২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ক্যামেরার বাজারদর

ক্যানন

১০ হাজার ৩শ’ থেকে ২৮ হাজার টাকার মধ্যেই পাওয়া যাবে ক্যাননের কমপ্যাক্ট ক্যামেরা। বর্তমানে ইক্সাস-১৪৫, ইক্সাস-১৫৫, ইক্সাস- ২৬৫ ঐ৩, পাওয়ারশূট ৫ী জুম এইচএস এবং পাওয়ারশূট ং১১০ এই মডেলের ক্যামেরাগুলোই পাওয়া যাচ্ছে ক্যাননে। এ ছাড়াও ক্যাননে আছে বিভিন্ন মডেলের ডিএসএলআর ক্যামেরা। ক্যানন বিক্রেতাদের দোকানগুলোতে ৩৫ হাজার থেকে শুরু করে ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকায় কিটলেন্সসহ পাবেন এ ক্যামেরাগুলো। রাজধানীর বিসিএস কম্পিউটার সিটির আইডিবি শাখার ক্যানন ডিলার জেএএন এ্যাসোসিয়েটস লিমিটেডের জ্যেষ্ঠ ব্যবস্থাপক ডিএসএলআর ক্যামেরা কেনা প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমি মনে করি ডিএসএলআর অত্যন্ত স্পর্শকাতর একটি যন্ত্র। তাই খোঁজ-খবর নিয়ে সঠিক বিক্রেতার কাছ থেকে কেনা উচিত।’ ডিএসএলআর সম্পর্কে প্রাথমিক জ্ঞান নিয়ে তারপর কেনার সিদ্ধান্ত নেয়া এবং যেখান থেকে কেনা হচ্ছে তারা পরে কী ধরনের বিক্রয়োত্তর সেবা দেবে সে বিষয়টিও পরিষ্কারভাবে জেনে নেয়ার অনুরোধ জানান তিনি। আগ্রহী ক্রেতাদের সুবিধার্থে এখন বাজারে জনপ্রিয় যেসব ক্যানন ডিএসএলআর ক্যামেরা রয়েছে, সেগুলোর সাম্প্রতিক দাম তুলে ধরা হলো।

ইওস ১১০০উ (১৮-৫৫ এমএম লেন্স) ৩৫ হাজার টাকা। ইওস ৬০০উ (১৮-৫৫ এমএম লেন্স) ৫০ হাজার টাকা।

ইওস ৭০০উ (১৮-৫৫ এমএম এসটিএম লেন্স) ৬৫ হাজার টাকা। ইওস ৬০উ (১৮-১৩৫ এমএম লেন্স) ৮৫ হাজার টাকা। ইওস ৭০উ (১৮-১৩৫ এমএম এসটিএম লেন্স) ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। ইওস ৬উ (২৪-১০৫ এলআইএস ইউএসএম লেন্স) ২ লাখ ১০ হাজার টাকা। ইওস ৫উ মার্ক থ্রি (২৪-১০৫ এলআইএস ইউএসএম লেন্স)-৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা।

নিকন

১০ হাজার থেকে শুরু করে ৫৮ হাজার টাকার মধ্যেই কেনা সম্ভব নিকনের কমপ্যাক্ট ক্যামেরা। প্রতিষ্ঠানটির কুলপিক্স খ৩০, খ৮৩০, ঝ২৮০০, ঝ৩৬০০, ঝ৫৩০০ এবং ঝ৬৬০০ মডেলের ক্যামেরাগুলো কিনতে বর্তমানে খরচ পড়বে ১৪ হাজার থেকে ১৮ হাজার টাকা।

এ ছাড়াও ২৩ হাজার থেকে ৫৮ হাজার টাকার মধ্যেই পাবেন নিকনের কুলপিক্স অ, ঝ ৯৭০০, অডট১১০ (ওয়াটারপ্রুফ) এবং কুলপিক্স ঝ ৯৬০০ মডেলের ক্যামেরাগুলো। আগ্রহী ক্রেতাদের জন্য নিকনের জনপ্রিয় এবং বাজারে পাওয়া যাচ্ছে এই ধরনের ডিএসএলআর ক্যামেরাগুলোর মডেল ও মূল্য দেয়া হলো।

