২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গার্মেন্টসের নিরাপত্তা বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বারোপ

  • শ্রম আইন বিধিমালা প্রকাশ

অর্র্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ অবশেষে বহুল প্রতীক্ষিত শ্রম আইনের বিধিমালা প্রকাশ করেছে সরকার। রফতানিমুখী শিল্প বিশেষত গার্মেন্টস খাতের কর্মপরিবেশের নিরাপত্তাকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে এ বিধিমালায়। গতকাল বুধবার শ্রম মন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিকভাবে এ বিধিমালা প্রকাশ করে।

বিধিমালায় প্রতিবছর দুটি উৎসব বোনাস দেয়ার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে রফতানি আয়ের ওপর দশমিক শূন্য তিন শতাংশ হারে অর্থ কেটে রাখতে হবে। ওই অর্থ শ্রমিকদের কল্যাণে ব্যয় হবে। এছাড়া ৫০ জনের বেশি শ্রমিক রয়েছে এমন প্রতিটি কারখানায় মালিক ও শ্রমিকের সমন্বয়ে শক্তিশালী নিরাপত্তা কমিটি গঠনের কথাও বলা হয়েছে বিধিতে। এ কমিটির সদস্যরা কারখানায় শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি দেখভাল করবেন। কমিটির যে কোন সদস্য নিজের নিরাপত্তা ইস্যুতে প্রতিকার চাইতে পারবেন।

অবশ্য বিধিমালা প্রকাশ হলেও এর কিছু বিষয়ে এখনও অস্পষ্টতা রয়ে গেছে বলে মনে করেন শ্রমিক নেতারা। বিশেষত উৎসব বোনাস কত হতে পারে তা নিয়ে অস্পষ্টতা রয়ে গেছে বলে মনে করছেন তারা। তবে বিধিমালা প্রকাশ হওয়ায় নিজেদের সন্তুষ্টির কথা জানিয়েছেন তারা।

অন্যদিকে শ্রম আইনের বিধিমালা জারি হওয়ায় কারখানায় শৃঙ্খলা ফিরবে বলে মনে করেন মালিকপক্ষও। বিশেষত কারখানায় কারখানায় অগ্নি নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বিধিতে কঠোর করা হয়েছে।

রানা প্লাজা ও তাজরীন ফ্যাশন্সে দুর্ঘটনার সূত্র ধরে ২০১৩ সালে শ্রম আইন সংশোধন করা হয়। তবে একটি বিধিমালার অভাবে এ আইন এতদিন কার্যকরভাবে প্রয়োগ করা যায়নি। জিএসপি স্থগিতের পর এ সুবিধা পুনর্বহালের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য দফতর যে ১৬ দফা কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের শর্ত দেয়; এর মধ্যে শ্রম আইনের বিধিমালা প্রকাশ ছিল অন্যতম।

বিধিমালা প্রকাশ হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশে দেশটির চার্জ দ্য এ্যাফেয়ার্স ডেভিড মিলি। গতকাল রাজধানীর ইস্কাটনে এক সেমিনারে তিনি বলেন, বিধিমালা প্রকাশ উৎসাহব্যঞ্জক। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের কাছে শ্রম আইনের বিধিমালা গুরুত্বপূর্ণ। কয়েকদিনের মধ্যেই যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য দফতরের প্রতিনিধিরা বাংলাদেশ সফর করবেন। তখন এ বিষয়ে আলোচনা হবে। তবে একই সঙ্গে শ্রমিকের অধিকার, মেধাস্বত্ব আইন, ঘুষের বিরুদ্ধে আইন, স্বচ্ছতা গুরুত্বপূর্ণ বলে উল্লেখ করেন তিনি।

শ্রম সচিব মিকাইল শিপার এ প্রসঙ্গে বলেন, বিধিমালায় নিরাপদ পরিবেশে সুষ্ঠুভাবে উৎপাদন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা রয়েছে। এর ফলে কারখানার উৎপাদনশীলতা আরও বাড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।