১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সমৃদ্ধ দেশ গড়তে করের বিকল্প নেই ॥ গণপূর্তমন্ত্রী

  • চট্টগ্রামে ২৭ করদাতাকে সম্মাননা

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ সমৃদ্ধ দেশ গড়তে করের বিকল্প নেই। আর কর বাড়াতে হলে এর আওতা বৃদ্ধি করতে হবে। কিন্তু তা না করে একই ব্যক্তিকে দু’তিনবার করে জবাই করা হচ্ছে। করের পরিধি না বাড়লে দেশ পিছিয়ে পড়বে।

মঙ্গলবার চট্টগ্রামে আয়কর দিবসের অনুষ্ঠানে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন। নগরীর আগ্রাবাদে সরকারী কার্য ভবন-২ সংলগ্ন মাঠে চট্টগ্রাম কর অঞ্চল আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন। একই অনুষ্ঠানে সম্মাননা প্রদান করা হয় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন, চট্টগ্রাম জেলা, তিন পার্বত্য জেলা ও কক্সবাজার জেলার মোট ২৭ জন নিয়মিত ও সর্বোচ্চ করদাতাকে।

গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ বলেন, জনগণকে করদাতে উৎসাহিত করতে হবে। করদাতাদের মধ্যে এক ধরনের বিরক্তি ও ভীতিও কাজ করে। এ ভীতি দূর করতে হবে। কোন ধরনের হয়রানি যেন না হয় সেদিকে কর বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীদের লক্ষ্য রাখতে হবে। উপজেলা পর্যায়কে কর মেলার আওতায় আনার উদ্যোগকে অত্যন্ত ভাল হিসেবে আখ্যায়িত করার পাশাপাশি মন্ত্রী বলেন, করের পরিধি বাড়াতে হবে। কিন্তু এর জন্য হয়রানি করা যাবে না। এতে সাধারণ মানুষ ভীত হয়ে পড়তে পারে। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, কর প্রদান করা সম্মানের এবং গৌরবের। এ বিষয়টি সাধারণ মানুষকে বোঝাতে হবে। কর আদায় বৃদ্ধি করতে এর আওতায় এবং পরিধি বৃদ্ধির পাশাপাশি সচেতনতা সৃষ্টি করার উপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সদস্য মোঃ ফরিদ

আয়কর দিবস উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ও চট্টগ্রাম কর আপীল কমিশনের কাজী ইমদাদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চিটাগাং চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল হক, চিটাগাং মেট্রোপলিটন চেম্বার সভাপতি খলিলুর রহমান, চট্টগ্রাম কাস্টমস এক্সসাইজ এ্যান্ড ভ্যাট কমিশনার সৈয়দ গোলাম কিবরিয়া, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি সফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

এদিকে, আজ ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে সপ্তাহব্যাপী আয়কর মেলা। এতে টিআইএন নাম্বার গ্রহণ, কর পরিশোধ, রিটার্ন দাখিলসহ কর বিষয়ক প্রয়োজনীয় সকল তথ্য অবগত হওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। আয়কর বিভাগ সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম থেকে এবার ৮ হাজার কোটি টাকা আয়কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে। চট্টগ্রামে বর্তমানে মোট করদাতার সংখ্যা ২ লাখ ৮০ হাজার ২১২ জন। এর মধ্যে ব্যক্তি শ্রেণীর করদাতার সংখ্যা ২ লাখ ৭৩ হাজার ৫৫৭ এবং কোম্পানি ৬ হাজার ৬৫৫। গত অর্থ বছরে চট্টগ্রামে রিটার্ন দাখিল হয়েছিল ১ লাখ ২০ হাজার ৯৬৬টি। এর বিপরীতে সংগ্রহ হয় ২৯০ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। মোট কর আদায় হয় ৬ হাজার ২০৪ কোটি টাকা।

২৭ করদাতাকে সম্মাননা ॥ জাতীয় কর দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার চট্টগ্রাম কর অঞ্চল-১ আয়োজিত অনুষ্ঠানে মোট ২৭ করদাতাকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। সর্বোচ্চ ও দীর্ঘ মেয়াদে কর দেয়ার জন্য চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়ি জেলার এ ২৭ জনকে সম্মাননা স্বরূপ ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। সম্মাননাপ্রাপ্তদের মধ্যে টেকনাফের আলোচিত সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি এবং তার ভাইও রয়েছেন। সম্মাননা পাওয়া করদাতারা হলেন- সদর উদ্দিন খান, মুহাম্মদ মহসিন, সালাউদ্দিন খান, ডাঃ সালাউদ্দিন এম সিদ্দিক, আবদুল মান্নান সিকদার, মোঃ শামসুল হুদা, ইঞ্জিনিয়ার মোঃ মহসিন, আমির হোসেন, রাউজানের সৈয়দ আহসান উল্লাহ, রহমতগঞ্জ দেওয়ানজী পুকুর পাড় এলাকার প্রকাশ রঞ্জন দাশ, কক্সবাজারের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি, তার ভাই আবদুস শুক্কুর, টেকনাফের সাইফুল করিম, ফরিদুল আলম, আবুল কাশেম, বান্দরবান জেলার মোঃ নুরুল আবসার, আবদুস শাকুর, হুমায়ুন কবির, শামসুল আলম, খাগড়াছড়ির মোঃ মিজানুর রহমান, মোঃ নুর আলম, বিউটি দেব, শিব শঙ্কর দেব, মোঃ সোলায়মান এবং রাঙ্গামাটি জেলার মোঃ ফজলুল হক, আবুল মনসুর ওবায়দুল্লাহ এবং রফিকুল আলম লিটন।

নির্বাচিত সংবাদ