১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘রতি আরতির গীত’ নাটকের মঞ্চায়ন আজ

‘রতি আরতির গীত’ নাটকের মঞ্চায়ন আজ

দীপঙ্কর দাস, জাবি থেকে ॥ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ প্রতিষ্ঠার পর সাংস্কৃতিক অঙ্গনে একের পর এক দর্শকনন্দিত বাঙলা ঐতিহ্যবাহী ধারার নাটকের সঙ্গে পরিচয় ঘটিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যলয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ। এরই ধারাবাহিকতায় জাবির নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের স্নাতক (সম্মান) তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা প্রযোজনায় মঞ্চায়ন হচ্ছে নাটক ‘রতি আরতির গীত’। নাটকটিতে মানব প্রেমের এক অমর উপাখ্যান উঠে এসেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান মিলনায়তনে আজ ও আগামীকাল সন্ধ্যা ৭টায় মঞ্চায়ন হবে নাটকটি। কাজী নজরুল ইসলামের ছোটগল্প ‘সাপুড়ে’ আশ্রয়ে নাটকটির নাট্যরূপ ও নির্দেশনা দিয়েছেন জাবির নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আনন জামান। নাটকের কাহিনিতে দেখা যায়- কাল নীল শৈল মালার সানু দেশে ভীষণ বিজন অরণ্যের প্রান্তে পাহাড়ের বুক কাটা গাঙের বাঁকা পাড়ে জহরের ক্ষণস্থায়ী ঘর। জহর সাপুড়ে, ম-পে দিনমান পূজা করে বিষ জয়ের মানসে। জহরের বিষ জয় সাধনায় মনসা দ্বারা কাম নিষিদ্ধের ফলে প্রত্যাখ্যাত হয়ে জহরের ভালবাসার মানুষ বিন্তী রানী আড়ালি বিলের সাদা শাপলার বনে নিজেকে সমর্পণ করে। এরই মধ্যে একদিন কলার মান্দাসে ভেসে আসা মৃতপ্রায় এক বালিকাকে তুলে এনে প্রাণ সঞ্চার করে জহর। সাধন বিনষ্টির ভয়ে মেয়েটিকে রাখতে না চাইলেও পরে বালকের বেশে রেখে দেয় জহর, নাম দেয় চন্দন। চন্দনের সঙ্গে সখ্য হয় বেদে বহরের ঝুমরো ও মৌটুশীর। চন্দন ঝুমরোর সম্পর্ক গাঢ় হতে থাকে। এদিকে চন্দনের প্রতি রতি অনুভব করে জহর। নাগ পঞ্চমীর এক রাতে বাদ্য বাদনে মেতে ওঠে বহর। উন্মত্ত তালে নাচতে নাচতে সহসা চন্দনের নারীত্ব উন্মোচিত হয়ে যায়। এ নিয়ে বেদে বহরে হৈচৈ পড়ে যায়। জহর চন্দনকে নিবিড় করে পেতে চাইলে চন্দন ঝুমরোর প্রতি তার ভালবাসার কথা প্রকাশ করে। জহর পাগলপ্রায় হয়ে পড়ে। চন্দন ও ঝুমরো বনে পালিয়ে যায়। জহর ঝুমরোকে মারতে তার পোষা সাপ পাঠায়। ঝুমরোকে সাপ দংশন করে। ঝুমরোকে প্রাণে বাঁচানোর জন্য চন্দন নিজেকে সমর্পণ করে জহরের কাছে। কাহিনী তখন অপ্রত্যাশিত বাঁকে পৌঁছায়। জহর নিশ্চিত মৃত্যু জেনে একশতম সাপের দংশন নেয়। নাটকের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন বিভাগের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী মিমো, শাকিল, মৃদুল, সজল, জাকির, তিশা, শ্যামা, দোলা, সাথী, প্রিয়াংকা, মহুয়া, রমিত, রায়হান, আহসান, সামিরাসহ অনেকে। প্রসঙ্গত, কাজী নজরুল ইসলামের ‘সাপুড়ে’ গল্প অবলম্বনে মহাকাল নাট্যসম্প্রদায় ‘নীলাখ্যান’ নামে একটি নাটক সম্প্রতি মঞ্চে এনেছে। ইতোমধ্যে নাটকটি জনপ্রিয় হয়েছে।