২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আজ ঐতিহাসিক শিক্ষা দিবস বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলনের প্রতীক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলনের প্রতীক ঐতিহাসিক ‘শিক্ষা দিবস’ আজ। তৎকালীন পাকিস্তানী সামরিক স্বৈরাচার আইয়ুব খানের চাপিয়ে দেয়া শরীফ কমিশনের অগণতান্ত্রিক ও শিক্ষার্থী স্বার্থবিরোধী শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে পূর্ব পাকিস্তানের ছাত্র সমাজের আন্দোলনের আজ ৫৩তম বার্ষিকী। ছাত্র-জনতার ব্যাপক গণআন্দোলনের রক্তাক্ত স্মৃতিবিজড়িত এ দিবসটি উপলক্ষে আজ বিভিন্ন ছাত্র ও শিক্ষক সংগঠন নানা কর্মসূচী পালন করবে।

১৯৫৯ সালে প্রেসিডেন্ট ও সামরিক শাসক আইয়ুব খান তৎকালীন শিক্ষা সচিব এসএম শরিফকে চেয়ারম্যান করে ১১ সদস্যবিশিষ্ট শিক্ষা কমিশন গঠন করেন। ওই কমিশন পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর লক্ষ্য ও স্বার্থের প্রতিফলন ঘটিয়ে একটি গণবিরোধী শিক্ষানীতি প্রণয়ন করে। ১৯৬২ সালের মাঝামাঝি সময়ে এই কমিশনের রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়। সঙ্গে সঙ্গে আইয়ুব সরকার এই কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করে। সালে পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠীর প্রতিভূ সামরিক শাসক জেনারেল আইয়ুব খানের চাপিয়ে দেয়া অগণতান্ত্রিক ও ছাত্রস্বার্থবিরোধী এ শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে পূর্ব পাকিস্তানের ছাত্রসমাজ তীব্র আন্দোলন ও সংগ্রাম গড়ে তোলে। ছাত্রসমাজের আন্দোলনের প্রতি সাধারণ জনগণের সহানুভূতি ও সমর্থন ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকে। ১৯৬২ সালের এই দিনে ছাত্ররা শিক্ষাকে পণ্য করার ওই শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে মিছিল বের করলে হাইকোর্টের সামনে পুলিশ গুলি চালায়। নিহত হন মোস্তফা, বাবুল, ওয়াজীউল্লাাহসহ অনেকে। সেই থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও ছাত্র সংগঠন প্রতিবছর এ দিনটিকে মহান শিক্ষা দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।

দিবসের কর্মসূচী ॥ আজ শিক্ষকদের মর্যাদা বৃদ্ধি আর শিক্ষানীতি বাস্তবায়নের দাবি নিয়ে বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে আলোচনার আয়োজন করেছেন জাতীয় শিক্ষক কর্মচারী ফ্রন্ট। সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যক্ষ কাজী ফারুক আহমেদের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখবেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, জাতীয় শিক্ষক নীতি প্রণয়ন কমিটির কো-চেয়ারম্যান, ড. কাজী খলিকুজ্জামান আহমদসহ বিশিষ্ট শিক্ষাবিদরা। জাতীয় শিক্ষা তথ্য পরিসংখ্যান ব্যুরো (ব্যানবেইস) ভবন মিলনায়তনে বেলা ৩টায় আলোচনা সভার আয়োজন করেছে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ (স্বাশিপ)।