২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বলিউড ঈদ ধামাকা

  • পান্থ আফজাল

বলিউড জগত। যে জগতকে আকাক্সিক্ষত রঙিন অঙ্গনের তারকার ‘চাঁদের হাট’ বললে ভুল হবে না! সারা বিশ্বের তারকাপ্রেমীদের ধমনীতে বিনোদনের আবেশ ছড়িয়ে দেয়ার মতো মুভি তৈরির কারিগর এই বিচিত্র দুনিয়া। যেখানকার তারকা খ্যাতি তাবত বিনোদন লাভারস মানুষের কাছে ঈর্ষণীয়। কি নেই বলিউড ফিল্মে? আছে শুদ্ধ রোমান্স, দুর্দান্ত এ্যাকশন, রক্ত শীতল করা হরর দৃশ্য, চরম নাটকীয়তা, দম ফাটানো কমেডি, সহনীয় সেক্স ফিকশান, গৌরবের ইতিহাস, মিথ আর শরীর দোলা দেয়া সঙ্গীত ও কোরিওগ্রাফি। বছরের পুরো সময় বলিউডপাড়া যেমনই চাঙ্গা থাকুক না কেন, প্রত্যেক ঈদের জন্য হিসাব-নিকাশ থাকে অন্যরকম। কারণ, এই সময় ফিল্মভক্তরা মুখিয়ে থাকে ভিন্নধারার তারকাসমৃদ্ধ মুভির অপেক্ষায়। এরই ধারাবাহিকতায়, বলিউড ‘কুইন’ কঙ্গনা রানাউত আর চকলেট বয় ইমরান খান এই ঈদে ফিল্ম ‘খাট্টি-বাট্টি’ নিয়ে হাজির হচ্ছে সম্পূণ নতুন মোড়কে। ইউটিভি মোশন পিকচারসের ব্যানারে নিমিত এই ফিল্মের পরিচালক গুণীনির্মাতা নিখিল আদ্ভানি এবং প্রযোজক সিদ্ধার্থ রয় কাপুর। ২০ কোটি রুপি বাজেটের এন্টি-রোমান্টিক কমেডি ঘরানার ‘খাট্টি-বাট্টি’ মুভির কেন্দ্রীয় চরিত্রে রয়েছে কুইন খ্যাত কঙ্গনা আর লাভারবয় ইমরান খান। ২০১৫ সালের জুনে এই বহুল প্রতীক্ষিত মুভির ট্রেইলার ইউটিউবে ছাড়া হয়। আর সেখানকার ভিউয়ারস সংখ্যা তো চোখে পরার মতো! তবে এই রুদ্ধশ্বাসের ইতি ঘটবে ঈদ-উল-আযহার কিছুদিন আগে অর্থাৎ ১৮ সেপ্টেম্বর। সম্প্রতি মাধিরূপী ইমরান আর পায়েল নামের কঙ্গনার মধ্যেকার বিপরীতমুখী ভালবাসার গল্প এই ‘খাট্টি-বাট্টি’। ফিল্মে পায়েলের প্রতি মাধির ভালবাসার সূত্রপাত হয় পায়েলের জীবনধর্মী আচরণ দেখে। আর এভাবেই দুজনার লিভ-ইন-রিলেশনশিপ চলে ৫ বৎসর ধরে। কিন্তু সম্পর্কের টানাপড়েনে মাঝপথে তাদের সম্পর্ক বাঁক নেয় অন্য গন্তব্যে। পায়েল মাধিকে ছেড়ে চলে যায়। আর সম্প্রতি ‘খাট্টি বাট্টি’ সিনেমার ‘লিপ টু লিপ’ গানটি ইউটিউবে মুক্তি পেয়েছে। মজার বিষয় হলো, গানের দৃশ্যটি ঠিকঠাকভাবে ধারণ করার জন্য পরিচালক কঙ্গনা আর ইমরানকে দিয়ে একের পর এক চুম্বন দৃশ্য করিয়েছেন। ওদিকে আপাদমস্তক পেশাদার কঙ্গনা ও ইমরান কোন আপত্তি না সুবোধের মতো তা করেও গেছেন। চুমুর পারফেক্ট শট পেতে নিখিল তাদের দিয়ে ২৩ হাজারবার কিস করিয়েছেন। ২ মিনিট ১১ সেকেন্ডের গান, আর তার জন্য কিনা ২৩ হাজারবার চুমু? ভাবা যায়! এদিকে বলিউড ‘কুইন’ কঙ্গনা রানাউতকে চিনতে বলিউডের খানিকটা দেরি হলেও কঙ্গনা ভক্তরা কিন্তু ঠিকই সঠিক হীরের খোঁজ পেয়েছেন। অবশ্য কঙ্গনা বলতেই ভক্তদের নিকট ভিন্ন আর নতুন স্টাইল আইকন হিসেবে দেখা মেলে। তবে, বলিউডের স্টাইল আইকন হয়ে যাওয়া এই নায়িকা কিন্তু ইউরোপের বাজারেরও নজর কেড়েছেন সমানতালে। ‘গ্যাংস্টার’, ‘ওহ লামহে’, ‘ফ্যাশন’, ‘রিভালভর রানি’, ‘কুইন’, ‘তনু ওয়েডস মনু’ এবং ‘তনু ওয়েডস মনু রিটার্নসে’ ভিন্ন ভূমিকায় দেখা গেছে