১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মন্ত্রী ও সচিব সৎ হলে দুর্নীতি অর্ধেক কমে যায় ॥ ও. কাদের

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কোন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিব সৎ হলে সে মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতি অটো অর্ধেক কমে যায়। এছাড়া তিনি কর্মকর্তাদের কাজের মান নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করেছেন। বুধবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সচিবালয় বিটের সাংবাদিকদের দুই দিনব্যাপী এক কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমার আত্মীয়স্বজন দুর্নীতি করলে আমাকেই তা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। তা না হলে মন্ত্রী থাকার কোন অধিকার আমার নেই। মন্ত্রণালয়ে গেলে অদ্ভুত সব তদবির আসে। অনিয়ম বা দুর্নীতির জন্য যে ইঞ্জিনিয়ারকে আমি অন্যত্র বদলি করেছি, সেই ইঞ্জিনিয়ারকে আবার সেই পদে ফিরিয়ে আনতে আমার কাছে তদবির করতে আসে। বিসিএস কর্মকর্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, বিগত আওয়ামী লীগ আমলে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলাম। তখন দুই মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছি। কিন্তু তখন যে ফাইল দেখতাম, এখন সে জাতীয় ফাইল কম দেখা যায়। এখন ফাইলে ভাষার মান অনেক কমে গেছে।

তিনি বলেন, হাইব্রিড শুধু রাজনীতিতে নয়, সাংবাদিকতায়ও হাইব্রিড দেখা যাচ্ছে। মফস্বলের সাংবাদিকতার অবস্থা খুবই খারাপ। মফস্বলে গেলে দেখা যায় হাইব্রিড সাংবাদিকদের কি দাপট। এদের দাপটের কারণে প্রকৃত সাংবাদিকরা আমাদের কাছে আসতে পারে না। এদের প্রতিহত করতে প্রকৃত সাংবাদিকদের তিনি আহ্বান জানান।

জনপ্রশাসন সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাপতি এই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে ইকবাল সোবহান চৌধুরী সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ায় খুলনার বটিয়াঘাটার ইউএনকে প্রত্যাহারের দাবি জানান। এ প্রসঙ্গে সংশ্লিষ্ট সংসদ সদস্য পঞ্চানন বিশ্বাস জনকণ্ঠকে বলেন, বিষয়টি মিডিয়ার কাছে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। বটিয়াঘাটার ইউএনও সাধারণ মানুষের জন্য নিরপেক্ষভাবে কাজ করছে। তিনি বলেন, এক সাংবাদিক এক অন্ধ মহিলাকে ইন্স্যুরেন্স করিয়ে দেয়ার কথা বলে ধাপে ধাপে ৬৩ হাজার টাকা নিয়েছে। টাকা জমা হয়নি জানতে পেরে তিনি ইউএনও’র কাছে লিখিত অভিযোগ করলে ইউএনও তা থানায় তদন্তপূর্বক যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন।