১৯ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টাঙ্গাইলে ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে ॥ আটক ৩

নিজস্ব সংবাদদাতা, টাঙ্গাইল, ১৬ সেপ্টেম্বর ॥ ৮ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ এবং ওই ধর্ষণের ভিডিও মোবাইল ফোনে ধারণ করে তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। আর এ ঘটনায় মঙ্গলবার ভূঞাপুর থানা পুলিশ ৩ যুবককে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো উপজেলার চিতুলিয়া গ্রামের শাজাহানের ছেলে রিপন (১৮) ও তার অপর দুই সহযোগী কুরবান (১৯) ও রুবেল (১৮)।

জানা যায়, উপজেলার চর কোনাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর এক ছাত্রীর সাথে চিতুলিয়া গ্রামের ছেলে ঢাকার উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রিপনের সাথে মোবাইল ফোনে কথোপকথন থেকে সখ্য গড়ে ওঠে। এর ধারাবাহিকতায় রিপন গত শনিবার মোটরসাইকেলযোগে ওই ছাত্রীকে বঙ্গবন্ধু সেতু এলাকার বেলটিয়া নামকস্থানে বেড়াতে নিয়ে যায়। সেখানে আগে থেকেই নৌকা ভাড়া করে অপেক্ষায় ছিল রিপনের কয়েক সহযোগী। তারা ছাত্রীকে যমুনা নদী দেখানোর কথা বলে নৌকায় তুলে। পরে নৌকা মাঝ নদীতে পৌঁছালে রিপন, আলামিন ও নয়নসহ অন্যরা ছাত্রীকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধর্ষণ করে। আর ওই ধর্ষণের দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করে তাদের অপর এক বন্ধু আলামিন। পরে তারা ধারণকৃত ধর্ষণের ভিডিওটি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়। এলাকার লোকজন ইন্টরনেটে ধর্ষণের ভিডিওটি দেখে তা ডাউনলোড করে। আর তখনি ঘটনাটি জানাজানি হয়ে যায়। পরে মেয়েটির পরিবারের লোকজন ও স্থানীয়রা মঙ্গলবার বিকেলে রিপন, রুবেল ও কুরবান নামের ৩ জনকে আটকে রেখে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ তাদের আটক করে ভূঞাপুর থানায় নিয়ে আসে। এ বিষয়ে ভূঞাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ ফজলুল কবির ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রাথমিকভাবে ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। ভিকটিমকে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। অপর আসামিদের আটকের জন্য অভিযান চলছে।