১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাবর ও আরিফুলসহ ৩২ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন

  • কিবরিয়া হত্যা মামলা

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট অফিস ॥ সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় লুৎফুজ্জামান বাবর ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের বরখাস্ত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ ৩২ আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়েছে। রবিবার সিলেট বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মকবুল আহসানের আদালতে তাদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করা হয়। এখন আলোচিত এই মামলার বিচার কাজ শুরু হবে বলে আদালত সূত্র জানিয়েছে। রবিবার এই মামলায় কারান্তরীণ সকল আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। তারপর বেলা ১১টায় শুরু হয় শুনানি। দীর্ঘ শুনানি শেষে বিকেল ২টায় চার্জ গঠন করে আদালত। এই মামলায় কারাবন্দী ১৪ আসামিকেই আদালতে হাজির করা হয়েছে। এই ১৪ জন ছাড়াও জামিনে থাকা আরও ৮ ও পলাতক ১০ সহ মোট ৩২ জনকে অভিযুক্ত করে কিবরিয়া হত্যা মামলার অভিযোগ গঠন করেন বিচারক। এ মামলায় গ্রেফতারে থাকা আসামিদের মধ্যে রয়েছেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, সাবেক সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, হবিগঞ্জ পৌরসভার বহিষ্কৃৃত মেয়র জিকে গৌছ, হরকত-উল-জিহাদ নেতা মুফতি হান্নানসহ ১৪ জন। এর আগে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের বহিষ্কৃৃত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর অনুপস্থিতির কারণে ৯ দফা পিছিয়ে যায় মামলাটির অভিযোগ গঠন। মামলায় কারান্তরীণ আরিফ অসুস্থ হয়ে ঢাকায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি হবিগঞ্জ সদরের বৈদ্যেরবাজারে এক জনসভায় গ্রেনেড হামলায় নিহত হন প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া। হামলায় নিহত হন কিবরিয়ার ভাতিজা শাহ মনজুরুল হুদা, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রহিম, আবুল হোসেন ও সিদ্দিক আলী। এ ঘটনায় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক আবদুল মজিদ খান হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা দায়ের করেন।

আরিফকে বিদেশ পাঠানোর অবেদন ॥ সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া হত্যা মামলায় কারাবন্দী আরিফুল হক চৌধুরীকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠানোর আবেদন করেছেন তার আইনজীবীরা। রবিবার আদালতে এ আবেদন দাখিল করা হয়। আবেদন পাওয়ার পর সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মকবুল আহসান ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে আরিফুল হকের স্বাস্থ্য প্রতিবেদন আদালতে দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র আরিফুল হকের আইনজীবী মোঃ লালা বলেন, আরিফুল হক গুরুতর অসুস্থ। চিকিৎসার জন্য আমরা তাকে বিদেশ পাঠানোর আবেদন করেছি। আদালত কারাগার কর্তৃপক্ষকে স্বাস্থ্য প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। আমরা আশা করছি, আদালত মানবিক দিক বিবেচনা করে তাকে বিদেশ পাঠানোর অনুমতি দেবে।