১৭ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঘরের মাঠে ভাল খেলার প্রতিশ্রুতি কিশোরদের

  • এএফসি অনুর্ধ ১৬ বাছাইপর্ব উদ্বোধনী ম্যাচে আজ মুখোমুখি বাংলাদেশ-সৌদি আরব

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রায় এক মাস আগে সিলেটের মাটিতে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে অপরাজিত শিরোপা জয় অনুর্ধ ১৬ সাফের আসরে। ওই সাফল্যের সুখস্মৃতি থাকতেই এবার আরেক পরীক্ষায় অবতীর্ণ হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ অনুর্ধ ১৬ জাতীয় ফুটবল দল। সে পরীক্ষার নাম এএফসি অনুর্ধ ১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের মূলপর্বে যোগ্যতা অর্জনের লড়াই। প্রতিপক্ষ মধ্যপ্রাচ্যের দুই দেশ- সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত। র‌্যাঙ্কিং বা শক্তির নিরিখে দুটি দেশই অনেক এগিয়ে বাংলাদেশের চেয়ে। তবে স্বাগতিক বলে একটা আশা থেকেই যায়। আর সেজন্যই হয় তো ভাল ফলের, ভাল খেলার প্রতিশ্রুতি দেয়া যায়। সেটাই দিলেন বাংলাদেশের কোচ সৈয়দ গোলাম জিলানী এবং অধিনায়ক শাওন হোসেন। এএফসির বাছাইপর্বে গ্রুপ ‘ডি’র প্রথম ম্যাচে আজ বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ সৌদি আরব। সন্ধ্যা ৬টায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে।

২০১৬ সালে ১৬ দলকে নিয়ে ভারতে অনুষ্ঠিত হবে এএফসি অনুর্ধ ১৬ চূড়ান্ত পর্ব। স্বাগতিক হওয়ায় বাছাইপর্ব খেলতে হবে না ভারতকে। বাছাইপর্বের ৪২ দল থেকে ১৫ দল উঠবে মূল পর্বে। ১১ গ্রুপ সেরা দলের সঙ্গে সেরা চারটি রানার্সআপ দল খেলবে মূলপর্বে। সৌদি এবং আমিরাতের মতো দলকে টপকে গ্রুপ সেরা হওয়ার সম্ভাবনা বাংলাদেশের খুবই কম। তবে সেরা চারটি রানার্সআপ দলের একটি হওয়ার সুযোগ আছে। সেক্ষেত্রে বাছাইপর্বে একটি ম্যাচ জিতলেই সম্ভাবনা আছে বাংলাদেশের। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ কোচ সৈয়দ গোলাম জিলানী বলেন, ‘আমাদের দলটা ব্যালেন্সড। সাফ জেতায় মানসিকভাবে সবাই অনেক শক্তিশালী। প্রতিপক্ষ দুটি দল আমাদের চেয়ে অনেক শক্তিশালী। তবে আমার ছেলেরা প্রস্তুত আছে।

চেষ্টা থাকবে টুর্নামেন্টে ভাল করার। বয়সভিত্তিক দলের মধ্যে পার্থক্য উনিশ-বিশ। সাফের মতো ভাল করতে পারলে ইতিবাচক ফল আসবে। তাছাড়া ম্যাচটা আমাদের ঘরের মাঠ। এটাই যেন আমাদের জন্য বাড়তি সুবিধা।’

অধিনায়ক শাওন হোসেনের অভিমত, ‘র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা আমাদের চেয়ে অনেক এগিয়ে। দল হিসেবেও তারা অনেক শক্তিশালী। সাফ চ্যাম্পিয়ন আমরা, তাই চাপটা একটু থাকবে। সাফের মতো টিম স্পিরিট ধরে রাখতে চাই। ঘরের মাঠে বলে আমাদের হোম এ্যাডভান্টেজ থাকবে। চেষ্টা করব নিজেদের মেলে ধরতে।’

আসল লড়াইয়ে বাংলাদেশ পাচ্ছে না তিন সেরা খেলোয়াড়- আতিকুজ্জামান, সাদ ও খলিলকে। বয়স বেশি হওয়ায় সাদ এবং খলিল নেই এই টুর্নামেন্টে। আর চোটের কারণে থাকছেন না আতিক। সেরা তিন খেলোয়াড়কে হারালেও এতটুকু হতাশ নন কোচ। দুই শক্তিশালী প্রতিপক্ষকে আটকাতে নতুন কৌশল প্রয়োগ করবেন তিনি।

সাফ জয়ের পর অবশ্য গত এক মাসে তেমন একটা প্রস্তুতি ম্যাচ খেলার সুযোগ পায়নি বাংলাদেশ। অথচ প্রতিপক্ষ সৌদি আরব বাছাইপর্বের জন্য ভালভাবেই তৈরি হয়ে এসেছে। দেশটি প্যালেস্টাইন, ইরাক, জর্দান এবং কাতারের সঙ্গে প্রস্ততি ম্যাচ খেলেছে। এরমধ্যে ২টিতে জিতেছে, একটিতে ড্র, বাকিটিতে হেরেছে। গালফ কাপেও চার ম্যাচের ২টিতে জিতেছে, ২টিতে হেরেছে। সৌদি আরব দলের কোচ মোহাম্মদ আল আবদাল্লিও বলেন, ‘মূল পর্বে যাওয়ার বিষয়ে আমরা আশাবাদী। একই সঙ্গে বাংলাদেশের বিপক্ষে আজকের ম্যাচটি কঠিন হবে। প্রায় ৬-৭ মাস ধরে বাছাইপর্বের জন্য প্রস্তুতি নিয়েছি। তবে গত তিন মাস কঠোর পরিশ্রম করেছি। শক্তির বিচারে বাংলাদেশ অনেক দুর্বল হলেও ফুটবলে যে কোন কিছুই ঘটতে পারে।’

এখন দেখার বিষয়, আজ সত্যিই তেমন কিছু অঘটন ঘটাতে পারে কি না বাংলাদেশ।

নির্বাচিত সংবাদ