১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘কাউকে ফেবারিট বলতে পারেন না’

  • বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ নিয়ে বাংলাদেশ অনুর্ধ ১৯ দলের পরামর্শক স্টুয়ার্ট ল

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বাংলাদেশ জাতীয় দলের কোচ ছিলেন স্টুয়ার্ট ল। তার তত্ত্বাবধানেই ২০১২ সালের এশিয়া কাপে রানার্সআপ হয় বাংলাদেশ। কিন্তু বাংলাদেশের কোচ হয়ে বেশিদিন থাকেননি স্টুয়ার্ট ল। চলে গেছেন। আবার বাংলাদেশে এসেছে অনুর্ধ ১৯ দলের পরামর্শক হয়ে। উদ্দেশ্য, অনুর্ধ ১৯ বিশ্বকাপের জন্য দলকে তৈরি করা। তবে জাতীয় দলের দিকেও যে তার খেয়াল রয়েছে তা বোঝা গেছে।

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ নিয়ে স্টুয়ার্ট ল বলেছেন, ‘দুই ঘোড়ার দৌড়ে আপনি কাউকে ফেবারিট বলতে পারেন না। আপনি কোন ফেবারিট বেছে নিলে, আপনি আসলে পাগল। সম্প্রতি বাংলাদেশ যেমন খেলেছে, তারা যদি তার কাছাকাছিও কিছু খেলে, তবে অস্ট্রেলিয়ার জন্য সত্যিকারের এক যুদ্ধ অপেক্ষা করছে। অস্ট্রেলিয়া পুনরায় তৈরি হওয়ার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। তাদের দলের বর্তমান চেহারাটা নতুন। সম্প্রতি তারা যে অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের হারিয়েছে, তাদের অভাব পূরণ করা বিশাল ব্যাপার। তবে যারা বাংলাদেশে আসছে, তারা দলের জন্য ক্রিকেট খেলতে চায়। এখানে প্রচুর গরম পড়বে, বল টার্ন করবে। তাদের জন্য অনেক বাধা আছে, যা অতিক্রম করতে হবে। বাংলাদেশকেও ভাল ক্রিকেট খেলতে হবে। যা কঠিন বিষয়। যারা ভাবছে অস্ট্রেলিয়া বাংলাদেশে আসবে এবং স্বাগতিকদের হারিয়ে চলে যাবে, তাদের ভাবনার মতো সবকিছু সহজ হবে না। বাংলাদেশও লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত।’

অনুর্ধ ১৯ দল নিয়ে খুলনায় ক্যাম্প করেছেন স্টুয়ার্ট ল। এ ক্যাম্প নিয়ে জানালেন, ‘খুব কঠিন সময় ছিল। অল্প সময়ের মধ্যে ছেলেদের খুব বেশি ক্রিকেট খেলতে হয়েছে। সবাই খুব কষ্ট করেছে। সবাই ধীরে হলেও নিজের উন্নতি নিয়ে চেষ্টা করেছে। খেলোয়াড়রা নিজেদের ভুলগুলো শুধরানোর জন্য পরিশ্রম করেছে।’ অনুর্ধ ১৯ বিশ্বকাপ এবার বাংলাদেশেই হবে। জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত হবে। এ বিশ্বকাপের জন্য ডিসেম্বরের মাঝামাঝি ১৫ জনের দল ঘোষণা করা হবে বলে জানান স্টুয়ার্ট ল। বিশ্বকাপের আগে অনুর্ধ ১৯ দলের খেলা নিয়েও বলেন, ‘খুব বেশি ক্রিকেট খেলা হয়ে যাচ্ছে বলে আমরা আলোচনা করেছি। আপনি নিশ্চয়ই ছেলেদের ক্লান্ত করে দিতে পারেন না। আপনি নিশ্চয়ই চান না দলের সেরা কোন খেলোয়াড় বিশ্বকাপের আগে ইনজুরড হয়ে যাক। এখন সেরা ১৫- তে সুযোগ দেয়ার জন্য ছেলেরা প্রয়োজনীয় ক্রিকেটটা খেলছে, যাতে নিজেদের প্রমাণ করতে পারবে। তবে তাদের ইনজুরড করে ফেলা যাবে না।’ নিজের কাজ সম্পর্কেও জানালেন এ পরামর্শক, ‘আমাকে বলা হচ্ছে টেকনিক্যাল এ্যাডভাইজার। আমি কোচ ও খেলোয়াড়; উভয় পক্ষকেই সহায়তা করছি। আমার কাছে মনে হয়, আমার কাজ হলো সমন্বয় সাধন করা। এটাই আমি করতে চাই। আমি তাদের আমার পরামর্শ দিয়েছি এবং তাদের পরামর্শও নিয়েছি। আমার কাজ হলো ভাল ক্রিকেটটা নিশ্চিত করা। তাদের আমি আমার সেরা জ্ঞানটা দিতে চাই।’

বিশ্বকাপে বাংলাদেশ অনুর্ধ ১৯ দল চ্যাম্পিয়ন হতে পারবে কি না, তা জানতে চাইলেই স্টুয়ার্ট ল বলেন, ‘সবাই সফলতা চায়। কিন্তু সফলতা একেকজনের কাছে একেক রকম। ট্রফি জিততে পারাটা সাফল্য হতে পারে, আবার দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠা বা সেমিফাইনাল খেলা কারও কাছে সাফল্য হতে পারে। বাংলাদেশ কখনও দ্বিতীয় রাউন্ডে যায়নি, এবার যেতে পারলে সেটা বড় ব্যাপার হবে। কেউ কেউ সাফল্য কিনে নেয়, আশা করি আপনারা সেটা করতে পারবেন না। সেটা করতে পারলে, তা হবে স্বল্পকালীন। তবে দলে যদি দলের সংস্কৃতি ও গঠন যদি ভাল হয়, কর্তৃপক্ষও যদি সে রকম হয়, তবে এটা দীর্ঘ মেয়াদী সাফল্যের দরজা খুলে দেবে।’