২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিচারপতি মানিককে খাসকামরায় বিদায় সংবর্ধনা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিচারিক জীবনের শেষ কর্মদিবসে সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগের বিচারপতি এইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিককে তার খাসকামরায় বিদায় সংবর্ধনা দিয়েছেন আইনজীবীরা। এ ছাড়া সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের অনেক বিচারপতিই খাসকামরায় তার সঙ্গে দেখা করে বিদায় জানিয়েছেন। বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরীর অবসরে যাবেন আগামী ১ অক্টোবর। তবে আজ থেকে সুপ্রীমকোর্ট দেড় মাস অবকাশকালীন ছুটি থাকায় বৃহস্পতিবারই ছিল তার শেষ কর্মদিবস।

সুপ্রীমকোর্টের চিরাচরিত প্রথা অনুযায়ী কোন বিচারপতি অবসরে গেলে তাকে বেঞ্চেই (এজলাস) সংবর্ধনা দেন বিচারপতি ও আইনজীবীরা। তবে গত বুধবার থেকে বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরীকে কোন বিচারিক দায়িত্ব না দেয়ায় তিনি এজলাসে বসতে পারেননি। এই বিষয়টি উল্লেখ করে গত রবিবার রাষ্ট্রপতির কাছে চিঠিও দিয়েছেন বিচারপতি মানিক। ওই চিঠিতে প্রধান বিচারপতি ব্যক্তিগত বিরাগের বশবর্তী হয়ে তাকে বিচারিক কার্যক্রম থেকে সরিয়ে রেখেছেন বলেও দাবি করেন বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী। চিঠিতে বিচারপতি মানিক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার অভিশংসনও চেয়েছেন।

রাষ্ট্রপক্ষ বিচারপতি মানিককে কেন সংবর্ধনা দেয়নি, এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি জনকণ্ঠকে বলেন, নিয়ম হচ্ছে কোন বিচারপতি অবসরে গেলে তাকে বেঞ্চেই সংবর্ধনা দেয়া হয়। তবে বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক তার শেষ কর্মদিবসে বেঞ্চে না থাকায় তাকে সংবর্ধনা দেয়া সম্ভব হয়নি।

এদিকে, বৃহস্পতিবার দুপুর থেকেই বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিককে তার খাসকামরায় গিয়ে বিদায় জানিয়েছেন সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগের অনেক বিচারপতি। এ ছাড়া জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার এম আমীর-উল সলাম, এ্যাডভোকেট আব্দুল বাসেত মজুমদার, এ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ, ব্যারিস্টার তানিয়া আমীর, এ্যাডভোকেট সালাউদ্দিন দোলন, এ্যাডভোকেট পরিমল চন্দ্র গুহ, এ্যাডভোকেট লায়েকুজ্জামান মোল্লা, এ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদসহ অসংখ্য আইনজীবী তাকে খাসকামরায় বিদায় সংবর্ধনা জানান। এ সময় অনেকে বিচারপতি মানিকের জন্য ফুলও নিয়ে যান। এছাড়া অতিরিক্ত এ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজাসহ অনেক ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল ও সহকারী এ্যাটর্নি জেনারেল বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরীকে খাসকামরায় বিদায় জানান।

এর আগে বিএনপি-জামায়াতপন্থী আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রণে থাকা সুপ্রীমকোর্ট আইনজীবী সমিতি বিচারপতি মানিককে সংবর্ধনা দেবে না বলে গত রবিবার এক সাধারণ সভায় সিদ্ধান্ত নেয়। তবে ওই সভায় বিচারপতি মানিককে সংবর্ধনা দেয়াকে কেন্দ্র করে বিএনপি ও আওয়ামীপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে উত্তেজনাকর পরিস্থিতিও সৃষ্টি হয়। সভায় বিচারপতি মানিককে সংবর্ধনা দেয়ার পক্ষে জোরালো অবস্থান নেন আওয়ামী সমর্থক আইনজীবীরা। অন্যদিকে কমিটিতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা বিচারপতি মানিককে সংবর্ধনা না দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। উল্লেখ্য, বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক ১৯৭৮ সালে হাইকোর্টের আইনজীবী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হন। তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় ডেপুটি এ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২০০৯ সালের ২৫ মার্চ হাইকোর্টের বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান। পরে ২০১৩ সালের ৩১ মার্চ সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগের বিচারপতি হিসেবে নিয়োগ পান তিনি। আগামী ১ অক্টোবর তার বয়স ৬৭ পূর্ণ হওয়ায় ওই দিন অবসরে যাবেন তিনি। তবে আজ শুক্রবার থেকে সুপ্রীমকোর্টে দেড় মাসের ছুটি শুরু হওয়ায় বৃহস্পতিবার বিচারিক জীবনের সমাপ্তি হয় তার।