ছোট শহর থেকে আসা বলিউডের এই কোঁকড়ানো চুলের সুন্দরীকে। প্রতিটা ছবির জন্যই তিনি প্রশংসা পেয়েছেন বিশেষজ্ঞ ও দর্শকদের কাছ থেকে। সম্প্রতি ‘কুইন’ ছবিটি ১৬তম আইফার মঞ্চে সেরা ছবি, সেরা অভিনেত্রী, সেরা কাহিনীর জন্য পুরস্কৃতও হয়েছে। আর এবার তিনি ‘খাট্টি বাট্টি’ ছবিতে ইমরান খানের বিপরীতে অভিনয় করতে চলেছেন এবং সেই ছবিতে কঙ্গনা অভিনয় প্রশংসা কুড়িয়েছে ফিল্মবোদ্ধাদের। তবে কিছুদিন ধরে ‘মিস্টার পারফেকশনিস্ট’ আমির খানকে নিয়ে একটা খবর হৈচৈ ফেলে দিয়েছে মিডিয়া জগতে। ভাগ্নে ইমরান খান এবং কঙ্গনা রানাউতের ঈদের ছবি ‘খাট্টি বাট্টি’ দেখে কেঁদে ফেলেছিলেন মি.খান। শেষ দেড় ঘণ্টার বিচ্ছেদ আর স্পর্শকাতর অভিনয়ে মুগ্ধ নায়ক চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি। সত্যিই অদ্ভুত! দিন কয়েক আগেই সলু মিঞার ‘বজরঙ্গি ভাইজান’ দেখে এতটাই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন ‘মিস্টার পারফেকসনিস্ট’ যে, সাংবাদিকদের সামনেই চোখের জল ফেলতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। কারণ যাই হোক না কেন ইতোমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় আমিরের কান্না নিয়ে মজা করছেন অনেকে। ‘আমির ইন টিয়ার্স’ নামের একটি হ্যাশট্যাগও টুইটারে চালু হয়ে গিয়েছে। আমিরের কান্নাকে ব্যঙ্গ করে কেউ লিখছেন, ‘সিনেমা দেখায় মনে হয় আমিরের এ্যালার্জি রয়েছে। তাই বার বার কেঁদে ফেলছেন! ’আবার কেউ লিখছেন, ‘আমির ঘণ্টায় চার লিটার গতিবেগে কাঁদেন।’ কেউ বা মনে করিয়ে দিচ্ছেন, ‘রোতে রোতে হাসনা শিখো, হাসতে হাসতে রোনা’ গানটি। বলিউড ঘাঁটলে দেখা যাবে যে, বেশিরভাগ রোমান্টিক মুভি হয় প্রেমিকার সঙ্গে প্রেমিকের মধুর সাক্ষাত; তারপর শেষ মুহূর্তে সুন্দর মিলনের মাধ্যমে সুখের সাগরে অনন্তব্যাপিয়া হাবুডুবু খাওয়া। কিন্তু ইমরান-কঙ্গনা এই ফিল্মে নতুনভাবে গতানুগতিক ধারা থেকে বেরিয়ে এসেছেন বলে জানিয়েছেন। ছবি প্রসঙ্গে কঙ্গনা বলেন’ এটা শুধুই লিভ-ইন-রিলেশনশিপ নামক গল্প নয়। শেষ অর্ধেক সময়ে গল্পের অনুভূতি আর হৃদয়গ্রাহি দৃশ্য আপনার দুচোখকে অশ্রুসিক্ত করবে নিশ্চিত বলতে পারি। কান্না ধরে রাখা কষ্টকর হবে। অবশ্য আমার এই কথা ফিল্মটি না দেখে বিশ্বাস করা একেবারে অসম্ভব!’ আর কো-স্টার ইমরানের জবাব অত্যন্ত সোজা-সাপটা। ‘সে সুন্দর বলেই তাকে ভালবাসি- এটা কিন্তু সত্যিকার ভালবাসা হতে পারে না। অন্যদিকে এটি পরিপূর্ণ সম্পর্কের ক্ষেত্রে বাস্তবসম্মত না। একটি সত্যিকার সম্পর্ক হবে এমন যেন তুমি কাউকে ভালবাস কোনরূপ কারণ ছাড়াই... আর এই মুভিতে আমরা সেটাই উপস্থাপন করতে চেষ্টা করেছি।’

দেখা যাক, সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে এই ঈদে ‘খাট্টি বাট্টি’ ফিল্মটি কেমন ব্যবসাসফল আর দর্শকনন্দিত হয়। আর বলিউড জুটি ইতিহাসে নতুন করে ইমরান-কঙ্গনা জুটি ভক্তমনে কেমন আলোড়ন তুলতে পারে! তবে সেই মাহেন্দ্রক্ষণের জন্য মুভিপ্রেমীদের আরও কয়েকটাদিন অপেক্ষা তো করতে হবে।

নির্বাচিত সংবাদ