২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঢাকায় গৃহকর্মী খুন ॥ বিচার দাবিতে কিশোরগঞ্জে মানববন্ধন

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ॥ ঢাকায় গৃহকর্তার বাসায় কিশোরগঞ্জের মেয়ে তাহমিনা আক্তারকে (১৪) নির্যাতন করে হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে শহরে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নিহতের স্বজনরা ও শত শত এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে দীর্ঘ চার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে গিয়ে মানববন্ধনে মিলিত হয়। পরে সেখানে বক্তৃতা করেন মানবাধিকারকর্মী এ্যাডভোকেট এনামুল হক, স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মিয়া হোসেন, যুবলীগ নেতা মুরাদ, ছাত্রলীগ নেতা সোহেলসহ অন্যরা। এ সময় বক্তারা আগামী ১৫ দিনের মধ্যে আসামিদের গ্রেফতার করতে আল্টিমেটাম দেয়। অন্যথায় আরও কঠোর কর্মসূচী দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন।

সদরের বৌলাইয়ের ছয়না গ্রামের রিক্সাচালক জয়নাল আবেদিন (৪১) অভিযোগে করে বলেন, পার্শ্ববর্তী মহিনন্দ এলাকার অনুফা নামে এক নারী প্রায় ৭ মাস আগে তার মেয়েকে ঢাকায় নিয়ে যান। সেখানে মিরপুরের বাসিন্দা ঢাকা জজকোর্টের আইনজীবী মামুন ওরফে লিটনের ভাড়া বাসায় তাহমিনাকে গৃহকর্মী হিসেবে কাজে দেন। মাসিক ২ হাজার টাকা বেতন দেয়ার কথা থাকলেও তাকে কোন বেতন দেয়া হয়নি। বরং বিভিন্ন সময় বেতন চাইলেই তার মেয়েকে নির্যাতন করা হতো। তিনি আরও বলেন, তার মেয়ে আত্মহত্যা করতে পারে না। তাকে নির্যাতন করে মেরে ফেলা হয়েছে। এ ব্যাপারে মিরপুর থানায় মামলা করতে চাইলেও পুলিশ তা নেয়নি। কিন্তু পরদিন একটি অপমৃত্যু মামলা নিয়েছে।

গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে নিহতের স্বজনরা লাশ নিয়ে কিশোরগঞ্জে এলে তাহমিনাকে নির্যাতন করে মেরে ফেলায় এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। পরে তারা পরদিন লাশের কফিন নিয়ে শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এর প্রেক্ষিতে ঘটনার তিন দিন পর মিরপুর মডেল থানায় নিহতের পিতা বাদী হয়ে গৃহকর্তা এ্যাডভোকেট লিটন ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা ৬(৯)১৫ দায়ের করেন। তবে এখন পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি বলে সূত্র জানিয়েছে।

এদিকে নিহত তাহমিনার স্বজনরা অভিযোগ করে জানান, গৃহকর্তা এ্যাডভোকেট লিটনের এক ভাবি সহকারী পুলিশ সুপার হওয়ায় এ মামলাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে।