২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আজ গ্রীসে নির্বাচন

শেষ মুহূর্তের সমাবেশের মধ্য দিয়ে গ্রীসের আসন্ন নির্বাচনের চূড়ান্ত প্রচারণা শেষ হয়েছে। রবিবার অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এই জাতীয় নির্বাচনের সর্বশেষ জরিপে বামপন্থী সিরিজা পার্টি অল্প ব্যবধানে এগিয়ে আছে।

তবে রক্ষণশীল নিউ ডেমোক্রেসি পার্টি খুব একটা পিছিয়ে না থাকায় নির্বাচনের পর গ্রিসে জোট সরকার হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। খবর বিবিসির।

আন্তর্জাতিক বেইলআউটে কয়েক বিলিয়ন ইউরো পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করার পর চাপে পড়ে এ নির্বাচনের ডাক দিয়েছেন সিরিজার প্রধান সাবেক প্রধানমন্ত্রী এ্যালেক্সিস সিপারস। নির্বাচনে যে দলই বিজয়ী হোক তাদের দাতাদের দেয়া বেইলআউটের শর্তানুযায়ী কঠোর কৃচ্ছ্রের বিষয়টি বাস্তবায়ন করতে হবে। শুক্রবার চূড়ান্ত প্রচার সমাবেশে সিরিজার সমর্থকরা এথেন্সের কেন্দ্রস্থলে জমায়েত হয়। সমাবেশে সিপারস বলেছেন, “রবিবার আমরা খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি গণভোটের মুখোমুখি হচ্ছি- এটি পুরনো রাজনৈতিক পদ্ধতি শেষ করার এবং ক্ষুদ্র গোষ্ঠীর শাসন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ করার নির্বাচন।” নির্বাচনে জয়ের মাধ্যমে এ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে দৃঢ় প্রত্যয় জানান সিপারস। অপরদিকে নিউ ডেমোক্রেসির চূড়ান্ত সমাবেশে দলটির নেতা ভ্যাঙ্গেলিস মেইমারাকিস সিরিজাকে সর্বশেষ নির্বাচনে ‘মিথ্যা প্রতিশ্রুতি’ দেয়ার জন্য আক্রমণ করেন, সমাবেশে কৃচ্ছ্র শেষ করার প্রতিশ্রুতিও দেন তিনি। বলেন, ‘রবিবার সিরিজার পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষ হয়ে যাবে।’ গেল সপ্তাহের প্রথম দিকে এক বিতর্কে মেইমারাকিস সিরিজার সঙ্গে মিলে শক্তিশালী একটি জোট গঠনের প্রস্তাব দেন।

কিন্তু এ প্রস্তাবকে ‘অস্বাভাবিক’ বর্ণনা করে তা প্রত্যাখ্যান করেন সিপারস। গ্রিসের অধিকাংশ রাজনৈতিক দলই বেইলআউটের পক্ষে আছে। তবে একটি দল বিপক্ষে, সেই চরম ডানপন্থী দল গোল্ডেন ডন নির্বাচনে তৃতীয় স্থান পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যুক্তরাজ্যে ধর্মীয় নেতাদের নিবন্ধন বাধ্যতামূলক

যুক্তরাজ্যে ইমাম, যাজক ও অন্য ধর্মের প্রধানদের ‘জাতীয় ধর্মীয় নেতা নিবন্ধন’-এ নিজেদের নাম তালিকাভুক্ত করতে হবে। এ ছাড়া সরকার নির্ধারিত প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ এবং চরমপন্থীদের মোকাবেলায় দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাম্প্রতিক পদক্ষেপ অনুযায়ী নিরাপত্তা বিষয়ক পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হবে।

সরকারের নতুন সন্ত্রাস দমন কৌশলের ফাঁস হওয়া খসড়ায় অত্যন্ত বিতর্কিত এই প্রস্তাবটি দেখা গেছে। চলতি বছরের শরতে এই কৌশলপত্রটি প্রকাশ করা হবে। এতে বলা হয়েছে, সব ধর্মের ধর্মীয় নেতাদের ‘জাতীয় ধর্মীয় নেতা নিবন্ধন’-এ নাম তালিকাভুক্ত করতে। -টেলিগ্রাফ

নির্বাচিত সংবাদ