২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘বাংলাদেশে স্মিথবাহিনীর সাফল্য নিশ্চিত’

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ টেস্ট ক্রিকেটে দুইয়ে থাকলেও ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ে বিশ্বের এক নম্বর দল অস্ট্রেলিয়া। বর্তমানে একটি বড় পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে অসিরা। এবার এ্যাশেজের পর নতুন চেহারা পেয়েছে দলটি। দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞ অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্কসহ অবসর নিয়েছেন পাঁচ সিনিয়র ক্রিকেটার। ইনজুরি, ফর্মহীনতা এবং বিশ্রামের জন্য আরও কয়েকজন অপরিহার্য ক্রিকেটারই নেই। তাই স্থায়ী অধিনায়ক হিসেবে প্রথম মিশনেই স্টিভেন স্মিথ পেয়েছেন একেবারে তরুণ একটি দল। ২৬ বছর বয়সী এ তরুণের নেতৃত্বে আগামী মাসেই বাংলাদেশ সফরে দুই টেস্টের সিরিজ খেলবে অসিরা। অনেকে নতুন করে দলে ফিরেছেন এবং দু’জন আছেন নবাগত, ইনজুরির কারণে সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকেও পাচ্ছেন না স্মিথ। সে কারণে বাংলাদেশ সফর কঠিন চ্যালেঞ্জ তার জন্য। কিন্তু এ অগ্নিপরীক্ষার আগে তার পূর্বসূরি মাইকেল ক্লার্ক আস্থার কথা জানালেন স্মিথের ওপর। সাবেক অধিনায়কের দাবি দলনেতা হিসেবে বেশ সফল হবেন স্মিথ। বাংলাদেশ সফরে অসি সাফল্যের বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই ক্লার্কের। তার দাবি অবশ্যই সফল হবে অস্ট্রেলিয়া।

বাংলাদেশ সফর দিয়ে নতুন এ দায়িত্ব শুরু করবেন স্মিথ। যদিও ক্লার্কের অনুপস্থিতিতে গত বছর নবেম্বর-ডিসেম্বরে সিরিজের তিন টেস্টে ভারতের বিপক্ষে অধিনায়কত্ব করেছিলেন, তখনই পরবর্তী দলনেতা হিসেবে ট্রায়ালও হয়ে গেছে। আসন্ন বাংলাদেশ সফরে স্থায়ী অধিনায়কত্বটা শুরু। এ বিষয়ে ক্লার্ক বলেন, ‘তাকে নিজের ব্যাটিং এবং দল-দু’টোকেই সামাল দিতে হবে। আমার মনে হয় সেটা করার মতো যথেষ্ট সপ্রতিভ তিনি। আমি বাংলাদেশ সফরে গিয়ে ছেলেদের সফলতা দেখতে চাই। আমি অনেকটাই নিশ্চিত যে তারা সেটা পারবে। এই দলে প্রচুর মেধাবী ক্রিকেটার আছে। এখন শুধু অপেক্ষা করে দেখার পালা। কিছুদিন একসঙ্গে তারা খেললে ধীরে ধীরে পরস্পরের মধ্যে আস্থা তৈরি হবে।’ ক্লার্ক মনে করেন ক্রিকেট এমন একটি খেলা যেখানে সবারই কিছু সুযোগ প্রয়োজন হয় নিজের যোগ্যতা প্রমাণের জন্য। সর্বোচ্চ পর্যায়ের ক্রিকেট খেলার সক্ষমতা থাকে অনেকের মধ্যে, কিন্তু সেটা জানা ও বের করে আনার জন্য যেকোন ক্রিকেটারকে সময় দিতে হয়।

আগামী অক্টোবরে বাংলাদেশ সফরে দুই টেস্টের সিরিজ খেলার জন্য ইতোমধ্যেই দল ঘোষণা করেছে অস্ট্রেলিয়া। ক্লার্ক, শেন ওয়াটসন, ব্র্যাড হ্যাডিন, ক্রিস রজার্স ও রায়ান হ্যারিসরা অবসর নিয়ে ফেলেছেন। সে কারণে তাদের বিকল্প খুঁজতে হয়েছে। আবার অপরিহার্য ও নির্ভরযোগ্য দুই পেসার মিচেল জনসন ও জশ হ্যাজলউডের ওপর থেকে চাপ কমানোর জন্য দেয়া হয়েছে বিশ্রাম। ইনজুরির কারণে সহ-অধিনায়ক ওয়ার্নার আসতে পারছেন না। সবমিলিয়ে একেবারেই নতুন চেহারা পেয়েছে দল। নেতৃত্বেও পরিবর্তন। এবার এ্যাশেজ খেলা দলটির সঙ্গে বাংলাদেশ সফরের জন্য ঘোষিত ১৫ সদস্যের টেস্ট দলটির কোন সাদৃশ্য খুঁজে পাওয়াই কঠিন। এ্যাশেজে এবার ভরাডুবি হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার। তবে ব্যাট হাতে সবচেয়ে সফল ছিলেন স্মিথ। ক্যারিয়ারের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিও করেছেন লর্ডস টেস্টে। খেলেছেন ২১৫ রানের একটি দুর্দান্ত ইনিংস। ক্লার্ক মনে করেন সবচেয়ে উপযুক্ত হিসেবে সঠিক সময়েই অধিনায়ক হয়েছেন স্মিথ। ক্লার্ক বলেন, ‘আমি মনে করি স্মিথের মধ্যে যে ইতিবাচক দিক আছে সেটার কারণেই তিনি সবার চেয়ে এগিয়ে। এই মুুহূর্তে নিজের সেরা সময়ে আছেন এ তরুণ। আমার মনে হয় এটাই উপযুক্ত সময় ছিল তার অধিনায়ক হওয়ার। তিনি যেভাবে ব্যাটিং করছেন এবং এগিয়ে চলেছেন নৈপুণ্য দেখিয়ে সেটা দেখে মনে হচ্ছে খেলাটাকে দারুণ উপভোগ করছেন তিনি।’