১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্টার্কও সম্পূর্ণ ফিট নন!

  • অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ সফরে কার্যত পঙ্গু হয়ে পড়েছে টিম অস্ট্রেলিয়া। টাইগারদের মোকাবেলায় নিয়মিত আট টেস্ট ক্রিকেটারকে পাচ্ছেন না অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ! নতুন চেহারার অস্ট্রেলিয়া দল ঘোষণায় বিষয়টা আগেই পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল। মিচেল স্টার্কের ফিটনেস ঘিরে তাতে বাড়তি মাত্রা যোগ হলো। বাংলাদেশ সফরের দলে থাকলেও পুরোপুরি ফিট নন অসিদের বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক। এমন কি সদ্যসমাপ্ত ইংল্যান্ড সফরে ইনজেকশন নিয়ে ওয়ানডে খেলতে হয়েছিল তাকে! বিষয়টা নিশ্চিত করেছেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) ফিজিওথেরাপিস্ট এ্যালেক্স কুন্টরিস। এভাবে ইনজেকশন নিয়ে কাজ চালিয়ে যেতে পারলেও পুরোপুরি সুস্থ হতে স্টার্ককে অপারেশনের টেবিলে যেতে হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

‘আমরা প্রতিনিয়ত স্টার্কের অবস্থার দিকে নজর রাখছি। ইংল্যান্ডে ওয়ানডেতে ওকে ইনজেকশন নিয়ে নামতে হয়েছিল। পরিস্থিতি বিবেচনা করেই বাংলাদেশ সফরে রাখা হয়েছে। তবে, অস্ত্রোপচার নিয়ে আলোচনা চলছে, এটাই ওর শেষ অবলম্বন।’ বলেন কুন্টরিস। ডান পায়ের গোড়ালির ইনজুরিতে থাকা স্টার্ক এ্যাশেজ সিরিজ থেকে ব্যথায় ভুগছিলেন। এরপর পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডের চতুর্থটিতে তাকে বিশ্রাম দেয়া হয়েছিল। সিরিজের ভাগ্য নির্ধারণে অঘোষিত ফাইনাল হয়ে ওঠা পঞ্চম ও শেষ ম্যাচে খেলেছিলেন ইনজেকশন নিয়ে। যার অর্থ, পুরোপুরি ফিট নন দলটির সম্প্রতি সবচেয়ে সফল বোলার। নিয়মিত খেলার ধকল সামলাতে বাংলাদেশ সফরে বিশ্রাম দেয়া হয়েছে প্রধান পেসার মিচেল জনসন ও তার সঙ্গী জস হ্যাজলউডকে। সফরে তাই তরুণ পেস আক্রমণের নেতৃত্বে স্টার্ক। সেই তিনিও পুরোপুরি ফিট নন!

বয়সভিত্তিক সাঁতারে ১০টি নতুন রেকর্ড

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ‘মীর আকতার হোসেন লিমিটেড জাতীয় বয়সভিত্তিক সাঁতার ও ডাইভিং প্রতিযোগিতা’ মঙ্গলবার শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সভাপতি ও নৌবাহিনী প্রধান ভাইস এ্যাডমিরাল এম ফরিদ হাবিব প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর নাসির হোসেন।

প্রথম দিনে বিকেএসপি ২৩ স্বর্ণ, ২০ রৌপ্য ও ১৪ তাম্রপদক পেয়ে পদক তালিকার শীর্ষে রয়েছে। আনসার ১৩ স্বর্ণ, ৯ রৌপ্য ও ৪ তাম্রপদক পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। প্রথম দিনে ৩৬ ইভেন্টের মধ্যে ১০ ইভেন্টে নতুন জাতীয় রেকর্ড সৃষ্টি হয়। যারা রেকর্ডধারী, তারা হলেন ১০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে (১৮-২০ বছরের যুব) আরিফুল ইসলাম (বিকেএসপি, ১ মিনিট ৮.৬২ সেকেন্ড), ১০০ মিটার ব্যাক স্ট্রোকে (১৩-১৪ বছরের বালক) মিঠু মিয়া (বিকেএসপি, ১ মিনিট ০৮.২৬ সেকেন্ড), ১০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ে (১১-১২ বছরের বালিকা) শরিফা খাতুন মীম (বাংলাদেশ আনসার, ১ মিনিট ২০.১৩ সেকেন্ড), ২০০ মিটার ফ্রিস্টাইল (১৮-২০ বছরের যুব) আরিফুল ইসলাম (বিকেএসপি, ২ মিনিট ৪.৩২ সেকেন্ড), ২০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে (১৩-১৪ বছরের বালক) হিমেল মিয়া (বিকেএসপি ২ মিনিট ৪৪.৩৫ সেকেন্ড), ২০০ মিটার ইন্ডিভিজুয়াল মিডলে (১০ বছরের বালিকা) রূপা খাতুন (বিকেএসপি, ৩ মিনিট ৬.৪৬ সেকেন্ড), ২০০ মিটার বাটারফ্লাইয়ে (১৮-২০ বছরের যুব) আরিফুল ইসলাম (বিকেএসপি, ২ মিনিট ২২.৪৯ সেকেন্ড), ১০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে (১১-১২ বছরের বালক) রনি মিয়া (বিকেএসপি, ১ মিনিট ১৮.৯৬ সেকেন্ড), ২০০ মিটার ইন্ডিভিজুয়াল মিডলেতে (১৩-১৪ বছরের বালক) মিঠু মিয়া (বিকেএসপি, ২ মিনিট ২৮.৯৯ সেকেন্ড), ৫০ মিটার ব্যাকস্ট্রোক (১০ বছরের বালিকা) রূপা খাতুন।