২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিশুদের বেড়ে ওঠা শিশুদের শৈশব

শিশুদের লালন-পালন, খাওয়া- দাওয়া, ঘুম, পড়াশোনা, আদর- যতœ, খেলাধুলা তথা সবকিছু নিয়েই থাকে মা-বাবার মধ্যে এক নিদারুণ ভাবনা। এই ভাবনাটা প্রগাঢ় হয় যখন শিশুটি মায়ের কোল ছেড়ে হামাগুড়ির বয়স পেরিয়ে ছোটাছুটির পর্যায়ে এসে পড়ে।

তখন শিশুদের মধ্যে একটা হুল্লোড়, চঞ্চলতা পরিগ্রহ লাভ করে। এই সময়টাতে মা-বাবাকে ভীষণ কেয়ারফুল হতে হয়। যখন স্কুলে ভর্তি হয় শিশুটি তখন পা রাখে ভিন্ন এক প্রেক্ষাপটে, নতুন একটা পর্যায় চলে আসে শিশুদের মাঝে। ধীরে ধীরে শিশুরা তখন নিজেদের পছন্দ, ভাল লাগাÑনা লাগাটা অল্প অল্প বুঝতে শেখে। এ সময়টাতে অভিভাবককে অনেক সতর্কতার সঙ্গে শিশুদের সামলাতে হয়। খেলাধুলার প্রবণতাও তখন শিশুদের মধ্যে প্রবলভাবে জেগে ওঠে। ফলে পড়াশোনা, খাওয়া-দাওয়া, ঘুমের চেয়ে খেলাধুলার প্রতি একটা আগ্রহ তৈরি হয়। দুরন্তপনার প্রাবল্য শিশুদের তখন খুবই চঞ্চল করে তোলে। শিশুদের এই প্রহরটাকে মা-বাবার তখন খুব হিসেব করে মানিয়ে নেয়ার রেওয়াজটা সর্বজনবিদিত। সুন্দর-স্বাভাবিক-পরিচর্যা শিশুদের রাখে ভীষণ সতেজ। মা-বাবাকে এ বিষয়েও মনোনিবেশ দেয়াটা প্রয়োজন।

শিশুর বেড়ে ওঠার বয়সে-বিশেষ করে স্কুল গোয়িং শিশুরা ভীষণ অভিমানী হয়। তাই তাদের ম্যানেজ করতে হয় খুব সন্তর্পণে। এই বয়সের শিশুদের আবদারের মাত্রাটাও বেড়ে যায় বহুগুণ। সব মিলিয়ে শৈশবের এই সময়টা চাঞ্চল্যে ঘেরা থাকে। শহর এবং গ্রাম- দুই প্রেক্ষাপটেই শৈশবকালটা হয় দারুণ মুখর।

খেলাধুলাতে মগ্ন হয়ে ওঠা এই শৈশবে খেলার ধরনটা হয় ভিন্ন ভিন্ন।

শহরে যখন এই বয়সের শিশুরা টিভি চ্যানেলে টম এ্যান্ড জেরি, ডোরেমন, মিকি মাউস, গেমস প্রোগ্রাম নিয়ে মেতে ওঠে, আর গ্রামের শিশুরা তখন পুকুর কিংবা নদীতে ঝাঁপাঝাঁপি, দৌড়-ছুট, বর-কনে, রান্নাবাড়া, ঘুড়ি ওড়ানোসহ নানা খেলায় নিমগ্ন হয়ে পড়ে। তবে সবকিছুই হয় পড়াশোনার ফাঁকে। শহরের মা-বাবা যখন তার শিশুকে নিয়ে বিকেল লাগিয়ে ঘুরতে বের হয়, গ্রামের শিশুরা তখন মাঠ-প্রান্তরে ছোটাছুটিতে ব্যস্ত। সন্ধ্যায় ঘরে ফেরা-পড়তে বসা।

শৈশবের চিত্রটা শহর এবং গ্রামে ভিন্ন হলেও এই সময়েই শিশুদের মানসিক গঠন তৈরি হয়। তাই প্রাণবন্ত পরিবেশটা শৈশবে বেশ দরকার, যাতে করে একটি শিশু প্রাকৃতিক নিয়মে সুন্দর-পরিচ্ছন্ন পারিপার্শ্বিকতায় বেড়ে উঠতে পারে। মা-বাবার বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ শিশুদের শৈশবে একটা অপরিহার্য বিষয়। এরা কী ধরনের ড্রেস পরতে ভালবাসে সেদিকটাও খেয়াল রাখতে হবে মাকে।

তবে এক্ষেত্রে ভিন্নতার একটা বিষয় রয়েছে। বিশেষ করে ছেলে শিশু কিংবা মেয়ে শিশুদের ক্ষেত্রে মা-বাবাকে আলাদাভাবে কেয়ার করতে হয়। সব থেকে জরুরী ব্যাপার হলোÑ শিশুদের স্বাস্থ্যের প্রতি দৃষ্টি রাখা। শৈশবের সময়টাতে শিশুরা যদি পরিপূর্ণ খাদ্য গ্রহণ করতে পারে তাহলে এদের গ্রোথের দিকটা থাকে স্বাভাবিক। তাই পুষ্টিকর খাদ্যাভ্যাসের দিকে এদের আকৃষ্ট করতে হবে। পরিহার করতে হবে বাইরের কেমিক্যাল জাতীয় যে কোন খাবার। সম্প্রতি ফ্রুটস-এ ফরমালিনের অতি মাত্রার ব্যবহারের ফলে ফ্রুটস খাওয়াটাও হয়ে পড়েছে স্বাস্থ্যের জন্য অসম্ভব ঝুঁকিপূর্ণ। মা-বাবাকে এদিকটায় অবশ্যই সতর্ক দৃষ্টি দিতে হবে। তাছাড়া শিশুদের শৈশবকালটা ভীষণ স্পর্শকাতর একটা সময়। এ সময়ে অল্পতেই শিশুরা ঠা-া, সর্দি, জ্বর জাতীয় অসুস্থতায় আক্রান্ত হয়ে পড়ে। তাই তাদের এ জাতীয় অসুখ-বিসুখ থেকে নিরাপদ রাখতে মায়ের ভূমিকা এক্ষেত্রে শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে। শৈশবকালটা সাধারণত বছর দশকের গ-িতে থাকে পরিবৃত্ত। তারপর এ বয়স অতিক্রম করে গেলে এদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বৃদ্ধি পায় এবং এদের মধ্যে একরকম প্রাকৃতিকভাবেই প্রাণবন্ত ভাবটা চলে আসে।

যাপিত ডেস্ক

মডেল : সালাহউদ্দিন ও সিয়াম