২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ইউএনও দ্বন্দ্ব ॥ ইয়াবা নাটক

  • যুবক আটক ॥ তদন্ত কমিটি

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর ॥ বীরগঞ্জে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাসায় নিয়ে যাওয়ার পথে ইয়াবা ট্যাবলেট ও ফেনসিডিলসহ এক যুবককে আটক করে বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। এই ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক)কে আহ্বায়ক করে ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। অপ্রীতিকর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বীরগঞ্জ থানার অফিসার্স ইনচার্জ জানান, বৃহস্পতিবার সকালে বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আমিনুল ইসলামের সংবাদের ভিত্তিতে তিনি ৬টি ইয়াবা ও ২ বোতল ফেনসিডিলসহ এক যুবককে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। আটক যুবক বগুড়া সদর উপজেলার নিশিধারা গ্রামের মোফাজ্জল হোসেনের পুত্র মেহেদি হাসান রবিন (২৮)। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে স্বীকার করে, সে গত ৬ মাস ধরে বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাসেল মনজুরকে ইয়াবা ট্যাবলেট ও ফেনসিডিল সরবরাহ করত। বুধবার ইউএনও রাসেল মনজুরের চাহিদা অনুযায়ী ৬টি ট্যাবলেট ও ফেনসিডিল পেপসির বোতলে করে রাত পৌনে ৪টায় নাবিল কোচযোগে বীরগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সামনে নামে। এ সময় কয়েক যুবক তাকে আটক করলে, সে ঘটনার বিষয় স্বীকার করে। তাকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। বৃহস্পতিবার আটক আসামিকে দিনাজপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। বিচারক আগামী ২০ সেপ্টেম্বর রিমান্ড শুনানির জন্য দিন ধার্য করে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। এসব অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাসেল মনজুর জানান, সামাজিকভাবে হেয়-প্রতিপন্ন করার জন্য, উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আমিনুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক নাটক সাজিয়েছেন। দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম জানান, এই ঘটনায় রহস্য উদ্ঘাটনে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবু রায়হান মিয়াকে আহ্বায়ক করে ৩ সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত টিম গঠন করা হয়েছে। আগামী ৭ কার্য দিবসের মধ্যে রিপোর্ট দেয়ার জন্য বলা হয়েছে।