২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শরণার্থী-জার্মানির সহায়তায় মুগ্ধ গার্ডিওলা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শরণার্থী সঙ্কটে ধুঁকছে পুরো ইউরোপ। অনেকের মতে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এটাই সবচেয়ে বড় ঘর ছাড়া মানুষের ঢল। কে দেবে আশ্রয়? ইউরোপ আগে থেকেই দ্বিধাবিভক্ত ছিল। দেশের ভেতের-বাইরে বিরোধিতা সত্ত্বেও দরজা খুলে দেয় জার্মানি। আর জার্মানির এমন আচরণ বিশেষ করে দেশটির চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মারকেলের ভূয়সী প্রশংসা। জার্মানির মতো এমন একটি দেশে থাকতে পেরে নিজেকে গর্বিত বলে মন্তব্য করেছেন সাবেক বার্সিলোনার এই সফল কোচ। শুধু তাই নয়, ঘর-বাড়ি হারানো এই মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য অন্যান্য দেশগুলোর প্রতিও আহ্বান জানিয়েছেন বেয়ার্ন মিউনিখের কোচ পেপ গার্ডিওলা।

এ বিষয়ে স্প্যানিশ এই কোচ বলেন, ‘চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মারকেলের সৌজন্যে জার্মানি ইতোমধ্যেই তাদের মহানুভবতার প্রদর্শন করেছে। এটা মোটেই সহজ কোন বিষয় নয়। এমন পরিস্থিতিতে কোন প্রশ্নের উত্তরও খোঁজে পাওয়া যায় না। কিন্তু মারকেলের মাধ্যমে জার্মানিই প্রথম গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়ে উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। আমি মনে করি অন্য দেশগুলোও এমন উদাহরণ থেকে শিক্ষা নেবে। জার্মানির মানুষদের নিয়ে আমি সত্যিই গর্বিত। আর এখানে থাকতে পেরে আমি নিজেও খুব গর্ব অনুভব করছি।’ চলতি বছরে ইতোমধ্যেই ৪৫,০০০ অভিবাসন প্রত্যাশী জার্মানিতে এসে পৌঁছে। এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে স্থানীয় প্রশাসনিক সূত্রে জানা যায়। জার্মানির চ্যান্সেলর এ্যাঞ্জেলা মারকেলের সঙ্গে একাত্মতা পোষণ করেছেন ফুটবলাররাও। জার্মানিতে শীর্ষ দুই লীগে খেলে ৩৬ দল। আর জার্মানির সব ক্লাবই তাদের সমর্থন জানায়। ক্লাবের ফুটবলারা ‘আমরা সাহায্য করছি!’ লেখা জার্সি পরিধান করে তা বিশ্বকেই জানিয়ে দেয়। যে জার্সিতে আরও লেখা ছিল আমরা ‘রিফিউজিদের স্বাগতম’ জানাই। শুধু তাই নয়, বেয়ার্ন মিউনিখের স্প্যানিশ তারকা জাভি মার্টিনেজ তো প্রত্যক্ষভাবেই শরণার্থীদের পাশে দাঁড়িয়েছেন। শহরের প্রধান রেলস্টেশনে স্থানীয় পুলিশের সঙ্গে তিনিও অভিবাসন প্রত্যাশীদের সহায়তা করেন। নতুন অভিবাসীদের আন্তরিকভাবে অভিনন্দন জানানোর জন্য বলে দিয়েছেন বেয়ার্ন মিউনিখের স্পোর্টিং ডিরেক্টর ম্যাথিয়াস সামিরও। জার্মানি বুন্দেসলিগার ইতিহাসে সবচেয়ে সফল ক্লাব বেয়ার্ন। এখনও এককভাবে রাজত্ব করছে তারা। আর এই ক্লাবের কোচ, খেলোয়াড় থেকে শুরু করে কর্মকর্তারাও যেভাবে রিফিউজিদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তা সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।