২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নারায়ণগঞ্জে মা ও ছেলে হত্যা মামলার রায়ে দুই আসামীর ফাঁসি

নিজস্ব সংবাদদাতা, সিদ্ধিরগঞ্জ ॥ নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে মা ও ছেলে হত্যা মামলার রায়ে দুই আসামীকে মৃত্যুদন্ড ও এক আসামীকে ৭ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে আদালত প্রত্যেক আসামীকে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত।

মঙ্গলবার বেলা ১১টায় নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মিয়াজী শহীদুল আলম চৌধুরী এ রায় দেন। মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা হলেন- আবুল হোসেন ওরফে কসাই কাশেম ও দুলাল হোসেন। ৭ বছরের কারাদন্ড প্রাপ্ত আসামী হলেন- বাবুল হোসেন। এর মধ্যে মৃতুদ্যন্ডপ্রাপ্ত আসামী দুলাল হোসেন পলাতক রয়েছে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুর রহিম।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালের ৫ মার্চ বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে আড়াইহাজার উপজেলার দড়িগাঁও এলাকায় অজ্ঞাত ২৫/২৬ বছরের এক মহিলা ও তার ৬ বছরের ছোট ছেলেকে নিয়ে মানুষের কাছে সাহায্য প্রার্থী হন। আসামীরা ওই সাহায্য প্রার্থী মহিলাকে ১০ টাকা সাহায্য দেয়। এরমধ্যেই ঐ মহিলা তাদের কু-নজরে পড়ে। পরে আসামীরা ৬ বছরের বাচ্চাসহ ওই মহিলাকে শ্বশান ঘাট এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে কাশেম ও বাবুল হোসেন ওই মহিলাকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি ওই এলাকার একটি প্রজেক্ট ম্যানেজার দুলাল হোসেন দেখে ফেলে এবং হুমকি দেয় ঘটনাটি জানিয়ে দেব। পরে দুলাল একটু দুরে গেলে কাশেম ওই মহিলার গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। শিশু বাচ্চাটির কান্নাকাটি শুরু করলে দুলাল হোসেন এগিয়ে গেলে শিশুটি আরও উচ্চস্বরে কান্নাকাটি করতে থাকে। দুলালের দায়িত্বে থাকা ঐ প্রজেক্টে ঐ মহিলা খুন হয়েছে এ ভয়ে দুলাল কোদালের গাড়া দিয়ে শিশুটিকে মাথায় আঘাত করে হত্যা করে। পরে তারা নিজেদের রক্ষা করার জন্য লাশ দুটি দড়িগাঁও কবরস্থান এলাকার পুরাতন গর্তে মাটি চাপা দিয়ে রাখে। পরে এলাকার লোকজন লাশ দুটি দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ এসে লাশ দুটি উদ্ধার করে। এই ঘটনায় আড়াইহাজার থানা পুলিশ বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করে। আসামী বাবুল হোসেন গ্রেফতার হলে হত্যার দায় স্বীকার করে এবং হত্যাকান্ডের বর্ণনা দিয়ে আদালতে ১৬৪ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে। পুলিশ ওই তিন আসামীকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দাখিল করে। আদালতে ১০ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে এই রায় প্রদান করে।