২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নতুন কোচের সান্নিধ্যে মামুনুলরা

  • * ৪১ জনের মধ্যে রিপোর্ট ৩৬ জনের ;###;* আজ বিশ্রাম, অনুশীলন শুরু বৃহস্পতিবার থেকে ;###;* কোচ লোপেজের স্বদেশী দুই সহকারী আসছেন আজ ;###;* শৃঙ্খলার বিষয়ে কোচের কঠোর মনোভাব

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ফিফা বিশ্বকাপ ও এএফসি এশিয়ান কাপের বাছাইপর্বে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের পরবর্তী ম্যাচ (এ্যাওয়ে) আগামী ১৩ অক্টোবর কিরগিজস্তানের বিপক্ষে। এ উপলক্ষে সোমবার বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের ৪১ জনের প্রাথমিক দল ঘোষণা করে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। এদের নিয়ে একটি আবাসিক প্রশিক্ষণ ক্যাম্প মঙ্গলবার থেকে মতিঝিলে অবস্থিত বাফুফে ভবনে শুরু হয়। ডাক পাওয়া খেলোয়াড়রদের মধ্যে ৩৬ জন মঙ্গলবার বাফুফে ভবনে বেলা সাড়ে ১১টায় প্রয়োজনীয় ক্রীড়া সরঞ্জামাদিসহ দলের ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবু এবং সহকারী প্রশিক্ষক একেএম সাইফুল বারী টিটুর কাছে রিপোর্ট করেন। রিপোর্ট করেননি জামাল ভূঁইয়া (দেশের বাইরে অবস্থানরত), ইয়াসিন খান (গ্রামের বাড়িতে), শাহেদুল আলম শাহেদ (জানা যায়নি), হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস (চোট সমস্যা) এবং রুম্মন হোসেন (ভারত থেকে আসবেন)। দলের নতুন কোচ (ইতালীয়) ফ্যাবিও লোপেজ এই দল নিয়ে ঢাকায় পাঁচদিন পর্যবেক্ষণ করবেন। তারপর আগামী ২০ সেপ্টেম্বর দল নিয়ে চলে যাবেন সাভারের জিরানির বিকেএসপিতে। পরে যথাসময়ে সেখান থেকে ২৩ খেলোয়াড়কে চূড়ান্ত করবেন তিনি।’ পরে চূড়ান্ত দল নিয়ে আগামী ৯ অক্টোবর কিরগিজস্তানের উদ্দেশে রওনা হবে বাংলাদেশ দল। বাংলাদেশ দলের নতুন দুই সহকারী বাংলাদেশে আসবেন আজ।

খেলোয়াড়দের সঙ্গে মঙ্গলবার বাফুফে ভবনে প্রথমবারের মতো পরিচিত হন কোচ লোপেজ। পরে তিনি কনফারেন্স রুমে খেলোয়াড়দের সঙ্গে বিশেষভাবে বৈঠকে মিলিত হন। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার থেকে দলের ট্রেনিং শুরু হবে। ৪১ জনকে নিয়ে একসঙ্গে ট্রেনিং করলে কে কেমন খেলোয়াড়, সেটি বোঝা দুরূহ বলে বিধায় তিনি ২০ জনের গ্রুপ ট্রেনিং করাবেন। বৈঠক শেষে মিডিয়ার মুখোমুখি হন দলের অধিনায়ক-মিডফিল্ডার মামুনুল ইসলাম। কিরগিজস্তানের সঙ্গে ভাল ফলের প্রত্যাশা কতটুকু? মামুনুল বলেন, ‘এক কথায় কোচ আমাদের জানান ফুটবলে সবই সম্ভব। তিনি যেভাবে কথা বলেছেন তার সঙ্গে মানিয়ে নিতে কষ্ট হবে বলে মনে হয় না।’ দলে শেষ পর্যন্ত কোন ২৩ জন টিকে থাকবেন? ‘তিনি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন। দলের অধিনায়কই বলুক আর সেরা খেলোয়াড়ই বলুক, যে মাঠে পারফর্ম করতে পারবে না তিনি তাকে সুযোগ দেবেন না। দলের ৪১ জনই তার কাছে সমান। যে মাঠে পারফর্ম করতে পারবে তাকেই সুযোগ দেবেন। কারণ তার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো বাংলাদেশ এবং রেজাল্ট।’ কোচের সঙ্গে পরিচয় পর্ব কেমন হলো? মামুনুল বলেন, ‘খুব খোলাখুলি ভাবে দলের সবার সঙ্গে আলোচনা করেছেন কোচ। বন্ধুর মতো কে কি করে তাও জানতে চেয়েছেন। বলেছেন, যাই করও তা তোমাদের ব্যক্তিগত বিষয়। কিন্ত মাঠে পারফর্ম করতে হবে এবং শৃঙ্খলার বিষয়েও খুব শক্ত তিনি। কোচের সঙ্গে কথা বলে তার সম্পর্কে কেমন ধারণা হলো? ‘একটা ধারা ছিল ইউরোপের ফুটবলের ভাষা এক। খেলোয়াড়দের কোয়ালিটির ওপর ফর্মেশন তৈরি হয়। কোচের কথায় যতটা বুঝলাম আমাদের খেলোয়াড়দের ফিটনেস নিয়েই কাজ করবেন বেশি। আর খেলোয়াড়দের থেকে সেরাটা আদায় করে নেয়ার ক্ষমতাটাও তার বেশি বলেই মনে হলো।’

কোচের কাছে কী প্রত্যাশা? ‘নতুন নতুন কোচের কাছ থেকে নতুন অনেক কিছু শেখা যায়। শেখার কোন শেষ নেই। ৪১ খেলোয়াড় জাতীয় দলে ডাক পেয়েছে। এটা একটা বড় চ্যালেঞ্জ। সেখান থেকে ২৩, তারপর মূল একাদশে ১১ জন খেলবে। সবার জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ যে আমাদের নতুন করে পারফর্ম করে দলে আসতে হবে। কোচ বলেছেন, ইতোমধ্যেই অতীত অধ্যায় শেষ। নতুন অধ্যায় শুরু। আমি ভাল কোচ। কিন্তু সেটি কখন? যখন আমি ভাল ফল দেখাতে পারব।’

দীর্ঘদিন ক্রুইফের সঙ্গে। হঠাৎই নতুন কোচ। খেলোয়াড়দের মানসিক কোন চাপ পড়বে কি না? মামুনুলের উত্তর, ‘আমরা বাঙালী জাতি আবেগপ্রবণ। যার সঙ্গে দীর্ঘ সময় থাকি তাকে কিছুটা হলেও মিস করি। তাকে মিস করব। তার থেকে অনেক কিছু শিখেছি। তবে মনে হয় নতুন কোচের থেকেও অনেক কিছু শেখা যাবে।’ সবশেষে মামুনুল জানান, ক্রিকেট বোর্ডের মতো ফুটবল ফেডারেশনেরও একটি নির্বাচক প্যানেল থাকা দরকার, তাহলে তাদের খেলোয়াড় বাছাইয়ের কাজটা আরও সহজ হবে।

নির্বাচিত সংবাদ