২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা ভালবাসায় সিক্ত সৈয়দ মহসিন আলী

সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা ভালবাসায় সিক্ত সৈয়দ মহসিন আলী
  • মৌলভীবাজারে বাবা-মায়ের কবরের পাশে সমাহিত

নিজস্ব সংবাদদাতা, মৌলভীবাজার ॥ বীর মুক্তিযোদ্ধা, সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর দাফন সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার বিকেলে মৌলভীবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে চতুর্থ জানাজা শেষে হযরত সৈয়দ শাহ মোস্তফা বোগদাদীর (র) দরগাহ চত্বরে বাবা-মায়ের কবরের পাশে তাঁকে সমাহিত করা হয়।

এর আগে দুপুর বারোটা ১৫ মিনিটে তাকে বহনকারী হেলিকপ্টার মৌলভীবাজার স্টেডিয়ামে পৌঁছায়। সেখানে তার স্বজন এবং আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা মরদেহ গ্রহণ করেন। সেখান থেকে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় তার শ্রীমঙ্গলের দর্জিমহল বাড়িতে।

দুপুরে মৌলভীবাজারের এম সাইফুর রহমান স্টেডিয়ামে সৈয়দ মহসিন আলীর মরদেহ নিয়ে আসা হলে সেখানে হাজার হাজার মানুষ ভিড় জমায়। এরপর তার মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় শহরের দর্জির মহলে তার নিজের বাড়িতে। যেখানে তার জীবনের শৈশব, কৈশর এবং যৌবনের দিনগুলো কেটেছে। সেখানে কিছু সময়ের জন্য মরহুমের মরদেহ পরিবারের সদস্য এবং নিকট আত্মীয়দের দেখার জন্য রাখা হয়। মন্ত্রীর মরদেহের পাশে তার আত্মীয়-স্বজনদের কান্নায় সেখানকার পরিবেশ ভারি হয়ে ওঠে। সেখানেও অসংখ্য লোকের সমাগম ঘটে। অনেকেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। পরে সেখান থেকে বেলা দুইটা ৩০ মিনিটের দিকে মরহুমের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় মৌলভীবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে।

দুপুর দুইটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত তার মরদেহ মৌলভীবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের শহীদ মিনারে রাখা হয়। প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক লোকের উপস্থিতিতে জানাজার নামাজ পড়ান মৌলভীবাজার টাউন কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল কাইয়ূম সিদ্দিকী। এই মুক্তিযোদ্ধাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে এ সময় মৌলভীবাজার শহরের দোকান-পাটসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান কিছুক্ষণের জন্য বন্ধ করে সকল ধর্ম-বর্ণের লোক মৌলভীবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ছুটে আসেন।

বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের হাজার হাজার লোক তাকে দেখার জন্য দুপুরের আগে থেকে মাঠে চলে আসেন এবং ফুলেল শ্রদ্ধায় সিক্ত করেন। শ্রদ্ধা জানাতে আসা মানুষদের সুষ্ঠু যাতায়াতের জন্য বালু দিয়ে মাঠের সংস্কার করা হয়। জানাজার নামাজ আরম্ভ হওয়ার পূর্বে তার প্রতি শ্রদ্ধা ও আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আসম ফিরোজ, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী প্রমোদ মানকিন, জাতীয় সংসদের হুইপ মোঃ শাহাব উদ্দিন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সংগঠনিক সম্পাদক মিছবাহ উদ্দিন সিরাজ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক চীপ হুইপ উপাধ্যক্ষ সাংসদ আব্দুস শহীদ এমপি আবদুল মতিন, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের প্রশাসক আজিজুর রহমান প্রমুখ।

এর আগে বুধবার সকালে মরদেহ রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়া হলে সর্বস্তরের জনগণ তার প্রতি শ্রদ্ধা জানায়। সকাল আটটা থেকে দশটা পর্যন্ত রেখে তার মরদেহ জাতীয় সংসদ ভবনে নিয়ে যাওয়া হয়।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় সমাজকল্যাণ মন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ মহসিন আলীর নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়। সেখানে সৈয়দ মহসিন আলীর প্রতি শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। এরপর তাকে গার্ড অব অনার দেয়া হয়।

তার প্রথম নামাজে জানাজা হয় সিঙ্গাপুরের অ্যাঙ্গুলিয়া জামে মসজিদে। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত সৈয়দ মহসিন আলীকে গত ২ সেপ্টেম্বর রাজধানীর বারডেম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে ৫ সেপ্টেম্বর এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে সিঙ্গাপুরে নেয়া হয় তাকে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত সোমবার সকালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মঙ্গলবার রাত সাড়ে দশটায় তার মরদেহ সিঙ্গাপুর থেকে দেশে আনা হয়। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তার মরদেহ গ্রহণ করেন জাতীয় সংসদের সাবেক ও বর্তমান চীফ হুইপ।