২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সিরিয়ায় রুশ ভারি অস্ত্র

  • রাজনৈতিক সমাধানের পথ রুদ্ধ হবে ॥ যুক্তরাষ্ট্র

সিরিয়ায় রাশিয়ার ভারি অস্ত্রশস্ত্র সরবরাহ বৃদ্ধি করায় মস্কো কর্তৃক তার পুরনো মিত্র প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে সামরিক সাহায্যদানের তাৎপর্যের ব্যাপারে পাশ্চাত্যে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা বলেছেন, সামরিক শক্তি বৃদ্ধির খবরের মধ্যে রাশিয়া সিরিয়ায় ট্যাঙ্ক ও গোলন্দাজ বাহিনী পাঠিয়েছে। প্রেসিডেন্ট আসাদের যুদ্ধে লিপ্ত সরকারের সামর্থ্যবৃদ্ধির এই সম্ভাব্য মিশন উদ্বেগ বাড়িয়ে দিয়েছে। একজন মার্কিন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, একটি চলমান সামরিক শক্তিবৃদ্ধির অংশ হিসেবে মস্কো ভূমধ্যসাগরীয় উপকূলের লাতাকিয়ার কাছে সিরীয় বিমানঘাঁটিতে গোলন্দাজবাহিনীর কয়েকটি ইউনিট ও ৭টি ট্যাঙ্ক পাঠিয়েছে। খবর গার্ডিয়ান ও বিবিসির।

সূত্র জানায়, গত কয়েক দিনে রাশিয়ার ৭টি অত্যাধুনিক সার্ভিস ট্যাংক টি-৯০ লাতাকিয়ায় এসে পৌঁছেছে। তবে সেগুলোকে বিমানঘাঁটির বাইরে দেখা যায়নি। কামানগুলো সম্ভবত বিমানঘাঁটির প্রতিরক্ষায় ব্যবহৃত হবে। রাশিয়া বলেছে, সিরিয়া সরকারকে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) মোকাবেলায় সাহায্য করতে সামরিক সাজসরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছে। ২০১১ থেকে সিরিয়ায় রক্তাক্ত গৃহযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে মস্কো প্রেসিডেন্ট আসাদের প্রধান মিত্রে পরিণত হয়েছে। পেন্টাগনের মুখপাত্র জেফ ডেভিস সোমবার বলেন, গত কিছুদিন ধরে আমরা আভাস পেয়েছি যে, রাশিয়া লাতাকিয়া এবং সেখানকার বিমানঘাঁটির আশপাশের লোকজনও জিনিসপত্র সরানোর কাজ করছে। এতে মনে হয় দেশটি সেখানে এক ধরনের অগ্রবর্তী বিমান পরিচালনা ঘাঁটি প্রতিষ্ঠা করতে চায়। বিবিসির বারবারা প্লেট আশার বলেছেন, মার্কিন কর্মকর্তারা আরও আশঙ্কা করছে যে, রুশ সাহায্য বৃদ্ধি এমন এক সময় প্রেসিডেন্ট আসাদের সরকারকে শক্তিশালী করবে যখন সরকার রণাঙ্গনে পরাজিত হচ্ছে এবং এই সমর্থন লড়াইয়ের একটি রাজনৈতিক সমাধান খুঁজে পাওয়ার সাম্প্রতিক প্রচেষ্টাকেও জটিল করে তুলবে। দুটি রুশ কার্গো বিমান ৮০ টন মানবিক সাহায্য নিয়ে সিরিয়ায় অবতরণ করেছে-সিরীয় রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে এ খবর প্রকাশিত হওয়ার ঠিক কয়েকদিন পরেই যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে এই মন্তব্য করা হলো। বিমান দুটি আসাদের শক্ত ঘাঁটি লাতাকিয়ার কাছে একটি বিমানঘাঁটিতে অবতরণ করে বলে খবরে উল্লেখ করা হয়। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মে. জেনারেল ইগর কোনাশেনকভ বলেন, বিমানে শরণার্থীদের জন্য তাঁবু শিবির, স্থাপনের সরঞ্জাম বহন করা হয়।

মস্কোতে নিযুক্ত সিরীয় রাষ্ট্রদূত রিয়াদ হাদ্দাদ সোমবার একথা অস্বীকার করেছেন যে, মস্কো সিরিয়ায় সামরিক শক্তি বৃদ্ধি করছে। তিনি সিরিয়ায় রুশ সৈন্যদের উপস্থিতির খবরকে ‘মিথ্যা’ বলে অভিহিত করেন। তিনি বলেছেন, সিরিয়া প্রতিরক্ষা চুক্তির আওতায় তার মিত্র দেশের কাছ থেকে অস্ত্রশস্ত্র গ্রহণ করছে। রুশ বার্তা সংস্থা তাস একথা জানায়।

ক্রেমলিন কোন সামরিক শক্তি বৃদ্ধির কথা প্রত্যাখ্যান করলেও গত সপ্তাহে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ বলেন, রাশিয়াকে অনুরোধ করা হলে সিরিয়ায় আরও সাহায্য পাঠাবে। তিনি বলেন, বর্তমান চুক্তি এং মানবিক সাহায্যের আওতায় রাশিয়া সামরিক সাজসরঞ্জামবাহী বিমান পাঠাচ্ছে। মার্কিন কর্মকর্তারা বলেছেন, প্রেসিডেন্ট আসাদ বিদ্রোহীদের কাছে পর্যাপ্ত ভূখ- হারানোর জন্য হয়ত রাশিয়া তাঁকে অতিরিক্ত সামরিক সাহায্য পাঠাচ্ছে। সিরীয় সরকার সম্প্রতি উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ ইদলিবের নিয়ন্ত্রণ হারায়।

রাশিয়া একদিকে সিরিয়া সরকারকে সমর্থন করছে এবং তাঁকে অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে সাহায্য করছে। অপরদিকে যুক্তরাষ্ট্র প্রেসিডেন্ট আসাদের অপসারণ চাচ্ছে। প্রেসিডেন্ট আসাদের সরকারও বিভিন্ন বিদ্রোহী গোষ্ঠীর মধ্যে লড়াইয়ে এ পর্যন্ত ২ লাখ ৪০ হাজার লোক নিহত এবং লাখ লাখ লোক বাস্তচ্যুত হয়েছে।