১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শপথ নিলেন অস্ট্রেলিয়ার নয়া প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল

  • লিবারেল পার্টি নেতৃত্বের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় টনি এ্যাবট পরাজিত

অস্ট্রেলিয়ার ২৯তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মঙ্গলবার শপথ নিয়েছেন সাবেক ব্যাংকার ও আইনজীবী ম্যালকম টার্নবুল। দেশটির ক্ষমতাসীন দল লিবারেল পার্টি নেতৃত্বের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় টার্নবুলের কাছে টনি এ্যাবট পরাজিত ও প্রধানমন্ত্রীর পদ হারান। তিনি এ্যাবোটের যোগাযোগমন্ত্রী ছিলেন। খবর ইন্টারন্যাশনাল নিউইয়র্ক টাইমসের।

সোমবারের রাতের ভোট এ্যাবটের নেতৃত্বের সাত মাসের মধ্যে দ্বিতীয় চ্যালেঞ্জ ছিল। তিনি ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে ক্ষমতায় আসেন। মধ্যপন্থী ৬০ বছর বয়সী টার্নবুলের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে ৫৭ বছর বয়সী এ্যাবটের বিরোধ ছিল। বিশেষ করে অতি সম্প্রতি একই লিঙ্গের বিয়ে বিষয়ে মতবিরোধ দেখা দেয়। অস্ট্রেলিয়ার দুটি প্রধান রাজনৈতিক দলের মধ্যে লিবারেল পার্টি সবচেয়ে রক্ষণশীল। নতুন প্রধানমন্ত্রীর বহির্বিশ্বের সঙ্গে আরও খোলামেলা এবং এ্যাবটের দৃষ্টিভঙ্গির চেয়ে কম রক্ষণশীল হবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

টার্নবুল জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি নিয়ে আরও বেশি সতর্ক। তিনি তার রক্ষণশীল সহকর্মীদের বোঝাতে সক্ষম হয়েছেন যে সরকারের নীতির পরিবর্তন করা প্রয়োজন। দলীয় নেতৃত্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সোমবারের ভোটাভুটিতে ম্যালকম পান ৫৪ ভোট আর এ্যাবট পান ৪৪ ভোট।

এদিন দলটির উপনেতাও নির্বাচন করা হয়। আর ৭০ ভোট পেয়ে নতুন উপনেতা হয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জুলি বিশপ। লিবারেল নেতা হিসেবে টার্নবুল তার প্রথম সংবাদ সম্মেলনে বলেন, অস্ট্রেলিয়া যে চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন তা অবশ্যই মোকাবেলা করবে এবং ভাঙ্গন থেকেও অনেক সময় যে সুযোগ আসে তাও সাদরে গ্রহণ করবে। তিনি প্রতিশ্রুতি দেন যে নেতা হিসেবে অর্থনৈতিক নীতি বিষয়ে ব্যাখ্যা ও সমর্থনের জন্য তিনি মন্ত্রী জুনিয়র আইনপ্রণেতাদের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করবেন। তিনি আরও বলেন, এটি পরিষ্কার যে, আমাদের প্রয়োজন মতো অর্থনৈতিক নেতৃত্ব প্রদানে সরকার সফল নয়। দলীয় ভোটের আগে টার্নবুল বলেছিলেন, এ্যাবটের কার্যক্রমে জনগণ সন্তুষ্ট নয়। সুতরাং তাকে দলীয় প্রধানের পদে রাখা হলে আগামীতে সাধারণ নির্বাচনে দলের ভরাডুবি হবে।

নির্বাচিত সংবাদ