২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যশোরে যৌতুকের জন্য গৃহবধূ হত্যা

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ যৌতুকের জন্য সানজিদা আখতার (২২) নামে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে থানায় রবিবার রাতে মামলা হয়েছে। এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নিহতের শাশুড়ি খালেদা বেগম পিংকিকে রবিবার রাতেই আটক করেছে পুলিশ।

নিহতের বাবা শহরতলীর ঝুমঝুমপুর দক্ষিণপাড়ার কোরবান আলী বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন। মামলায় আসামি করা হয়েছে শহরের চৌরাস্তা জামে মসজিদ এলাকার ইয়াকুব আলীর ভাড়াটিয়া ওই গৃহবধূর স্বামী মোহাম্মদ রানা, তার বাবা মোতালেব হোসেন, মা খালেদা বেগম পিংকি ওরফে পিংকি ও বোন রুমা খাতুনকে।

অভিযোগে বলা হয়েছে, সানজিদার সঙ্গে রানার ২০১৪ সালে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই রানা তার বাবা, মা এবং বোনের সহযোগিতায় তার কাছে দু’লাখ টাকা যৌতুক চেয়ে আসছিল। এ জন্য তারা বিভিন্ন সময় মেয়েটিকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করত। মেয়ের সুখের কথা ভেবে কোরবান আলী তার জামাইকে পরিবারের সবার সামনে গত ১৫ এপ্রিল ৩০ হাজার টাকা দেন।

১২ সেপ্টেম্বের রাত ১০টার দিকে সে আরও টাকা চায়। মেয়ে রাজি না হওয়ায় রানা তার মেয়েকে মারধর করে। গুরুতর অবস্থায় তাকে হাসপাতালে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বরিশালে যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে নির্যাতন

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল থেকে জানান, দুই লাখ টাকা যৌতুকের জন্য শারমিন আক্তার স্মৃতি নামের এক গৃহবধূকে অমানুষিক নির্যাতন করেছে স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যরা। ঘটনাটি জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার জাহাপুর গ্রামের। গুরুতর আহত ওই গৃহবধূকে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

রবিবার মধ্যরাতে নির্যাতনকারীদের ভাড়াটে লোকজনে শয্যাশায়ী ওই গৃহবধূকে হাসপাতাল ত্যাগের জন্য বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদর্শন করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, জাহাপুর গ্রামের বজলুর রহমানের পুত্র মেহেদী হাসান সুমনের সালে পার্শ¦বর্তী ঠাকুরমলিক গ্রামের মৃত ছালাম সিকদারের কন্যা শারমিন আক্তার স্মৃতির বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই ব্যবসার কথা বলে স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যরা তিন লাখ টাকা যৌতুকের জন্য স্মৃতিকে বিভিন্ন ধরনের চাপ প্রয়োগ করে। গৃহবধূ স্মৃতি অভিযোগ করেন, একপর্যায়ে তার পরিবারের সদস্যরা জমি বিক্রি করে সুমনের দাবিকৃত তিন লাখ টাকা দেয় সম্প্রতি যৌতুকলোভী সুমন ও তার পরিবারের সদস্যরা পূর্ণরায় দুই লাখ টাকা যৌতুকের জন্য তাকে (স্মৃতি) বিভিন্ন ধরনের ভয়ভীতিসহ শারীরিক নির্যাতন শুরু করে।

তারই ধারাবাহিকতায় রবিবার সকালে অমানুষিক নির্যাতনের পর তাকে তার বাবারবাড়িতে তাড়িয়ে দেয়া হলে পরিবারের সদস্যরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে (স্মৃতি) ওইদিন দুপুরে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করেন।