিক্ষাবিরোধী মনোভাবের পরিচয় দিয়ে অথবা উচ্চশিক্ষাকে ধ্বংস করে তিনি কার স্বার্থ হাসিল করতে চাইছেন? প্রশ্ন করেন তিনি।

এ সময় মাকসুদ কামাল আরও বলেন, তারা জেনেছেন, বেতন বৈষম্য বিষয়ক যে কমিটি হয়েছে অর্থমন্ত্রী তার প্রধান। শিক্ষকরা পরিষ্কার করে বলতে চান, এর মধ্যে যিনি শিক্ষাব্যবস্থা ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিপক্ষ হিসেবে নিজেকে দাঁড় করিয়েছেন এবং শিক্ষকদের ব্যাপারে প্রতিহিংসাপরায়ণ বক্তব্য দিয়ে বিতর্কিত হয়েছেন, সেই ব্যক্তির নেতৃত্বাধীন কোন কমিটিই গ্রহণযোগ্য নয়। এ ব্যাপারে আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। এ বিষয়ে একটি নিরপেক্ষ কমিশন গঠনের দাবি জানিয়ে ফেডারেশনের মহাসচিব আরও বলেন, বাস্তবমুখী ও গঠনমূলক পদক্ষেপ না নিলে ঈদের পর কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষণা দেয়া হবে। এ ছাড়া আগামী ১৭ সেপ্টেম্বরও শিক্ষকরা পূর্বঘোষিত কর্মবিরতি পালন করবেন।

ফেডারেশনের সভাপতি ফরিদউদ্দিন আহমেদ বলেন, অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে শিক্ষকরা কোন আলোচনায় বসবেন না। প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আপনি উদ্যোগ না নিলে আলোচনা শুরু হবে না। প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে ‘পাবলিকলি’ শুনতে চাই। নইলে আন্দোলন থেকে এক ইঞ্চিও সরব না।’ আলোচনায় অর্থমন্ত্রী উপস্থিত থাকলে শিক্ষকরা ন্যায় ও সুবিচার পাবেন না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বক্তব্যের এক পর্যায়ে তিনি অর্থমন্ত্রীকে স্বেচ্ছায় অবসরে যাওয়ার আহ্বান জানান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ॥ শিক্ষকদের কর্মবিরতিতে রবিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগ ঘুরে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা বসে আড্ডা ও গল্প করছেন। তারা জানান, শিডিউল ক্লাস থাকলেও শিক্ষকরা ক্লাস নিতে আসেননি। অনেক শিক্ষার্থীই ক্লাস করতে এসে ফিরে গেছেন। এমনিভাবে কোন পরীক্ষাও অনুষ্ঠিত হয়নি।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ॥ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষকরা বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত কলা ও মানবিক অনুষদ ভবনের সামনে অবস্থান ধর্মঘট করেন। এ সময় বক্তব্য দেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি খবির উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মাফরুহী ছাত্তারসহ অনেকে।

এ সময় বক্তারা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার জন্য শিক্ষক ফেডারেশনকে আহ্বান জানান। এদিন বিশ্ববিদ্যালয়টিতে অবস্থান ধর্মঘটের কারণে কোন বিভাগে ক্লাস অনুষ্ঠিত হয়নি।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ॥ ময়মনসিংহে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনিক ভবনের সামনে বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত অবস্থান কর্মসূচী পালন করেন। এ সময় বক্তব্য দেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক খন্দকার শরীফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক আব্দুল্লাহ ইকবাল, সোনালি দলের সভাপতি অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম, গণতান্ত্রিক শিক্ষক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান প্রমুখ।

একইভাবে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়সহ প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়েই আলাদা পরিসরে কর্মবিরতি এবং পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালিত হয়।

আন্দোলনের পরবর্তী বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আন্দোলন আহ্বানকারী সংগঠনের মহাসচিব অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল জনকণ্ঠকে জানান, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আগামী ১৭ সেপ্টেম্বরও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কর্মবিরতি পালন করা হবে। এর পর ঈদের ছুটি শুরু হয়ে যাবে। কিন্তু দাবি পূরণ না হলে ঈদের পর আরও কঠোর আন্দোলন শুরু করা হবে।