নিকন উ৩১০০ (১৮-৫৫ এমএম ভিআর লেন্স) ৩৫ হাজার টাকা। নিকন উ৩২০০ (১৮-৫৫ এমএম ভিআর লেন্স) ৪০ হাজার টাকা। নিকন উ৫১০০ (১৮-৫৫ এমএম ভিআর লেন্স)৩৬ হাজার টাকা। নিকন উ৫২০০ (১৮-৫৫ এমএম ভিআর লেন্স) ৫০ হাজার টাকা। নিকন উ৭০০০ (১৮-১০৫ এমএম ভিআর লেন্স) ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। নিকন উ৭১০০ (১৮-১০৫ এমএম ভিআর লেন্স) ১ লাখ ৪ হাজার টাকা। নিকন উ৬০০ ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। নিকন উ৮০০ ২ লাখ ১৫ হাজার টাকা। নিকন উ৮০০ঊ ২ লাখ ২৬ হাজার টাকা। নিকন উ৪ ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

কিস্তিতেও কেনার সুযোগ রয়েছে নিকনের ডিএসএলআর ক্যামেরা। তবে সেজন্য আমেরিকান এক্সপ্রেস কিংবা স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ডের ক্রেডিট কার্ডধারী হতে হবে। ফ্লোরা লিমিটেডে কার্ডটি সঙ্গে নিয়ে গেলেই নির্ধারিত ফর্ম পূরণ করে ১২ মাসে পরিশোধ করতে পারবেন ক্যামেরার দাম। কিছু মডেল ছাড়া বেশিরভাগ ক্যামেরার কিস্তি পরিশোধে অতিরিক্ত কোন অর্থ প্রদান করতে হবে না। এ ছাড়াও নিকন বাজারে নিয়ে এসেছে ডিএফ মডেলের ডিএসএলআর। বর্তমান মূল্য ২ লাখ ২০ থেকে ২ লাখ ২৫ হাজার টাকা।

ক্যামেরার মূল্যের এই তারতম্যের প্রসঙ্গে রাজধানীর বিসিএস কম্পিউটার সিটির আইডবি শাখার ফ্লোরা লিমিটেডের সহকারী বিক্রয় ব্যবস্থাপক বলেন, ‘মেগাপিক্সেল, স্ক্রিনের আকৃতি, জুম ক্ষমতা এবং অভ্যন্তরীণ ফিচারের উপর আমাদের কমপ্যাক্ট ক্যামেরাগুলোর দাম নির্ভর করে।’

এছাড়া রাজধানীর পান্থপথের বসুন্ধরা সিটিতে রয়েছে বেশ কয়েকটি ক্যামেরার দোকান। এখানে নানান মডেলের নিকন ও ক্যাননের ক্যামেরা কিছুটা কম দামে পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

জেনে রাখা ভাল

অবশ্যই ডিলারের কাছ থেকে কিনবেন নতুন ডিএসএলআর ক্যামেরা। কেনার সময় বিক্রয়োত্তর সেবা সম্পর্কে জেনে নিন। বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব সার্ভিসিং ল্যাব রয়েছে সেটিও খোঁজ করুন। নিশ্চিত হয়ে নিন ইন্টারন্যাশনাল ওয়ারেন্টি সম্পর্কে। অনেকেই মনে করেন ইন্টারন্যাশনাল ওয়ারেন্টি বিশ্বের প্রায় সব দেশেই পাওয়া যায়। তবে ব্যাপারটি সম্পূর্ণ ভিন্ন। নিজের দেশের বাইরে দুই বা ততোধিক দেশেই শুধু এ সেবাটি পাওয়া যায়। ডিএসএলআর কেনার আগে ক্যামেরার বডি, লেন্স, অভ্যন্তরীণ সেন্সর, প্রতি সেকেন্ডে কতটি ছবি তুলতে পারে, অটো ফোকাস পয়েন্ট, শাটার স্পিড, আইএসও, মেগাপিক্সেল ইত্যাদি সম্পর্কে ভালভাবে জেনে নেয়া খুবই জরুরী। প্রয়োজনে এসব তথ্য জানতে বিক্রয় প্রতিনিধির সাহায্য নিন।