১৮ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হাঙ্গেরি সীমান্তে ॥ কঠিন বাধায় অভিবাসীরা

  • আশ্রয়প্রার্থীদের প্রতি রূঢ় আচরণে মর্মাহত বান কি মুন

হাঙ্গেরির দাঙ্গা পুলিশ বুধবার ১ সন্ত্রাসীসহ ২৯ শরণার্থী ও অভিবাসীকে আটক করেছে। দেশটির সীমান্ত থেকে অভিবাসীপ্রত্যাশীদের ফিরিয়ে দেয়ার জন্য তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও জলকামান ব্যবহার করায় অত্যন্ত মর্মাহত হয়েছেন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন। তিনি বলেন, আশ্রয়প্রার্থীদের প্রতি এরূপ আচরণ গ্রহণযোগ্য নয়। অস্ট্রীয় শহর সালাজবুর্গের সঙ্গে ট্রেন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে জার্মানি। তুর্কি পুলিশ গ্রীসসংলগ্ন সীমান্তে কয়েক অভিবাসীকে বাধা দেয়ার পর তারা সেখানে সারারাত কাটিয়েছে খোলা আকাশের নিচে। খবর ইয়াহু নিউজ, এক্সপ্রেস ট্রিবিউন ও বিবিসি অনলাইনের।

অভিবাসীরা হাঙ্গেরির বন্ধ করে দেয়া সীমান্ত দিয়ে ইইউভুক্ত দেশগুলোতে প্রবেশ করতে চাইলে পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ বেধে যায়। শরণার্থীদের প্রবেশস্রোত হ্রাসের জন্য সার্বিয়া সংলগ্ন ইইউ দেশগুলোর সীমান্ত এ সপ্তাহে বন্ধ করে দেয়ার এ সিদ্ধান্ত ছিল হাঙ্গেরির জন্য এক কড়া পদক্ষেপ। বলকান উপদ্বীপজুড়ে ছড়িয়ে পড়া হাজার হাজার অভিবাসী ইইউ দেশগুলোতে প্রবেশের চেষ্টা করছে। হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর ওরবান বলেছেন, শরণার্থীস্রোত রোধে ক্রোয়েশিয়া ও রোমানিয়াসংলগ্ন হাঙ্গেরির সীমান্তের বিভিন্ন অংশে বেড়া দেয়ার পরিকল্পনা নিচ্ছে তার দেশ।

সার্বিয়ার সঙ্গে বন্ধ করে দেয়া সীমান্ত পথে বুধবার সাঁজোয়া যানবহর অবস্থান নেয়। দাঙ্গা পুলিশ সাঁজোয়া যানগুলোর সাহায্যে অভিবাসীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। যুবক অভিবাসীরা পুলিশের দিকে লক্ষ্য করে ঢিল ছোড়ে এবং সীমান্ত অতিক্রম করতে দেয়ার দাবি জানায়। হাঙ্গেরি বলেছে, সহিংসতার সময় ২৯ অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে এবং এদের মধ্যে ১ জন সন্ত্রাসী। হাঙ্গেরির নিরাপত্তা কর্মকর্তারা বলেছেন, অন্তত ২০ পুলিশ ও ২ শিশু আহত হয়েছে ওই সময়। হাঙ্গেরীয় প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর ওরবানের নিরাপত্তা উপদেষ্টা জিওর্জি ব্যাকন্ডি এমআই টেলিভিশনকে বলেছেন, পুলিশ এক চিহ্নিত সন্ত্রাসীকে আটক করেছে। জার্মানি বুধবার অভিবাসীদের সে দেশে প্রবেশের প্রধান রুট বন্ধ করে দিয়েছে। অস্ট্রীয় শহর সালজবুর্গের সঙ্গে ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে জার্মানি। প্রায় ১ হাজার ২শ’ অভিবাসী সারারাত সালাজবুর্গ স্টেশনে ঘুমিয়েছে। আরও অনেকে জার্মানি যাওয়ার অপেক্ষায় অস্ট্রিয়ায় জরুরীভাবে তৈরি আবাসে অবস্থান করছে। জার্মানি রবিবার তাদের সীমান্ত নিয়ন্ত্রণের ঘোষণা দিলে মানুষের ভিড় শ্লথ হয়ে পড়ে এবং অভিবাসীদের আগমনস্রোত ঠেকাতে যে কর্মকর্তরা ব্যস্ত ছিলেন তারা চাপমুক্ত হয়েছেন। কিন্তু সালজবুর্গে অপেক্ষা করছে কিছুসংখ্যক অভিবাসী। সালজবুর্গ প্রদেশের গবর্নর উইলফ্রিড হ্যাসলাউয়ের বুধবার সকালে বলেছেন, এক ঘণ্টা আগে আমাদের এখানে ২ হাজারের বেশি শরণার্থী ছিল। স্টেশনটি বন্ধ করে দেয়ার উপক্রম হয়েছে। শরণার্থীরা বুঝতে পারছে, এখন কোন ট্রেন চলছে না। তারা তাই হেঁটে রওনা দিচ্ছে। এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, শত শত লোক এখনও স্টেশনে রয়েছে। কিন্তু শহরের কর্মকর্তারা বলেছেন, কয়েক শ’ অভিবাসী পার্শ্ববর্তী সীমান্তের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। অভিবাসীদের হাঙ্গেরি সীমান্ত অতিক্রম বন্ধে দেশটি দক্ষিণাঞ্চলীয় সীমান্ত বন্ধ করে দিলে মঙ্গলবার থেকে অস্ট্রিয়া যাওয়ার ভিড় হ্রাস পেয়েছে। অবশ্য এদের অধিকাংশের লক্ষ্য হচ্ছে জার্মানিতে পৌঁছানো। জার্মানির পর অস্ট্রিয়াও বুধবার তার সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ করেছে। ক্রোয়েশিয়ার রাষ্ট্র পরিচালিত টেলিভিশন এইচআরটি বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, অভিবাসনপ্রত্যাশী প্রায় চার হাজার লোক গত ২৪ ঘণ্টায় সার্বিয়া সীমান্ত দিয়ে ক্রোয়েশিয়ায় প্রবেশ করেছে।