২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাঙ্গালি সংস্কৃতিকে বিশ্বদরবারে তুলে ধরতে হবে ॥ সংস্কৃতিমন্ত্রী

নিজস্ব সংবাদদাতা, টাঙ্গাইল ॥ টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে বেহুলা লাচারি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান উদ্বোধনকালে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, বাঙ্গালি সংস্কৃতিকে বিকশিত করে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরতে হবে। সংস্কৃতি দিয়ে যেভাবে আমাদের দেশটাকে তুলে ধরতে পারি, অন্য কিছু দিয়ে তা সম্ভব নয়। আগামীতে মরক্কোতে যে অনুষ্ঠান হবে বাংলাদেশ সেখানে হবে থিম কান্ট্রি। বাঙ্গালী জীবনে গ্রামীণ পটোভূমিকায় গড়ে ওঠা সাংস্কৃতি শেকড়ের সভ্যতার ধারক বাহক হিসেবে জাতীয় জীবনে অবদান রেখে চলেছে প্রায় হাজার বছর ধরে। গ্রামীণ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ধরে রেখেছে বেহুলা লাচারী। চাঁদ সওদাগর, বেহুলা-লক্ষিন্দর, পদ্মা-মনষা গ্রামীণ বিশাল জনগোষ্ঠির কাছে এক পরিচিত নাম। আমার র্প্বূপুরুষ টাঙ্গাইল ভূঞাপুরের মানুষ, বর্তমানে তাদের কিছু বংশধর ভূঞাপুরে বসবাস করছেন।

ভুঞাপুর উপজেলার বাগবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে শুক্রবার দুপুরে সাংস্কৃতিক সংগঠন সাধনা ও যান্ত্রিক এর আয়োজিত দুইদিনব্যাপী বেহুলা লাচারি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রীর সহধর্মিনী ও কন্যাসহ অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমীর মহাপরিচালক ড. শামসুজ্জামান খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃতি বিভাগের চেয়ারম্যান জামিল আহম্মেদ, টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আনোয়ার হোসেন, গ্রীন ডেল্টা লাইফ ইন্সুরেন্স এর সিও রাফি খান, ভূঞাপুর পৌর মেয়র মাসুদুল হক, যান্ত্রিক সাদাব সাদ, ভূঞাপুরের মুক্তিযুদ্ধের গবেষক অধ্যাপক শফি উদ্দিন তালুকদার, ফোকলোর গবেষনা প্রতিষ্ঠান সাধনার কর্ণধার লুবনা মারিয়াসহ দেশী-বিদেশি বেশ কিছু গবেষনা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

বেহুলা লাচারি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানে ৫টি দল অংশ নিয়েছেন। বিচারকের দায়িত্ব পালন করবেন ড. শামসুজ্জামান খান, জামিল আহম্মেদ ও রেজাউল হক সলক।